মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১১, ৬ মাঘ ১৪১৭
প্রয়োজনে ভর্তুকি দিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণের সুপারিশ সংসদীয় কমিটির
সংসদ রিপোর্টার ॥ সরকারের নানা উদ্যোগ সত্ত্বেও দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কমিটির মতে, অন্যান্য দেশে বাজার পরিস্থিতি খারাপ হলেও তুলনামূলক বিচারে না গিয়ে দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসতে সরকারকে সব ধরনের পদক্ষেপ নিতে হবে। সেৰেত্রে প্রয়োজনে ভর্তুকি দিয়ে বাজার নিয়ন্ত্রণের সুপারিশ করেছে কমিটি।
জাতীয় সংসদ ভবনে মঙ্গলবার দুপুরে অনুষ্ঠিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে দ্রব্যমূল্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে এসব সুপারিশ করা হয়। কমিটির সভাপতি এবিএম আবুল কাশেমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী কর্নেল (অব) মুহাম্মদ ফারুক খান, বেগম তহুরা আলী, আবুল কাশেম, বেগম রুমানা মাহমুদ ও শেখ আফিল উদ্দিন এবং বাণিজ্য সচিব গোলাম হোসেনসহ সংশিস্নষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি এবিএম আবুল কাশেম জাতীয় সংসদের মিডিয়া সেন্টারে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য নিয়ে কমিটি উদ্বিগ্ন। বিশ্বের অন্যান্য দেশে বাজার পরিস্থিতি আরও খারাপ। কিন্তু অন্য দেশে কি হচ্ছে না হচ্ছে তা সাধারণ মানুষ বোঝে না। তারা দ্রব্যমূল্য কম দেখতে চায়। তাই দ্রব্যমূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে হবে। কমিটির পক্ষ থেকে প্রয়োজনে ভর্তুকি দিয়ে হলেও বাজারদর জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখতে বলা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে সরকার আনত্মরিক। ইতোমধ্যে এ খাতে ৪৯ কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়া হয়েছে। তবু কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের কারণে বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ছে। তিনি বলেন, শুধু আইন দিয়ে বাজারদর কমানো যাবে না। এর জন্য জনগণের সচেতনতাও দরকার। সরকার সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য কমাতে চেষ্টা করে যাচ্ছে বলেও তিনি উলেস্নখ করেন।
এক প্রশ্নের জবাবে কমিটির সভাপতি আবুল কাশেম বলেন, টিসিবিকে শক্তিশালী করতে এক হাজার কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ দেয়ার জন্য সরকারকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। চট্টগ্রামে ৪০ হাজার বর্গফুটের খাদ্য গুদামের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। খাদ্য অধিদফতরের গুদামও টিসিবির মজুদের কাজে ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
সূত্র মতে, বৈঠকে দীর্ঘ আলোচনার পর টিসিবিকে কিভাবে কার্যকর করা যায়, তা খতিয়ে দেখতে কমিটির সদস্য টিপু মুন্সীকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি সাব কমিটি করা হয়েছে। এ কমিটি টিসিবির বিভিন্ন স্থাপনা পরিদর্শন করে এগুলোর কার্য ৰমতা যাচাই করবে। কমিটির সদস্যরা বলেছেন, বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে টিসিবিকে কার্যকর করার বিকল্প নেই। তাই টিসিবির জন্য বিশেষ বরাদ্দের পাশাপাশি আমদানিনির্ভরতা কমানোর উদ্যোগ নিতে হবে।