মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর ২০১১, ২৬ আশ্বিন ১৪১৮
সংস্কারবাদীদের বিজয়ী করার আশ্বাস ডিজিএফআইর
জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআই দৃঢ়তার সঙ্গে বলেছে, আগামী ডিসেম্বরেই সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সংসদ নির্বাচনে যাঁরা বিজয়ী হবেন তাঁরা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কর্মকান্ডকে সমর্থন করবে_এই মর্মে নিশ্চয়তা চায় ডিজিএফআই। গোয়েন্দা সংস্থাটির নেতারা মনে করেন, এ ক্ষেত্রে আগামী সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির মূল ধারা অর্থাৎ খালেদা জিয়ার অনুগতরা যদি নির্বাচন বর্জন করে তাহলে বিএনপির সংস্কারবাদীদের নির্বাচনে অংশ নেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে। ডিজিএফআই বলেছে, সে ৰেত্রে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সংস্কারবাদীদের জয়লাভের নিশ্চয়তা দেয়া হবে। বিশ্বে সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের ফাঁস করা প্রায় আড়াই লাখ মার্কিন তারবার্তার একটিতে এমন মন্তব্য করা হয়েছে। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো ঢাকার মার্কিন রাষ্ট্রদূত জেমস এফ মরিয়ার্টির পাঠানো ঐ তারবার্তায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েছে। তারা তাদের কর্মসূচীকে এগিয়ে নিতে রাজনীতিকদের নানাভাবে প্ররোচিত করছে। গত কয়েকদিনে বেশ কয়েকজন সিনিয়র রাজনীতিক বলেছেন যে, কিভাবে গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের নানা দিকনির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। বিএনপির সংস্কারবাদী হিসেবে পরিচিত সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ ও তাঁর ভাই সাবেক সংসদ সদস্য ডিজিএফআইর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল গোলাম মোহাম্মদ ও ডিজিএফআইর দুর্নীতি দমন বিভাগের প্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এটিএম আমিনের সঙ্গে দেখা করেন। কামাল ইবনে ইউসুফের ভাই মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বলেছেন, তিনি সম্প্রতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিনের এক জ্ঞাতি ভাইর কাছ থেকে একটি ফোন পেয়েছেন। ঐ ফোনে তাঁর কাছে কয়েকজন প্রার্থীর নাম চাওয়া হয়েছে। বিএনপির ঐ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের হুইপ মোহাম্মদ আব্দুস শহীদসহ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উভয় দলের নেতাদের কাছে এরকম ফোন করা এবং তাদের কাছ থেকেও প্রার্থীদের নাম চাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। মার্কিন তারবার্তায় বলা হয়েছে, সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার এই কৌশল প্রয়োগের ফলে ব্যাপক জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছে যে, ডিজিএফআই সংসদ নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে। খালেদা জিয়া ও তাঁর পুত্র তারেক রহমানের আইনজীবী মোহাম্মদ নওশাদ জমির ২৫ জুন মার্কিন দূতাবাসের একজন কর্মকর্তাকে ডিজিএফআইর এক কর্মকর্তার হুমকির কথা অবহিত করেন। নওশাদ বলেছেন, ডিজিএফআইর এক কর্মকর্তা তাঁকে ফোন করে ডিজিএফআই কার্যালয়ে যেতে বলেন এবং আমি যথারীতি সেখানে যাই এবং তাঁরা আমাকে তারেক রহমানের সমর্থনে প্রকাশ্যে কোন মনত্মব্য করা থেকে বিরত থাকার জন্য বলেন। নওশাদ বলেন, ডিজিএফআইর উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল ২৪ জুন তাঁর পিতা স্পীকার জমির উদ্দিন সরকারের সঙ্গে দেখা করে রাষ্ট্রপতির পদ গ্রহণ নিয়ে তাঁকে নানা বিধিনিষেধের কথা জানিয়ে দেয়া হয়। সংবিধান অনুযায়ী পরবর্তী রাষ্ট্রপতি হিসেবে জমির উদ্দিন সরকারের দায়িত্ব নেয়ার কথা থাকলেও তাঁকে ঐ পদে যেতে নিষেধ করা হয় ডিজিএফআইর কর্মকর্তারা।