মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৪, ৪ বৈশাখ ১৪২১
লক্ষ্যাপার শাস্ত্রীয় সঙ্গীত উৎসব
সুর ছড়িয়ে দিতে দিতে পাঁচ বছরের পথ পাড়ি দিয়ে ছুয়ে পড়েছে ‘লক্ষ্যাপার।’ এরই মধ্যে তারা সম্পন্ন করেছে ৬ষ্ঠ বছরের প্রথম কর্মসূচী ‘বসন্তকালীন অধিবেশন।’ গত ৪ এপ্রিল ১৪ শুক্রবার অনুষ্ঠিত এই শাস্ত্রীয় সঙ্গীত সন্ধ্যায় শিল্পী ছিলেন স্বর্ণময় চক্রবর্তী (কণ্ঠ) এবং সত্যজিৎ চক্রবর্তী (সেতার)। নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল ও কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে প্রথমে মঞ্চে আসেন চট্টগ্রাম থেকে আগত শাস্ত্রীয় সংগীত শিল্পী ও স্বনামধন্য সংগঠক স্বর্ণময় চক্রবর্তী। ঋতুর সঙ্গে মিল রেখে তিনি প্রথমে পরিবেশন করেন রাগ ‘বসন্ত।’ খেয়াল অঙ্গের এই রাগরূপায়ণ মিলনায়তনজুড়ে অতি সূক্ষ্ম এক বসন্তভাব জাগিয়ে তুলেছিল নিমেষে। শিল্পীর পরের পরিবেশনা মালকোষ রাগে তারানা উপস্থিত প্রায় দেড় শ’ শ্রোতার মনে উদ্বেলতা তৈরি করে। সবশেষে স্বর্ণময় গেয়ে শোনান রাগপ্রধান বাংলা গান জাগায়ো না তারে জাগায়ো না। শাস্ত্রীয় সঙ্গীত চর্চায় নতুন উদ্দীপনা জাগাতে লক্ষ্যাপার গৃহীত পদক্ষেপ সমূহের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলো বৃত্তি প্রদান। এই উদ্দেশ্যে তারা প্রবর্তন করেছেন ‘হারাধন-সুখেন শাস্ত্রীয় সঙ্গীত প্রণোদনা বৃত্তি।’ লক্ষ্যাপার আয়োজিত বার্ষিক শাস্ত্রীয় সঙ্গীত সম্মিলনে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় স্কুল ও কলেজ পর্যায়ের দুই বিভাগের সেরা ছয় জনকে দেয়া হয় বছরে ছয় হাজার টাকা করে বৃত্তি। সেদিনের অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে প্রদান করা হয় এই বৃত্তির এই বছরের প্রথম প্রান্তিকের টাকা। শেষ পরিবেশনার আগে লক্ষ্যাপারের প্রথা মোতাবেক ‘জলযোগ।’ আশ্চর্য ব্যাপার হলো গানের ঐতিহ্যের পাশাপাশি লক্ষ্যাপার অতিথি আপ্যায়নের ক্ষেত্রেও ঐতিহ্যানুগ। উপস্থিত সকল দর্শককেই আপ্যায়ন করা হয় তাদের প্রতিটি অনুষ্ঠানে। আপ্যায়নপর্ব শেষে মঞ্চে আসেন দেশের অন্যতম প্রধান সেতার শিল্পী সত্যজিৎ চক্রবর্তী। তিনি প্রথমে রাগ কাফি পরিবেশন করেন। তার সুদক্ষ হাতে ফুটে উঠে কাফি রাগের সুমিষ্ট ভাব। শিল্পীর শেষ পরিবেশনা ছিল রাগ ভৈরবী। দুই শিল্পীর সঙ্গেই তবলায় সঙ্গত দেন উদীয়মান তবলা শিল্পী সবুজ আহমেদ। তার বাদন সবাইকে মুগ্ধ করে। লক্ষ্যাপার এর এই অনুষ্ঠানটি ‘রেডিও লক্ষ্যাপার’ এবং ‘রেডিও নৃ’ তে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়। অনুষ্ঠানটিকে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে এফ.বি ফ্যাশন প্রাইভেট লিমিটেড।

আনন্দকণ্ঠ ডেস্ক