মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০১১, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪১৮
আপীল বিভাগে নবনিযুক্ত দুই বিচারপতির শপথ
স্টাফ রিপোর্টার ॥ আপীল বিভাগে বিচারক হিসেবে নবনিযুক্ত বিচারপতি মোঃ মমতাজউদ্দিন আহমেদ ও বিচারপতি মোঃ শামসুল হুদা শপথ নিয়েছেন। প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক সোমবার বেলা পৌনে ১১টায় সুপ্রীমকোর্ট ভবনের জাজেস লাউঞ্জে তাদের শপথবাক্য পাঠ করান।
রাষ্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমান রবিবার এই দুই বিচারপতিকে আপীল বিভাগে নিয়োগ দেন। নতুন দুই বিচারককে নিয়ে আপীল বিভাগে বিচারপতির সংখ্যা দাঁড়াল ৯। আপীল বিভাগে প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রম্নল হকসহ ৭ জন বিচারক কাজ করছিলেন। এর আগে বৃহস্পতিবার পদত্যাগ করেন বিচারপতি শাহ আবু নাঈম মোমিনুর রহমান। প্রধান বিচারপতি খায়রুল হক ১৮ মে অবসরে যাচ্ছেন। পরবর্তী প্রধান বিচারপতি হিসেবে ইতোমধ্যে মোঃ মোজাম্মেল হোসেনকে নিয়োগ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি।

আত্মনিবেদিত শিৰকদের কোন অবসর নেই ॥ শিক্ষামন্ত্রী
স্টাফ রিপোর্টার ॥ শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আত্মনিবেদিত শিক্ষকদের কোন অবসর নেই। চাকরি থেকে অবসর নিলেও দেশ-জাতি-সমাজকে তাঁদের দেয়ার অনেক কিছু আছে। তাঁরা সমগ্র জাতির শ্রদ্ধার আসনে আসীন। সোমবার জাতীয় জাদুঘরের বেগম সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে অবসরপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা শিক্ষক/ কর্মচারীদের অবসর সুবিধার চেক বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।
বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক ও কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষাসচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। আরও উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নোমান উর রশীদ, অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সচিব অধ্যাপক আসাদুল হক, কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব সাজাহান আলম সাজু, জাতীয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি এম আজিজুল ইসলাম, অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সাবি্বর আহমেদ মোমতাজী, রঞ্জিত কুমার সাহা, এটিএম মোয়াজ্জেম হোসেন। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার এদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযোগ্য সম্মান প্রদানে কাজ করছে। সরকারের বিভিন্ন খাতের পাশাপাশি শিক্ষা খাতের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষকগণকে আবেদন করার স্বল্পতম সময়ের মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাঁদের অবসর ও কল্যাণ ভাতা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, অবসর ও কল্যাণ ভাতা উত্তোলনের ক্ষেত্রে বিগত দিনের সীমাহীন ভোগানত্মির অবসান ঘটিয়ে আমরা 'চেকের পিছনে শিক্ষক নয়- শিক্ষকের পিছনে চেক ছুটবে'নীতি চালু করেছি। এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ সফলতা না আসলেও গুণগত পরিবর্তন এসেছে অনেকখানি। আমরা মুক্তিযোদ্ধা, হজযাত্রী, অসুস্থ শিক্ষকদের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিচ্ছি। অনেক অসুস্থ শিক্ষকের বাড়িতে চেক পেঁৗছে দেয়ার উদাহরণও আছে। মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ভিশন- ২০২১ বাসত্মবায়নে নতুন প্রজন্মকে মূল হাতিয়ার উলেস্নখ করে বলেন, শিক্ষক সমাজই তাদের দক্ষ, যোগ্য ও নৈতিক মূল্যবোধে বলীয়ান করে গড়ে তুলতে পারেন। তিনি মানসম্মত শিক্ষাকে আসল চ্যালেঞ্জ হিসেবে তুলে ধরে সরকার গৃহীত নানা পদক্ষেপে সংশিস্নষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করেন। অনুষ্ঠানে ১০৪ জন মুক্তিযোদ্ধা শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার চেক বিতরণ করা হয়। সরকারের বিগত দু' বছরে অবসর সুবিধা বোর্ড থেকে ১৪ হাজার ৩৫০ জন শিক্ষক-কর্মচারীর মধ্যে ৩৫৮ কোটি ২৪ লাখ টাকার চেক দেয়া হয়েছে।