মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ৫ এপ্রিল ২০১৩, ২২ চৈত্র ১৪১৯
সানডে টাইমস পুরস্কার পেলেন জুনট ডায়াজ
আমেরিকান লেখক জুনট ডায়াজ সানডে টাইমস শর্ট স্টোরি পুরস্কার লাভ করেন। ছোট গল্প মিস লরার জন্য এ পুরস্কার জেতেন তিনি। মূলত ক্লাসিক ঘরানার গল্প এটি। স্কুলপড়ুয়া এক ছাত্রের জীবনকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠে গল্পের কাহিনী। মার্ক হেডন, আলি স্মিথ ও সারাহ হলের মতো লেখকদের পেছনে ফেলে জুনট জয় করে নেন ৩০ হাজার ইউরো মূল্যের এ পুরস্কার।
গল্পকার জুনট ডায়াজ এর আগে আরও বেশ কিছু সম্মাননা লাভ করেন। তন্মধ্যে পুলিৎজার ও মার্ক আর্থার জিনিয়াস অন্যতম। ঔপন্যাসিক ও বিচারক এন্ড্রু ও হাগন ‘মিস লরা’ গল্পটিকে বর্তমান সময়ের সেরা ক্লাসিক গল্প বলে মন্তব্য করেন।

তান তুয়াই ইং-এর ম্যান এশিয়ান সাহিত্য পুরস্কার লাভ
ম্যান এশিয়ান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৩ লাভ করেন তান তুয়াং ইং। তিনিই প্রথম মালয়েশিয়ান লেখক যিনি গৌরবময় এ পুরস্কার লাভ করেন। এশিয়ার সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কার হলো ম্যান এশিয়ান সাহিত্য পুরস্কার। দ্য গার্ডেন অব ইভিনিং মিস্ট উপন্যাসটির জন্য তান তুয়াং এ পুরস্কারে ভূষিত হন। পুরস্কার লাভের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তান খুব উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তান বলেন, অনেক ভাল বইয়ের মাঝে আমার বইটি নির্বাচিত হয়েছে। এতে আমি অনেক অবাক এবং অনেক খুশি হয়েছি, যা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়।
উল্লেখ্য, পুরস্কার প্রাপ্তদের তালিকায় রয়েছেন পাকিস্তানী সাহিত্যিক মোশাররফ আলী ফারুকী, নোবেল বিজয়ী তুর্কি ঔপন্যাসিক ওরহান পামুক, জাপানের লেখক হিরেমি পামুক প্রমুখ। ব্রিটিশ সাংবাদিক ডক্টর মায়া জ্যাগি নির্বাচক প্যানেলের সভাপতি ছিলেন। অসংখ্য থিম ও রহস্যের কারণে উপন্যাসটি গুরুত্বপূর্ণ বলে তিনি উল্লেখ করেন।
শেষ হলো তালঘাট পাটনা সাহিত্য উৎসব
সম্প্রতি সম্পন্ন হয়ে গেল তালঘাট পাটনা সাহিত্য উৎসব (টিপিএলএফ)। গত মাসের শেষ সপ্তাহে দু’দিনব্যাপী চলে এ উৎসব। গুলজার, কাশিম খুরশীদ এবং উদয় নারাইন সিংয়ের মতো প্রখ্যাত সাহিত্যিকদের অংশগ্রহণে সম্পন্ন হয় পাটনা সাহিত্য উৎসব।
এ উৎসবে চল্লিশজনেরও বেশি লেখকের বিভিন্ন ভাষার বই, সাংস্কৃতিক কর্মকা- এবং চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বের উপস্থিতিও ছিল উল্লেখ করার মতো।
দু’দিনব্যাপী এ উৎসবে সমপক্ষে ১৫টিরও বেশি আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। মতবিনিময় সভা ছাড়াও বাচ্চাদের জন্য সাহিত্যনির্ভর কর্মশালারও আয়োজন করা হয়। তন্মধ্যে ভারতীয় বিভিন্ন প্রদেশের ভাষা ও সাহিত্যের আলোচনাই ছিল বেশি। এমনকি হিন্দী ভাষায় নির্মিত চলচ্চিত্রের আলোচনাও সেখানে বাদ পড়েনি।
টিপিএলএফের আয়োজক কর্তৃপক্ষের অন্যতম সত্যানন্দ নিরূপম এ উৎসবকে লেখক ও দর্শকদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন।
এ উৎসবে উর্দু, হিন্দী এবং ইংরেজী ভাষার সাহিত্যকর্মের পাশাপাশি ভোজপুরি, মৈথিলী ভাষার সাহিত্যকর্মও প্রদর্শনী হয়।
সূত্র : অনলাইন