মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৩, ৬ কার্তিক ১৪২০
জাতীয় শিশু অন্ধত্ব নিবারণ কর্মসূচী কাল উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি
দৃষ্টি শিশুর অধিকার। সেই অধিকার ক্ষুণœ হলে তাকে কেবল শারীরিক ও মানসিকভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত করে না, তার পরিবারের ওপর সামাজিক ও অর্থনৈতিক চাপ সৃষ্টি করে। শিশুদের নিরাময়যোগ্য অন্ধত্ব এবং ভিশন ২০২০ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে ন্যাশনাল আই কেয়ার এবং অরবিস ইন্টারন্যাশনাল যৌথভাবে জাতীয় শিশু অন্ধত্ব প্রতিরোধ কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করছে। জাতীয় এ কর্মসূচীর মাধ্যমে বাংলাদেশে ১০টি বিশেষায়িত হাসপাতালে শিশু চিকিৎসা সেবার উন্নয়ন হবে এবং দেশব্যাপী মানসম্মত শিশু চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে।
এ বৃহৎ কর্মসূচীর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে ২২ অক্টোবর বিশ্ব দৃষ্টি দিবসের প্রাক্কালে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আফম রুহুল হক, প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডাঃ সৈয়দ মোদাচ্ছের আলীর এবং স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মজিবুর রহমান ফকির।
জাতীয় শিশু অন্ধত্ব নিবারণ কর্মসূচী ২০১৩ সম্পর্কে বিস্তারিত পরিকল্পনা এবং তথ্য তুলে ধরতে রবিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন অরবিস ইন্টারন্যাশনালের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. মুনীর আহমেদ, জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক এবং ন্যাশনাল আই কেয়ারের লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নুরুল হক।
ড. মুনীর আহমেদ বলেন, এ কর্মসূচীর আওতায় দেশের ১২ লাখের অধিক শিশুকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হবে এবং ২০ হাজারের অধিক শিশুর চক্ষু অপারেশন করা হবে।
এ ছাড়া ১০টি হাসপাতালের শিশু চিকিৎসা কেন্দ্র উন্নয়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধি করা এবং তাদের মধ্যে রেফারেল সিস্টেম প্রচলন করে নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসা হবে। -বিজ্ঞপ্তি।

ভারতের রাজস্ব সচিব মুন্সীগঞ্জে
স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ ভারতীয় কেন্দ্রীয় সরকারের রাজস্ব সচিব সুমিত বসু সস্ত্রীক রবিবার সিরাজদিখান উপজেলার কোলা গ্রামে পূর্ব পুরুষদের ভিটা এবং তাঁদের পরিবারের প্রতিষ্ঠিত দাতব্য চিকিৎসালয় ঘুরে গেলেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশস্থ ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনার সন্দীপ চক্রবর্তী।