মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১১, ১ পৌষ ১৪১৮
পলিথিনে ভরা খিচুড়ি যারাই খেয়েছে তারাই আক্রান্ত হয়েছে
বাবুর্চির দাবি
নিজস্ব সংবাদদাতা, নীলফামারী, ১৪ ডিসেম্বর ॥ সাড়ে ৭ মণ চাল, ২ বস্তা আলু, ১ মণ এ্যাংকার ডাল ও ৫০ কেজি গরু মাংস মিশ্রণ করে উরসের তবারক(খিচুড়ি) রান্না করা হয়েছিল। এরপর পলিথিনে ভরে তা উরস শেষে উপস্থিত মুসলিস্নদের মাঝে বিতরণ করা হয়। কথাগুলো উরসের খিচুড়ি রান্নার বাবুচি মোঃ সাজ্জাত হোসেনের। তার মতে যারাই পলিথিনে ভরা উরসের খিচুড়ি খেয়েছে তারাই বিষক্রিয়ায় বমি ও পাতলা পায়খানা রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। আর যারা পেস্নটে বা থালায় করে এই খিচুড়ি খেয়েছে বা থালায় করে বাড়িতে নিয়ে গেছে তাদের কিছুই হয়নি। কারণ এই বাবুর্চি নিজেও গামলায় করে খিচুড়ি তার বাড়িতে নিয়ে এসে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে খেয়েছেন তাদের কোন কিছু হয়নি। তদনত্ম টিমের কাছে এভাবে তুলে ধরেন বাবুর্চি সাজ্জাত। এই বিষয়টিকেও জেলা প্রশাসনের ও স্বাস্থ্য বিভাগের তদনত্ম টিম গুরম্নত্ব দিয়েছেন। এতেই বিষয়টি প্রাথমিকভাবে পরিষ্কার হয়ে গেছে নিষিদ্ধ এবং নিম্নমানের পলিথিনে ভরা খিচুড়ি বিষাক্ত হয়ে ওঠে, যা খেয়ে নীলফামারীর সৈয়দপুর, রংপুরের তারাগঞ্জ ও বদরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের উরসে অংশ নেয়া মুসলিস্নরা আক্রানত্ম হয়ে পড়ে। বৃহস্পতিবার তদনত্ম রিপোর্ট দেয়া হবে বলে সংশিস্নষ্ট সূত্রে জানা গেছে।