মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর ২০১১, ৯ পৌষ ১৪১৮
ছায়ানটে শুদ্ধসঙ্গীত উৎসবে সুর মূর্ছনায় বিমোহিত দর্শকশ্রোতা
সংস্কৃতি সংবাদ
স্টাফ রিপোর্টার ॥ সঙ্গীতের এক ঐশ্বর্যময় ধারা শুদ্ধ বা শাস্ত্রীয় সঙ্গীত। এ আঙ্গিকের গানে বাণীর পরিবর্তে সুর আর তালই হয়ে ওঠে মুখ্য। সুরের সঙ্গে তালের মেলবন্ধন ছুঁয়ে দেয় শ্রোতার অন্তরাত্মা। ছড়িয়ে দেয় হৃদয়ে নির্মল আনন্দের অনুষঙ্গ। বৃহস্পতিবার পৌষের সন্ধ্যায় রাজধানীর ছায়ানট সংস্কৃতি ভবনে যেন এমন কথারই প্রমাণ মিলল। এ ভবনের রমেশ চন্দ্র দত্ত স্মৃতি মিলনায়তনে শুরু হলো দু'দিনের শুদ্ধ সঙ্গীত উৎসব। এতে রাগ-রাগিণীর সুর আর শাস্ত্রীয় ধারার যন্ত্রসঙ্গীতের সুর মূর্ছনায় বিমোহিত হলো শ্রোতাকুল। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের সুরের মায়াজালে অবগাহনের সুযোগটি হাতছাড়া করেনি সঙ্গীতপ্রেমীরা। আর এ কারণেই শ্রোতায় শ্রোতায় পূর্ণ ছিল মিলনায়তন। তরম্নণ প্রজন্মসহ সব বয়সীদের কাছে শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের গুরুত্ব তুলে ধরতে ১৪১৪ বঙ্গাব্দ থেকে ছায়ানটের পৰ থেকে শুদ্ধ সঙ্গীত উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবার বসল এ উৎসবের পঞ্চম আসর। উৎসবে কণ্ঠ ও যন্ত্রসঙ্গীতের সুর মূর্ছনায় অংশ নিচ্ছেন বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবেঙ্গর প্রায় ২৫জন শিল্পী। সবার জন্য উন্মুক্ত এই সঙ্গীতের আসরে সহযোগিতা করছে মুঠোফোন কোম্পানি রবি।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই পরিবেশিত হয় জাতীয় সঙ্গীত। এরপর প্রদীপ প্রজ্বলন করে আনুষ্ঠানিকভাবে উৎসবের উদ্বোধন করেন সঙ্গীতগুণী রামকানাই দাশ। তাঁকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন ছায়ানটের সহ-সভাপতি ড. সারোয়ার আলী। এ সময় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক খায়রম্নল আনাম শাকিল। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কোষাধ্যৰ প্রদীপ নাগ, মদনগোপাল দাস, অনুপ বড়ুয়া প্রমুখ। বক্তব্য শেষে গানের পালার শুরম্নতেই ছিল অভিনবত্ব। আর সেটা হলো সমবেত রাগসঙ্গীতের পরিবেশনা। শিক্ষা রম্ন অনুপ বড়ুয়ার পরিচালনায় ছায়ানটের শিৰার্থীরা সমবেত কণ্ঠে গাইলেন রাগ ভুপালী ধ্রম্নপদ। ছড়িয়ে পড়ল চারপাশে সুরের আবেশ। মুহূর্তেই বদলে গেল মিলনায়তনের পরিবেশ। শিল্পীদের সুর লহরীতে বুঁদ হলেন শ্রোতারা। বাংলা গানের শিকড়ের সঙ্গে যেন মিলে গেল শ্রোতাকুল। দিনের আট প্রহরে থাকে আট রাগ। এই হিসেবেই ঘটল রাগের পরিবর্তন। ভুপালী ধ্রূপদ পেরিয়ে এলো রাগ পুরিয়া ধনেশ্রীর সুরেলা ধ্বনি। পরিবেশন করলেন ঢাকার শিল্পী রেজোয়ান আলী। উপস্থাপনায় ছিলেন তানজিনা পারভীন তমা ও আতিক।
শুক্রবার সকাল ৯টায় শুরম্ন হবে এ উৎসবের দ্বিতীয় অধিবেশন। চলবে বেলা ১টা পর্যনত্ম। এ পর্বে ছায়ানট শিল্পীদের বৃন্দগানের পাশাপাশি একক সঙ্গীত পরিবেশন করবেন চট্টগ্রামের শিল্পী তাপস দত্ত, ঢাকার শিল্পী সতীন্দ্রনাথ হালদার ও প্রিয়াংকা গোপ। বেহালা ও সরোদের সুর শোনালেন ঢাকার শিল্পী শিউলী ভট্টাচার্য ও মোঃ ইউসুফ খান। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় শুরু হবে তৃতীয় অধিবেশন। রাত পেরিয়ে শনিবার সকাল ৭টা পর্যন্ত চলবে এই পরিবেশনা। এ পর্বে থাকবে ছায়ানট শিল্পীদের বৃন্দগানের পরিবেশনা।
ইতিহাসভিত্তিক আবৃত্তি প্রযোজনা তবু মাথা নোয়াবার নয় ॥ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে পরিবেশিত হলো ইতিহাসভিত্তিক আবৃত্তি প্রযোজনা তবু মাথা নোয়াবার নয়। আবৃত্তি সংগঠন বাকশিল্পাঙ্গন আয়োজিত এ প্রযোজনাটির গ্রন্থনা করেছেন আজহারুল হক আজাদ। নির্দেশনা দিয়েছেন মোঃ নাসির উদ্দিন। জাতির আত্মপ্রতিষ্ঠার সংগ্রামে জীবন উৎসর্গকৃত বীরদের স্মৃতির প্রতি নিবেদন করা হয় এ প্রযোজনাটিকে।
একাত্তরের নির্মমতার স্মৃতিভাষ্য 'অবরম্নদ্ধ অশ্রম্নর দিন' ॥ ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের লাখো পরিবারের মতো বাগেরহাটের ভোলানাথ বসুর পরিবারও যুদ্ধের নির্মমতার শিকার হয়। সেসময় যাদের আপন মনে করেছিল ভোলানাথ বসু, শেষ পর্যন্ত তাদের হাতেই নিহত হন তিনি ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা। এভাবেই একাত্তরের ভয়াবহতায় চূড়ানত্ম ৰতির শিকার হয় একটি পরিবার। এই পরিবারের সদস্যদের উদ্যোগে প্রকাশিত হলো পারিবারিক স্মৃতিভাষ্য 'অবরুদ্ধ অশ্রুর দিন'। এতে শহীদ ভোলানাথ বসুর আত্মীয়-পরিজন, প্রতিবেশী-সুহৃদদের স্মৃতি তুলে ধরা হয়েছে। বইটি যৌথভাবে সম্পাদনা করেছেন ভোলানাথ বসুর মেয়ে ঝর্ণা বসু ও মফিদুল হক।
বৃহস্পতিবার বিকেলে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রাঙ্গণে বইটির মোড়ক উন্মোচিত হয়। লেখক ও প্রকৃতিবিদ দ্বিজেন শর্মার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে অংশ নেন কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক, পঙ্কজ ভট্টাচার্য, মতিউর রহমান, শাহীন রেজা নূর, ঝর্ণা বসু ও মফিদুল হক।
শ্রেয়া গুহঠাকুরতার রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশনা ॥ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা ক্লাবে রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেন ভারতীয় শিল্পী শ্রেয়া গুহঠাকুরতা। ভারতীয় হাইকমিশনের ইন্দিরা গান্ধী কালচারাল সেন্টার আয়োজিত এ সঙ্গীত সন্ধ্যায় শিল্পী রবীন্দ্রনাথের প্রেম, পূজা ও ঋতু পর্যায়ের গান পরিবেশন করেন। এই শিল্পী শ্রেয়া গুহঠাকুরতা শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ধানম-ির শেখ কামাল সরণির বেঙ্গল শিল্পালয়ে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন। এতে তাঁর সঙ্গে যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশন করবেন দূর্বাদল চট্টোপাধ্যায়।