মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০১৩, ২৬ বৈশাখ ১৪২০
আমি একটি রান্নার বই লিখছি জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়
সময়ের গুণী অভিনেতা জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে টেলিফোনে আলাপন বিভাগে কথা বলে আলাপচারিতার চুম্বক অংশ তুলে ধরেছেন সৈয়দ নূর-ই-আলম

শুটিংয়ে নাকি?
জয়ন্ত : না, আজকে শুটিং রাখিনি। বাসাতেই আছি।
আপনার ধারাবাহিক নাটকের ব্যস্ততা প্রসঙ্গে বলুন...
কয়েকটি ধারাবাবাহিক নাটকে কাজ করছি। এর মধ্যে এশিয়ান টিভিতে নিয়মিত প্রচার
হচ্ছে ধারাবাহিক নাটক ‘নাটাই পাড়া বনাম ঘুড্ডি পাড়া’। নাটকটি পরিচালনা করেছেন জিয়া উদ্দিন রাজু।
হরিজন-চলচ্চিত্রটির খবর কি?
জয়ন্ত : এ ছবিতে আমি নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছি। সমাজের সুবিধাবঞ্চিত হরিজন সম্প্রদায়কে কেন্দ্র করে ছবিটি পরিচালনা করেছেন মির্জা সাখাওয়াত। চলতি মাসের শেষের দিকে ছবিটি সেন্সরেও জমা দেয়া হবে। ছবির আমার বিপরীতে অভিনয় করেছেন রোকেয়া প্রাচী।
‘হরিজন’ চলচ্চিত্রটি কাহিনী কেমন?
জয়ন্ত : ছবিতে শিক্ষামূলক বিষয় রয়েছে। ছবির কাহিনীতে দেখা যাবে দরিদ্র মঙ্গল হরিজন মিউনিসিপ্যালিটির একটি চাকরির জন্য চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। তার স্ত্রীর আয়েই সংসার চলে। ছবির গল্পে দরিদ্রতার বিষয়টিই সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। ছবিটি চলতি বছরের মাঝামাঝিতে মুক্তি পাবে।
রবীন্দ্রজয়ন্তী উপলক্ষে কোন্ কোন্ নাটকে অভিনয় করেছেন?
জয়ন্ত : রবীন্দ্রনাথের গল্প অবলম্বনে ২-৩টি খ- নাটকে অভিনয় করেছি। এগুলো হচ্ছে- সুমন আনোয়ারের ‘অপরাজিতা’, অঞ্জন আইচের ‘নিষ্কৃতি’ ইত্যাদি নাটক বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার হয়েছে।
সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত আপনার অভিনীত ‘শিখন্ডি কথা’ দর্শক সাড়া কেমন পেয়েছেন?
জয়ন্ত : ‘শিখন্ডি কথা’ ছবিটি মানবিক আবদেন সম্পন্নমুক্তি পেয়েছে। ছবিতে সমাজের হিজড়া সম্প্রদায়ের যাপিত জীবনের নানা কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে। ছবিতে আমি শিখন্ডি রতনের পিতার ভূমিকায় অভিনয় করেছি। দর্শক রেসপন্স এককথায় দারুণ। আসলে কিছু কাজ মানুষের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলে। এখানে আমার অভিনয় দেখে সবাই ফোন দিয়ে প্রশংসা করেছে।
শুনেছি ইদানীং লেখালেখি করছেন?
জয়ন্ত : হ্যাঁ, আমি একটি রান্নার বই লিখছি। আমাদের দেশের ঐতিহ্যবাহী রান্নার রেসিপিগুলো দিনেকে দিন হারিয়ে যাচ্ছে। তাই দেশীয় খাবারের রেসেপির ওপর একটি বই লিখছি। এছাড়াও বইতে আমার নিজের তৈরি করাও কিছু রেসিপি থাকবে।