মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৩, ৩০ অগ্রহায়ন ১৪২০
সিআরআর ও এসএলআর সংরক্ষণে পরিবর্তন
অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ মুদ্রানীতির বাস্তবায়ন আরও সহজ করতে এবার তফসিলি ব্যাংকগুলোর বিধিবদ্ধ জমা সঞ্চিতি অনুপাতগুলোয় সংশোধনী আনল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর ফলে এখন থেকে নগদ জমা সংরক্ষণ (ক্যাশ রিজার্ভ রেশিও-সিআরআর) ও বিধিবদ্ধ জমা সঞ্চিতি (স্ট্যাটুটরি লিকুইডিটি রেশিও-এসএলআর) অনুপাতগুলো পৃথকভাবে হিসাব করা হবে।
গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের মনিটারি পলিসি ডিপার্টমেন্ট থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এই আদেশ কার্যকর হবে। এই আদেশের ফলে নতুন ব্যাংক কোম্পানি আইনের ৩৩-এর (২) উপধারায় পরিবর্তন আনায় নগদ জমার অতিরিক্ত অর্থই কেবল এসএলআর হিসেবে গণ্য হবে।
বর্তমানে এসএলআর ও সিএসআর এই দুটি হাতিয়ারের আওতায় ১৯ শতাংশ পরিমাণ তারল্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে সংরক্ষণ করতে হচ্ছে ব্যাংকগুলোকে, যা সার্বিকভাবে এসএলআর হিসেবে পরিচিত। তবে এ ১৯ শতাংশ এসএলআরের মধ্যে ৬ শতাংশ সিআরআরও রয়েছে। এ ১৯ শতাংশ এসএলআরের সবটাই ব্যাংকগুলোর তারল্য সম্পদ হিসেবে গণ্য। এর আওতায় নগদ অর্থ, স্বর্ণ ও সরকারের ট্রেজারি বিল ও বন্ড অন্তর্ভুক্ত। সার্কুলারে বলা হয়েছে, ব্যাংকসমূহের দৈনিকভিত্তিতে রক্ষণীয় সহজে বিনিময়যোগ্য সম্পদের পরিমাণ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দ্বি-পাক্ষিক গড় ভিত্তিতে রক্ষণীয় নগদ জমা থেকে আলাদাভাবে নির্মিত হবে। এ প্রেক্ষিতে ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ৩৩ উপধারা (১) এ অর্পিত ক্ষমতাবলে প্রচলিত ব্যাংকের ক্ষেত্রে সিআরআরের অতিরিক্ত নগদ জমাসহ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে সহজে বিনিময়যোগ্য সম্পদের রক্ষণীয় মাত্রা তাদের মোট তলবিল ও মেয়াদী দায়ের ন্যূনতম ১৩ শতাংশ এবং ইসলামী শরীয়াহ ব্যাংকের ক্ষেত্রে ৫ দশমিক ৫ শতাংশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, এসএলআর পৃথক করার ফলে মুদ্রানীতি বাস্তবায়ন আরও সহজ হয়ে আসবে। কেননা এর ফলে এ দুটি হাতিয়ারের রেট আর একসঙ্গে বৃদ্ধির প্রয়োজন হবে না।

বিডি কমের বার্ষিক সভা ২৫ ডিসেম্বর
অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ অনিবার্য কারণে বিডিকম অনলাইন লিমিটেডের বার্ষিক সাধারণসভা (এজিএম) পেছনো হয়েছে। আগামী ২৫ ডিসেম্বর এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
উল্লেখ্য, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের এই কোম্পানির এজিএম অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ২১ ডিসেম্বর।