মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৩, ১৪ ফাল্গুন ১৪১৯
নোয়াখালীতে ডাকাত সন্দেহে এএসপির গাড়িতে আগুন, আটক ২০
নিজস্ব সংবাদদাতা, নোয়াখালী, ২৫ ফেব্রুয়ারি ॥ নোয়াখালীতে ডাকাতির খবর মাইকে প্রচার হওয়ায় উত্তেজিত জনতা ডাকাত সন্দেহে সহকারী পুলিশ সুপারের (এএসপি) গাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। এছাড়া ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় সহকারি পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান ও দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। রবিবার গভীর রাতে সোনাইমুড়ি উপজেলার অম্বরনগর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের করিম মাষ্টারের বাড়িতে স্থানীয় কাজিরহাট বাজারের ব্যবসায়ী ইকবালকে গ্রেফতার করতে গেলে মসজিদের মাইকে এলাকায় ডাকাত পড়ার খবর প্রচার হলে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় মসজিদের মাইকে গ্রামে ডাকাত এসেছে প্রচার করে কয়েক হাজার মানুষ জড়ো হয়ে সহকারী পুলিশ সুপার ও সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার (এসপি) মাহবুব রশীদ অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং অবরুদ্ধ পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন। এঘটনায় সোমবার ভোর থেকে সকাল সাড়ে নয়টা পর্যন্ত অম্বনগর গ্রামের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পুলিশ নারী ও পুরুষসহ ২৬ জনকে আটক করে। পরে ৬ জনকে ছেড়ে দেয়া হয় এবং বাকি ২০ জনকে গ্রেফতার দেখানো হয়। পুলিশী অভিযানের কারণে পুরো গ্রাম পুরুষশূণ্য হয়ে পড়েছে। গ্রামের ছোট-খাট বাজারগুলোর সব দোকানপাট বন্ধ করে ব্যবসায়ীরা আত্মগোপন করেছেন।
এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে। এতে গ্রেফতারকৃত ২০ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাতনামা ৫/৬ হাজার নারী-পুরুষকে আসামি করা হয়েছে।
এদিকে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার (এসপি) মাহবুব রশীদের দাবি এএসপি-সার্কেল পোশাক পরা পুলিশ সদস্য নিয়ে ওই বাড়িতে গিয়েছিলেন। গাড়িতেও পুলিশ লেখা ছিল। এরপরও মাইকে ডাকাত ঘোষণা দেয়ায় স্থানীয় জনতা উত্তেজিত হয়েছিলেন। পুলিশের গাড়িটি ভস্মীভূত করা হয়েছে, এটি শুধুমাত্র উত্তেজিত জনতার কাজ নয়। কারণ ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনি জেনেছেন পুলিশ পরিচয় পাওয়ার পর জনতা চলে যায়। তিনি মনে করেন পরিকল্পিতভাবেই পুলিশের গাড়িটি পোড়ানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে নিরীহ কোন লোককে হয়রানি করা না হয় সেজন্য তিনি নির্দেশ দিয়েছেন।