মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০১১, ২৫ আশ্বিন ১৪১৮
হাসপাতাল গড়ে তুলবেন ববিতা
অভি মঈনুদ্দিন
ডিসট্রেসড চিলড্রেন এ্যান্ড ইনফ্যান্টস ইন্টারন্যাশনাল (ডিসিআইআই)-এর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা দূত (গুডউইল এ্যাম্বাসেডর) নির্বাচিত হয়ে কাজ করছেন নায়িকা ববিতা। জাতিসংঘের আওতাভুক্ত দেশগুলোর মানুষদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা এবং ব্যয় কমিয়ে তার কিছু অংশ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সাহায্যার্থে তহবিল সৃষ্টির কাজ করে যাচ্ছে ডিসট্রেসড চিলড্রেন এ্যান্ড ইনফ্যান্টস ইন্টারন্যাশনাল (ডিসিআইআই)। এটি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অলাভজনক সংগঠন। ডিসিআইআইর পক্ষ যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন সিটিতে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গত ১০ সেপ্টেম্বর থেকে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন ববিতা। আগামী ১৫ অক্টোবর তাঁর দেশে ফেরার কথা থাকলেও ওয়াশিংটন, ফিলাডেলফিয়া, মিশিগান ও ক্যালিফোর্নিয়ায় ডিসিআইআইয়ের পক্ষ হয়ে কাজ করবেন বলে দেশে ফেরার তারিখ আরও দশ দিন পিছিয়ে গেছে তাঁর। এদিকে ডিসিআইআইয়ের সঙ্গে বিভিন্ন শহরে কাজ করার পাশাপাশি ডিসিআইআইকে বাংলাদেশের নড়াইলের চরবালিদিয়ায় একটি হাসপাতাল করার প্রসত্মাব দিলে ডিসিআইআই ববিতার সে প্রস্তাব সাদরে গ্রহণ করে এবং দেশে ফিরে ববিতাকে হাসপাতাল করার জন্য পূর্ণ পরিকল্পনা দাঁড় করাতে বলেন। গতকাল (৯ অক্টোবর) সকালে ববিতা নিউইয়র্ক থেকে ফোনে তাঁর অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, 'আমার মায়ের স্বপ্ন ছিল একটি হাসপাতাল করার। সেই স্বপ্ন পূরণে ডিসিআইআই এভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ায় সত্যিই আমি খুব খুশি হয়েছি। আশা করি সবার সহযোগিতায় এ হাসপাতালটি খুব দ্রম্নত গড়ে তুলতে পারব। আমি দেশবাসীর কাছে আমার এ স্বপ্ন পূরণে দোয়া কামনা করছি।' মূলত গত তিন বছর আগে ববিতা ও তাঁর বড় বোন সুচন্দা তাঁদের নানার বাড়ি নড়াইলের চরবালিদিয়ায় বেড়াতে যান। সেখানকার সাধারণ মানুষ চিকিৎসায় অবহেলার কারণে মৃতু্যর মুখোমুখি হন বিধায় সেখানে একটি হাসপাতাল করার ইচ্ছে প্রকাশ করেন তাঁরা। সাধারণ মানুষও তাঁদের সেই পরিকল্পনা শুনে খুব খুশি হন। উলেস্নখ্য, আগামী ২৫ অক্টোবর ববিতা দেশে ফিরবেন। দেশে ফিরে তিনি নড়াইলের চরবালিদিয়ায় নানার বাড়িতে যাবেন বলে তিনি জানান।