মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১৬ মে ২০১১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪১৮
নতুন চেয়ারম্যানকে স্বাগত জানালেন বিনিয়োগকারীরা
সপ্তাহের প্রথম দিনে চাঙ্গা পুঁজিবাজার
অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) চেয়ারম্যান পদে ড. খায়রুল হোসেনের নিয়োগকে স্বাগত জানিয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। প্রায় দেড় মাস ধরে ধারাবাহিক দরপতনের পর রবিবার বাজার ঘুরে দাঁড়ানোর মধ্য দিয়ে নতুন চেয়ারম্যানের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থার প্রতিফলন ঘটেছে। সপ্তাহের প্রথম লেনদেনেই উলেস্নখযোগ্যহারে বেড়েছে শেয়ারবাজারের লেনদেন ও সূচক। অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের দরবৃদ্ধির প্রভাবে রবিবার ১৭৫.৬২ পয়েন্ট বেড়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাধারণ সূচক। পাশাপাশি ১১৩ কোটি টাকারও বেশি বেড়েছে আর্থিক লেনদেন।
গত ৭ এপ্রিল পুঁজিবাজার তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশের পর থেকেই নানা ধরনের অনিশ্চয়তার কারণে শেয়ারবাজারের লেনদেনে মন্দাভাব তৈরি হয়। ৩০ এপ্রিল সরকারের পৰ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর বাজার নিয়ে বিনিয়োগকারীরা কিছুটা আশার আলো দেখেছিলেন। কিন্তু এসইসি পুনর্গঠন ও কারসাজির দায়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ নিয়ে সময়ৰেপণের কারণে আবারও বাজারে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। এ সময় বড় বিনিয়োগকারীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। পাশাপাশি এসইসিতে কারা আসছেন এবং সরকারের দিক থেকে কী ধরনের পদৰেপ নেয়া হচ্ছে_ এসব বিষয় পর্যবেৰণের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও ধীরে চলো নীতি অবলম্বন করেন। এ কারণে একদিকে ধারাবাহিকভাবে কমতে থাকে শেয়ারবাজারের সূচক। অন্যদিকে লেনদেনের পরিমাণ কমতে কমতে ৩০০ কোটি টাকার কাছাকাছি নেমে আসে।
তবে এসইসি পুনর্গঠনের বিষয়টি চূড়ানত্ম হওয়ার পর গত বৃহস্পতিবার থেকেই বাজারে ইতিবাচক প্রবণতা শুরম্ন হয়। রবিবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. খায়রম্নল হোসেনকে এসইসির চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয় সরকার। এ বিষয়টি প্রচারিত হওয়ার পরই চাঙ্গা হয়ে ওঠে পুঁজিবাজার। দিনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সামগ্রিক লেনদেনে চাঙ্গাভাব অব্যাহত থাকার মধ্য দিয়ে নতুন চেয়ারম্যানের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেছেন বিনিয়োগকারীরা।
বাজার বিশেস্নষকদের মতে, অব্যাহত দরপতনের পর সূচক এবং লেনদেন বৃদ্ধিতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে কিছুটা স্বসত্মি ফিরে এসেছে। তবে বাজারে এখনও স্থি্থতিশীলতা ফিরে আসেনি। এসইসির পুনর্গঠনসহ তদনত্ম কমিটির সুপারিশ বাসত্মবায়নে সরকারের পরবর্তী পদৰেপের ওপর বাজারের স্থি্থতিশীলতা নির্ভর করছে।
তাঁদের মতে, এসইসির চেয়ারম্যান নিয়ে সরকারের সিদ্ধানত্মহীনতার কারণে গত কয়েক সপ্তাহে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা সঙ্কট ছিল। এর প্রভাবে বাজারে পতন ঘটেছে। অনিশ্চয়তা কাটিয়ে নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ বাজারে ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে। তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী পুঁজিবাজার সংস্কারে পদৰেপ গ্রহণ, ভীতি কাটিয়ে বড় বিনিয়োগকারীদের বাজারে সক্রিয় করা, ব্যাংকিং খাতের বিনিয়োগে প্রতিবন্ধকতা দূর করা এবং বাজেটকে ঘিরে বাজারে যেসব গুজব রয়েছে_ সেগুলোর বিষয়েও সরকারের দিক থেকে স্পষ্ট বক্তব্য দেয়া হলে বিনিয়োগকারীরা পূর্ণ আস্থা নিয়ে বাজারে লেনদেনে অংশ নিতে পারবে।
ঢাকা স্টক এঙ্চেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ও সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ ফিরোজ খানের মৃতু্যতে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রবিবার বেলা ১১টার পরিবর্তে ১১টা ৫ মিনিটে লেনদেন শুরম্ন হয়। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৫০টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ২১৬টির, কমেছে ৩২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২টি কোম্পানির শেয়ারের দর। এতে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসই সাধারণ সূচক ১৭৫.৬২ পয়েন্ট বেড়ে ৫৭৮৮.১৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।
ডিএসইতে সারা দিনে মোট ৫ কোটি ৯৭ লাখ ২৩ হাজার ৮৭টি শেয়ার, মিউচু্যয়াল ফান্ড ইউনিট ও কর্পোরেট বন্ড লেনদেন হয়েছে। আর্থিক হিসাবে লেনদেনের পরিমাণ ৫৬৩ কোটি ২৯ লাখ ৫৪ হাজার ৬১০ টাকা_ যা আগের দিনের চেয়ে ১১৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা বেশি।
আর্থিক লেনদেনের ভিত্তিতে ডিএসইতে শীর্ষ অবস্থানে থাকা ১০টি কোম্পানি হলো_ পিপলস লিজিং, বেঙ্মিকো লিমিটেড, আফতাব অটোমোবাইলস, বিএসআরএম স্টিল, বেঙ্টেঙ্, তিতাস গ্যাস, বে লিজিং, লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ এবং আরএকে সিরামিকস।
দর বৃদ্ধির দিক থেকে শীর্ষ ১০টি কোমপানি হলো_ পূরবী জেনারেল ইন্সু্যরেন্স, বিজিআইসি, ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, স্কয়ার টেঙ্টাইল, উত্তরা ফাইন্যান্স, লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স, পিপলস লিজিং, বিডি ফাইন্যান্স, এশিয়া ইন্সু্যরেন্স এবং প্রাইম ফাইন্যান্স।
অন্যদিকে দর হ্রাসের শীর্ষে থাকা ১০টি কোমপানি হলো_ কেপিসিএল, রূপালী ইন্সু্যরেন্স, ৭ম আইসিবি মিউচু্যয়াল ফান্ড, ইস্টার্ন লুবিক্যান্টস, কনফিডেন্স সিমেন্ট, বিডি ল্যাম্পস্, ওয়ান ব্যাংক, ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্স ইনভেস্টমেন্ট, লাফার্জ সুরমা ও একটিভ ফাইন কেমিক্যাল।