মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৩, ১০ মাঘ ১৪১৯
পাকিস্তানে ড্রোন হামলার অবাধ স্বাধীনতা পাবে সিআইএ
যুক্তরাষ্ট্রে নতুন সন্ত্রাস দমন ম্যানুয়াল ॥ ইসলামাবাদে সিনেটরদের নিন্দা
মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসন সিআইএকে পাকিস্তানে এক বছর বা তারও বেশি সময় ধরে আল কায়েদা ও তালেবানের আস্তানাগুলোয় হামলা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেবে। ওবামা প্রশাসন সিআইএর বেছে বেছে হত্যাকা- চালানোর ওপর বাধানিষেধ আরোপ করে এক রুল বুক চূড়ান্ত করছে। কিন্তু এসব বাধানিষেধ পাকিস্তানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না এবং দেশটির উপজাতীয় এলাকায় সরাসরি ড্রোন হামলা চালানোর অবাধ স্বাধীনতা সিআইএর থাকবে। ইসলামাবাদে পাকিস্তান পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ সিনেটের সদস্যরা ঐ মার্কিন পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট ডন ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউন অনলাইনের।
মার্কিন সরকারের ঐ নতুন সন্ত্রাস দমন ম্যানুয়েলে বেছে বেছে হত্যাকা- চালানোর বিষয়ে কঠোর নিয়মকানুন নির্দেশ এবং তথাকথিত ‘কিল লিস্টে’ নতুন নাম যোগ করার প্রক্রিয়া বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। কিন্তু এতে পাকিস্তানে সিআইএর ড্রোন অভিযানকে বড় ধরনের দায়মুক্তি দেয়া হচ্ছে। রবিবার ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় এ কথা বলা হয়। এতে বলা হয়, সিআইএ স্বাধীনতা দু’ বছরের কম কিন্তু এক বছরের বেশি সময় ধরে ভোগ করবে। কারণ এর ড্রোন হামলা চালানোর কৌশল তালেবানপন্থী জঙ্গীদের দুর্বল করে দিতে খুবই কার্যকরিতার পরিচয় দিয়েছে।
সিআইএ এর ড্রোন হামলা সম্পর্কে পাকিস্তানের মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে আগাম নোটিস দেবে বলে প্রত্যাশা করা হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সংস্থাটি এর হামলার লক্ষ্যস্থলের নাম ও হামলা সিদ্ধান্ত সম্পর্কে প্রায় পূর্ণ স্বাধীনতা প্রয়োগ করে। কিন্তু সিআইএ পাকিস্তানের কেন্দ্র শাসিত উপজাতীয় এলাকায় (এফএটিএ)-এর লক্ষ্য অর্জন করার পর রুল বুক পাকিস্তানের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। ওয়াশিংটন পোস্টে এ কথা বলা হয়। এটিকে প্লে বুকও বলা হয়েছে। ছোটখাটো বিষয়গুলো নিষ্পত্তির পর দলিলটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য কয়েক সপ্তাহের মধ্যে প্রেসিডেন্ট ওবামার কাছে পাঠানো হবে।
রুল বুকটি প্রশাসনের সন্ত্রাস দমন নীতি কোর্ড বন্ধ করার এক বছরের প্রচেষ্টার ফল। এতে প্রেসিডেন্ট ওবামার দ্বিতীয় মেয়াদকালে প্রাণঘাতী অভিযান চালানোর দিকনির্দেশনা দিতেও চাওয়া হয়। ওয়াশিংটন পোস্ট বলেছে, ড্রোন হামলা চালানোর কৌশলকে প্রতিষ্ঠানিক রূপ দান ২০১১-এর ১১ সেপ্টেম্বরের আগে অনেকের কাছেই ঘৃণার বিষয় বলে মনে হতো। রুল বুকে কিল লিস্টে নতুন নাম যোগ করার পদ্ধতি, মার্কিন নাগরিকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর আইনগত নীতি এবং যুদ্ধ এলাকার বাইরে সিআইএ বা মার্কিন সামরিক বাহিনীর ড্রোন অভিযান চালানোর অনুমোদন নেয়ার প্রক্রিয়া উল্লেখ করা হয়েছে।
ওয়াশিংটন পোস্টে বলা হয়, প্রাণঘাতী হামলার মাপকাঠি কি হবে তা নিয়ে পররাষ্ট্র দফতর, সিআইএ ও পেন্টাগনের মধ্যকার মতানৈক্য গত বছরের শেষ দিকে নতুন কৌশলকে প্রায় ব্যর্থতায় পর্যবসিত করছিল। এতে বলা হয়, পাকিস্তানে তৎপরতা চালানোর ক্ষেত্রে সিআইএকে সাময়িক দায়মুক্তি দানকে এক আপোস রফা বলে বর্ণনা করা হয়। এ আপোস রফার ফলে কর্মকর্তারা প্লে বুকের অন্যান্য দিক নিয়ে এগিয়ে যেতে সক্ষম হন। যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে এর সৈন্যদের প্রত্যাহার করার প্রস্তুতি নেয়ায় পাকিস্তানে আল কায়েদা ও তালেবানকে দুর্বল করে দেয়ার পথ বন্ধ হতে শুরু করেছে। এ উদ্বেগ বোধ থেকে সিআইএকে পাকিস্তানে ড্রোন হামলা চালিয়ে যেতে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
আল কায়েদার বিরুদ্ধে লড়াই করার সঙ্কল্প আলজিরিয়ার
আলজিরিয়া এর মরুভূমির গ্যাস প্লান্টে জঙ্গী হামলার পর আল কায়েদার বিরুদ্ধে লড়াই চালানোর সঙ্কল্প ব্যক্ত করেছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী আবদেল মালেক সেল্লাল গত সপ্তাহের ওই হামলায় নেতৃত্ব দেয়ার জন্য এক কানাডীয় নাগরিককে অভিযুক্ত করেন, কমপ্লেক্সে অভিযান চালানোর ঘটনার প্রশংসা করেন এবং সাহারাতে ইসলামপন্থীদের উত্থান প্রতিহত করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এক জিম্মি সঙ্কটের সময় ওই কমপ্লেক্সে ৩৭ বিদেশী নিহত হন বলে তিনি জানান। খবর বিবিসি ও ওয়েবসাইটের।
আবদেল মালেক সেল্লাল বলেন, আলজিরিয়া কখনও সন্ত্রাসবাদের কাছে নতিস্বীকার করবে না বা আল কায়েদাকে ‘সাহেলিস্তান’ কায়েম করতে দেবে না। এটি আল কায়েদার উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকান আফগান ধরনের ঘাঁটি। তিনি আলজিয়ার্সে এক সংবাদ সম্মেলনে ভাষণ দিচ্ছিলেন।প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের স্পষ্টত রাজনৈতিক সদিচ্ছা রয়েছে। আলজিরিয়ার এক আল কায়েদা নেতা পূর্ববর্তী সপ্তাহে প্রতিবেশী মালিতে তার মিত্রদের ওপর ফ্রান্সের হামলার প্রতিশোধ নিতে ওই প্লান্ট চার দিন ধরে অবরোধ করে রাখার কথা দাবি করেন। এতে সাহারা ও সাহেল অঞ্চলগুলোতে ইসলামপন্থীদের তৎপরতার দিকে বিশ্বে দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়। পশ্চিমাশক্তিগুলো আফ্রিকান সরকারগুলোকে সমর্থন যোগানোর প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে। পশ্চিমাদের হাতে লিবিয়ার একনায়ক মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতন ঘটার পর ওই অঞ্চলে অস্ত্রশস্ত্র ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। গত সপ্তাহান্তে আলজিরিয়ার সৈন্যরা ওই প্লান্টটি পুনরায় দখল করলে সেই অবরোধের অবসান ঘটে। সেল্লাল তাঁর দেশের বিশেষ বাহিনীর অভিযান চালানোর সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, গ্যাস প্লান্ট উড়িয়ে দেয়াই অপহরণকারীদের লক্ষ্য ছিল। তিনি বলেন, অভিযানে নিহত ২৯ বন্দুকধারীর মধ্যে শেদাদ নামের এক কানাডীয় নাগরিকও ছিল। ওই অঞ্চলের আরবদের মধ্যে ওই বংশনাম প্রচলিত রয়েছে। শেদাদ হামলায় নেতৃত্ব দেন বলে সেল্লাল জানান। অন্য তিন জঙ্গীকে জীবিত অবস্থায় আটক করা হয়। সেল্লাল বলেন, নিহত ৩৭ বিদেশী জিম্মির মধ্যে ৭ জনের পরিচয় জানা যায়নি। আরও পাঁচ বিদেশী এখনও নিখোঁজ রয়েছে। প্রায় ৭০০ আলজিরীয় ও অন্য ১০০ বিদেশী প্রাণে বেঁচে যায়।
প্রধানমন্ত্রী জানান, অপহরণকারীরা মালির উত্তরাঞ্চল দিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে তাঁর দেশে অনুপ্রবেশ করেছিল। তারা আলজিরিয়া, মিসর, তিউনিসিয়া, মালি, নাইজার, কানাডা ও মৌরিতানিয়ার নাগরিক ছিল।
প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে মমতার বিতর্কিত মন্তব্যে তোলপাড়
মমতা ব্যানার্জী বেশ কয়েকবার প্রধানমন্ত্রীর সে দেখা করে সারের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ জানালেও কোন কাজ হয়নি জানিয়ে জনগণের কাছে মমতা জানতে চেয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীকে কি তিনি মারবেন?
সোমবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে এক জনসভায় কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করে মমতা বলেন, ‘আমি রাজস্ব পাই ২১ হাজার কোটি রূপী। ওরা (কেন্দ্র) আমাদের থেকে ২৬ হাজার কোটি রুপী নিয়ে নিচ্ছে। আমরা কী করে চালাব? কিন্তু আমাদেরও বুদ্ধি আছে। আমরা এই আর্থিক বছরে ১০ হাজার কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় করেছি।’ ‘আমি এসব নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে কম করে দশ বার বলেছি। এর থেকে বেশি তো কিছু করতে পারি না। আমি কি মারব গিয়ে? মারলেই তো লোকে গুণ্ডা বলবে। এমনিতেই তো ওরা (কেন্দ্র) আমাকে গুণ্ডা বলে।’
কেন্দ্রীয় সরকার পশ্চিমবঙ্গকে তার নায্য অধিকার দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন মমতা ব্যানার্জী। তিনি বলেন, ‘আমি বলছি, আমাদের আলাদা আর্থিক সাহায্য দিতে হবে না। সব রাজ্যকে কেন্দ্র যা দিচ্ছে, আমাদেরও তাই দেয়া হোক। কিন্তু তা হচ্ছে না।’ ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি ও খুচরা ব্যবসায় সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগের অনুমোদন দিয়ে মনমোহন নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার জনবিরোধী অবস্থান নিয়েছে বলেও সমালোচনা করেন মমতা ব্যানার্জী। প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে মমতার ওই বক্তব্যে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। কংগ্রেস নেতা ও রেল প্রতিমন্ত্রী অধীর চৌধুরী বলেছেন, ‘যার পঞ্চায়েত প্রধান হওয়ার ক্ষমতা নেই, আমাদের দুর্ভাগ্য যে, তিনিই এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।’ এই বক্তব্যের জন্য মমতাকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও দাবি করেছেন কংগ্রেসের আরেক নেতা মানস ভূঁইয়া। ‘কেন্দ্রের কাছে রাজ্যের দাবি থাকতেই পারে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য অপসংস্কৃতির পর্যায়ে পড়ে। আশা করি তিনি ভুল বুঝবেন ও প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইবেন,’ বলেন তিনি।
অবশ্য মমতার বক্তব্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের পক্ষ থেকে এখনও কোন প্রতিক্রিয়া আসেনি। সূত্র : ওয়েবসাইট।
শ্যাভেজ হেসেছেন ও কৌতুক করেছেন ॥ পররাষ্ট্রমন্ত্রী
কিউবার হাসপাতালে ভর্তি তেলসমৃদ্ধ ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট হুগো শ্যাভেজ হেসেছেন, কৌতুক করেছেন এবং কিছু দিকনির্দেশনাও দিয়েছেন। সম্প্রতি শ্যাভেজের সঙ্গে সাক্ষাত করে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইলিয়া জাওয়া এই কথা বলেন। খবর বিবিসি ও টেলিগ্রাফের।
সোমবার শ্যাভেজের সঙ্গে দেখা করেন জাওয়া। সাক্ষাত শেষে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারে তিনি লেখেন, শ্যাভেজের জয় হোক।
আমি আমাদের কমান্ডার প্রেসিডেন্ট হুগো শ্যাভেজের সঙ্গে বৈঠক করেছি। আমরা উভয়ে কৌতুক করেছি এবং হেসেছি। বৈঠকে আসন্ন লাতিন আমেরিকা সম্মেলন বিষয়ে কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছেন শ্যাভেজ। তবে বৈঠকের বিস্তারিত বিষয় জানাতে অস্বীকৃতি জানান ভেনিজুয়েলার এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ সপ্তাহেই চিলির রাজধানী সান্তিয়াগোতে এই সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে। ইলিয়া জাওয়া টুইটারে আরও লিখেন, জনগণের ভালবাসা এবং শুভেচ্ছা নিয়ে সময় কাটাচ্ছেন শ্যাভেজ। এর আগে গত রবিবার শ্যাভেজের সঙ্গে হাসপাতালে দেখা করেন ভেনিজুয়েলার ভাইস প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো। তিনিও শ্যাভেজের স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, শীঘ্রই ভেনিজুয়েলায় ফিরবেন শ্যাভেজ। গত বছরের ১১ ডিসেম্বর হাসপাতালে ভর্তি হন ৫৮ বছর বয়সী সাবেক ছত্রীসেনা হুগো শ্যাভেজ। এরপর থেকে তাঁর আরও কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আফগানিস্তানে জঙ্গী হত্যার কথা স্বীকার করলেন হ্যারি
আফগানিস্তানে অবস্থানকালে এক তালেবান জঙ্গীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন ব্রিটিশ রাজ সিংহাসনের ভবিষ্যত উত্তরাধিকারী প্রিন্স হ্যারি। সম্প্রতি আফগানিস্তানে পাঁচ মাসের এক মিশন শেষ করেন এই ব্রিটিশ রাজকুমার। আফগানিস্তানের দক্ষিণের হেলমান্দ প্রদেশে অবস্থান করেন হ্যারি। হেলমান্দে অবস্থাকালে এ্যাপাচি হেলিকপ্টারের কো-পাইলট হিসেবে কাজ করেন তিনি। এই হেলমান্দ প্রদেশকে তালেবানের আস্তানা হিসেবে অভিহিত করা হয়। হেলমান্দে অবস্থানকালে একাধিক মিশনে অংশ নেন প্রিন্স হ্যারি। এসব মিশনে অংশ নিয়ে রকেট, মিসাইল এবং কামান থেকে গুলি ছোড়েন ২৮ বছর বয়সী হ্যারি। সোমবার পাঁচ মাসের এই মিশন শেষে দেশে ফেরার প্রাক্কালে বিমানবন্দরে তালেবান জঙ্গীর ওপর গুলি করার বিষয়টি স্বীকার করেন তিনি। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে হ্যারি বলেন, আমাদের স্কোয়াড্রনের সবাই নির্দিষ্ট হারে গুলি ছুড়েছে। খবর, বিবিসি ও সিএনএনের।
পাক প্রধানমন্ত্রীর দুর্নীতি তদন্ত স্থগিত
পাকিস্তানে তদন্তকারী কর্মকর্তার মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার তদন্ত স্থগিত করা হয়েছে। দেশটির দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা জাতীয় জবাবদিহিতা ব্যুরো (এনএবি) সোমবার এ তথ্য জানায়। খবর বিবিসি/ অনলাইনের।
গত শুরুবার সরকারী হোস্টেল থেকে প্রধানমন্ত্রী রাজা আশরাফ পারভেজের দুর্নীতি তদন্তকারী কামরান ফয়সালের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। অন্যান্য সহকর্মীর সঙ্গে তিনি ইসলামাবাদের ওই হোস্টেলে থাকতেন। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। সিলিং ফ্যানের সঙ্গে তাঁর লাশ ঝুলতে দেখা গেছে। কিন্তু ফয়সালের পরিবার বলেছে, তাঁর হাতের কব্জিতে ক্ষতচিহ্ন ছিল। তাঁর আত্মহত্যার সত্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা। এনএবির চেয়ারম্যান ফসিহ বোখারি বলেন, কামরানের আত্মহত্যার মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র (আরপিপি) মামলা স্থগিত থাকবে। পানি ও বিদ্যুতমন্ত্রী থাকাকালে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে রাজা পারভেজ আশরাফ ও অন্যান্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে তদন্ত চলছে। এনএবি জানায়, অন্যদের পরিচালিত তদন্ত যদি তাদের সন্তুষ্ট করতে না পারে, তবে সংস্থাটি নিজ উদ্যোগেই ফয়সালের মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত করবে। কামরান ফয়সালের মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত করতে একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে নিয়োগ দিয়েছে পাকিস্তান সরকার। রবিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রেহমান মালিক বলেন, সুপ্রীমকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত একজন বিচারপতিকে প্রধান করে তদন্ত কমিশন গঠন করা হয়েছে। দুই সপ্তাহের মধ্যে তাঁরা প্রতিবেদন জমা দেবে। কামরান ফয়সাল এনএবির একজন অধস্তন কর্মকর্তা ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার তদন্তে তিনি যুক্ত ছিলেন। গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সুপ্রীমকোর্টের গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলে সর্বত্র রক্তপাতহীন সেনা অভ্যুত্থানের গুজব ওঠে। তবে সে সময় মামলাটি বুধবার পর্যন্ত স্থগিত করে আদালত। দুর্নীতির কেলেঙ্কারির অভিযোগে ২০১০ সালের ৩০ জানুয়ারি তাঁকেসহ সব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার যে নির্দেশ দিয়েছিল আদালত তা পর্যালোচনা করার জন্য আবেদনটি সোমবার প্রত্যাহার করে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
এনএবি জানায়, ফয়সাল মানসিক চাপে ছিলেন।
ইসরাইলের আইনসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু
ইসরাইল ও পশ্চিম তীরের ইহুদী বসতিতে মঙ্গলবার দেশটির আইনসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু জয়লাভ করবেন বলে ব্যাপকভাবে আশা করা হচ্ছে। ইসরাইলের ১২০ আসনের পার্লামেন্টে নেতানিয়াহুর ডানপন্থী জোট প্রায় ৬৩টি আসন পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এএফপি।

কুকুরের তাড়া খেয়ে
প্রাণের দায় বড় দায়। কুকুরের হাত থেকে বাঁচতে গৃহস্থের ঘরে আশ্রয় নিল একটি চিতাবাঘ। শনিবার রাতে ঝাড়খণ্ডের ডালটনগঞ্জ এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। রবিবার বিকেলে বন দফতরের কর্মীরা চিতাবাঘটিকে উদ্ধার করেন। পলামু জেলার ডালটনগঞ্জের বীরসানগর কলোনির বাসিন্দা ভরত মাহাতো। শনিবার রাতে তিনি বা তাঁর পরিবারের কেউ বাড়িতে ছিলেন না। ঘরের পেছনের দরজা আলগা করে বন্ধ করা ছিল। কুকুরের তাড়া খেয়ে একটি চিতাবাঘ কোনও ভাবে সেই দরজা খুলে ঘরের ভেতর ঢুকে পড়ে। পরে ভরতের প্রতিবেশীরা ওই দরজাটি আটকে দেয়ায় বাঘটি ঘরের ভেতরেই আটকা পড়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাতের দিকে হঠাৎ কলোনির রাস্তায় কুকুর ডাকতে শুরু করে। কলোনির বাসিন্দারা প্রথমে সন্দেহ করেন এলাকায় চোর ঢুকেছে। কিন্তু কিছুক্ষণ পরেই ভরতের ঘর থেকে বাঘের ডাক শুনে বুঝতে পারেন চোর নয়, এলাকায় বাঘ ঢুকছে। প্রথমে কলোনির লোকজন ভয় পেয়ে পেলেও পরে সাহস করে তাঁরা গিয়ে ভরতের ঘরের দরজা বাইরে থেকে শিকল তুলে দেন। ওয়েবসাইট।