মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ৮ জুন ২০১০, ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪১৭
স্পেনের জনগণের কবি
গার্সিয়া লোরকা
আধুনিক স্প্যানিশ সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি ফ্যাদারিকো গার্সিয়া লোরকা। স্প্যানিশরা তাঁকে বলত জনগণের কবি। তার রচিত অসংখ্য রচনা ইংরেজী ভাষায় অনূদিত হয়ে ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বের পাঠকদের কাছে এবং ধীরে ধীরে তাঁর কাব্য-সাহিত্য প্রতিষ্ঠা লাভ করে স্বতন্ত্র এক ধারায়। স্পেনের প্রাচীন ঐতিহ্যময় শহর গ্রানাডা থেকে মাইল পাঁচেক দূরে আন্দালুশিয়া। ১৮৯৯ সালের ৫ জুন লরকা জন্মগ্রহণ করেন এই শহরে। তাঁর পিতা ছিলেন একজন জমিদার আর মা ছিলেন স্কুল শিৰক, মূলত পিয়ানো বাজানো শেখাতেন। তাই খুব ছোটবেলায় সঙ্গীতের হাতেখড়ি হয় লরকার। সেই সুবাদে জনপ্রিয় গানগুলো গাইতে পারতেন শৈশবে। ভগ্ন স্বাস্থ্যের কারণে খেলাধুলায় অংশ গ্রহণ করা তাঁর পৰে সম্ভব ছিল না, তাই বেশিরভাগ সময় কাটত বাড়ির আঙ্গিনায় আর পড়ার টেবিলে। দৈহিক প্ররিশ্রমে অপারগ ছিলেন বলেই হয়ত লরকার নিকট স্বপ্নের জগতটা বেশ বড় হয়ে উঠে। স্পেনের পলস্নী জীবন, ষাঁড়ের লড়াই, প্রেম, জিপসীদের রোমান্টিক জীবন, লোকসঙ্গীত, লোকনৃত্য সবকিছু সম্পর্কেই সম্যক একটি ধারণা পেয়েছিলেন তিনি। ছেলেবেলা থেকে স্পেনের জনসাধারণের এই কৃষ্টি জানবার সুযোগ পেয়েছিলেন বলেই হয়ত হতে পেরেছিলেন জনগণের কবি। ছোটবেলায় অসুস্থতার কারণে পড়াশোনায় কিছুটা অনিয়মিত হয়ে পড়েন লরকা। তবে সব প্রতিকূলতা উৎরে ঠিকই শেষ করলেন তার স্নাতক। আইন বিষয় স্নাতক করলেও সাহিত্য চর্চার কারণে কখনই আদালতে যাওয়া হয়নি তার। ১৯১৭ সালে অধ্যাপক ও ছাত্রদের সঙ্গে তিনি বেড়াতে যান ক্যাস্টিল। সেই ঐতিহাসিক স্মৃতিবিজড়িত স্থান তাকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। এর পরের বছর সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে তিনি রচনা করেন তাঁর প্রথম কাব্য গদ্য। তিনি বিভিন্ন পার্ক কিংবা রাজপথে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আবৃত্তি করতেন। এছাড়া দেশের সর্বত্র ঘুরে ঘুরে লোকগাথা সংগ্রহ তাঁর অন্যতম অবদান। লোকগাথার প্রতি তাঁর আগ্রহ ছিল ব্যাপক। ১৯২১ সালে লরকার প্রথম কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। এ গ্রন্থ লোকগাথার ওপর ভিত্তি করে রচিত কবিতার সংকলন। এই সময় মাদ্রিদের রঙ্গমঞ্চে তাঁর একটি নাটকের সাফল্যের সহিত অভিনীত হয়। কাব্য ও নাটকের পাশাপাশি তার শিল্পী প্রতিভাও বিকশিত হতে থাকে। ১৯২৯ সালে লরকা আমেরিকারসহ এর আশপাশের বেশ কিছু অঞ্চলে ভ্রমণে বের হন। লরকা আমেরিকা আসার পর ইংরেজীতে প্রথম তাঁর কবিতা অনুবাদ হয় এবং পৃথিবীর সকল দেশের কাব্য রসিকরা সেই অনুবাদের সাহায্যে তাঁর কাব্যপ্রতিভার সঙ্গে পরিচিত হওয়ার সুযোগ পায়। ধনতান্ত্রিক রাষ্ট্র আমেরিকা জীবন ও দর্শন তাঁর কাব্য রচনায় নতুন প্রেরণা যোগাতে পারেনি। সুদূর প্রবাস জীবনেও তিনি লিখেছেন স্পেনের ঐতিহ্যের ওপর কবিতা। আমেরিকার নিগ্রোদের জীবন লরকাকে ব্যাপকভাবে আকৃষ্ট করে। নিগ্রোদের সঙ্গে ঘুরে ঘুরে তাদের রীতিনীতি ও উপকথা সম্পর্কে সংবাদ সংগ্রহ করেছিলেন। লরকার মেঙ্েিকা ও কিউবা ভ্রমণের সময় স্পেনে আমূল রাজনীতিক পরিবর্তনের সূচনা হয়। ১৯৩১ সালে রিপাবলিকানরা রাজা ত্রয়োদশ আলফানসোকে সিংহানচু্যত করে স্পেনে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর ছাত্র-কংগ্রেসের অধিবেশনে প্রসত্মাব করা হয় একটি নাট্যমঞ্চ স্থাপনের। নাম দেয়া হয় 'লা বারাকা' স্পেনের অন্যতম শহর মাদ্রিদের প্রাণকেন্দ্রে এর মঞ্চ নির্মাণ করা হয়। স্পেনের প্রসিদ্ধ নাটকগুলো এই মঞ্চে মঞ্চায়িত করা হয়। জনগণের প্রিয় কবি ও নাট্যকার লরকা 'লা-বারাকার' ডিরেক্টর নিযুক্ত হন। ছাত্রদের কর্মতৎপরতায় এই মঞ্চ নাটকের সাফল্য ছড়িয়ে পড়ে দেশের প্রত্যনত্ম অঞ্চলে। ১৯৩৬ সালে স্পেনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সে নির্বাচনে পপুলার ফ্রন্ট (কমু্যনিস্ট, সোসালিস্ট রিপাবলিকান প্রভৃতির সম্মিলিত দল) বিপুল ভোটে জয় লাভ করে। প্রগতিবাদীরা এই প্রত্যাশিত ফলে যখন উৎফুলস্ন ঠিক তখন রাষ্ট্র ৰমতা দখল করে নেয় জেনারেল ফ্রাঙ্কো। ফ্রাঙ্কোর সঙ্গে ছিল রাজতন্ত্রের সমর্থক, ক্যাথলিক পাদ্রি, জমিদার, পুঁজিপতিসহ রৰণশীল দলের লোক। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় তখন দৃঢ়কামী জনসাধারণ প্রগতিবিরোধী শক্তির সঙ্গে লড়াই ঘোষণা করে। আরম্ভ হয় গৃহযুদ্ধ। এই যুদ্ধে বিশ্বের সকল কবি, সাহিত্যিক, লেখক, গায়ক পৰ নেয় রিপাবলিকানদের পৰে। তারা স্পেনের গৃহযুদ্ধেও অংশ নেয়। তাদের সেই ব্রিগেডের নাম দেয়া হয় আনত্মর্জাতিক ব্রিগেড। এই গৃহযুদ্ধ নিয়ে সমসত্ম পরাশক্তিগুলো জেনারেল ফ্রাঙ্কোকে সমর্থন করে। একমাত্র সোভিয়েত ইউনিয়ন পৰ নেয় রিপাবলিকানদের। ইতালি এবং জার্মানিকে তখন নব্য দুই ফ্যাসিস্ট দখল করে নেয় রাষ্ট্র ৰমতা। তারাও উৎসাহ যোগায় জেনারেল ফ্রাঙ্কোকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য সকল সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলো এক হয়ে লড়াই করে ফ্রাঙ্কোর পৰে। আনত্মর্জাতিকভাবে উৎসাহ যোগায় এই জেনারেলকে। এই গৃহযুদ্ধে স্পেন হারায় তার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি গার্সিয়া লরকাকে। স্পেনের গৃহযুদ্ধ মূলত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্ব প্রস্তুতি। এই গৃহযুদ্ধ অবলম্বনে পিকাসোর সেই বিখ্যাত গুয়োর্নিকা আজও অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিল্প কর্ম হিসেবে পৃথিবীতে স্থান করে আছে।

০ ইশরাত রাহা