মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ৪ আগষ্ট ২০১১, ২০ শ্রাবণ ১৪১৮
টপ মডেল হাসিন
রওশন জাহান হাসিন রাজশাহীর লক্ষ্মীপুরের মেয়ে। ইতিহাস নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্সে পড়ছেন তিনি। ভিট-চ্যানেল আই সেরা টপ মডেল প্রতিযোগিতার খেতাব বিজয়ী হাসিন ধাঁপের পর ধাঁপ ডিঙিয়ে বিচারক আর দর্শকদের মন রাঙিয়ে মাথায় পরেছেন সেরা টপ মডেলের মুকুট। পেয়েছেন পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার। নিজেকে তৈরি করছেন শোবিজের রঙিন দুনিয়ার জন্য।
প্রায় সহাস্রাধিক প্রতিযোগী অংশ নেয় এ প্রতিযোগীতায়। তাদের মধ্য থেকে তিনি উঠে আসেন গ্রা- ফিনালেতে। অবশ্য এটিকে হাসিন তার জীবনের বড় সাফল্যই মনে করেন। তিনি ভেবেছিলেন গ্রান্ড ফিনালেই শেষ। তবে এরপর যে তিনি শিরোপা জয় করবেন এবং হবেন সেরা মডেল তা ভাবেন নি মোটেও।
সেরা টপ মডেলের খেতাব বিজয়ের অনুভূতির কথা জানাতে তিনি বলেন, কোনোদিন এতো ভালোবাসা, এতো সম্মান পাবো স্বপ্নেও ভাবি নি। আমার কাছে ব্যাপারটা এখনো রূপকথার গল্পের মতো মনে হচ্ছে। দেশের মানুষ, বিচারক, দর্শক আর অনুষ্ঠান সংশিস্নষ্ট সবাইকে এর জন্য জানাই অশেষ কৃতজ্ঞতা।
হাসিন রওশন জাহান এবারই প্রথম এ ধরণের কোন প্রতিযোগিতায অংশ নিয়েছেন। এর আগে কিছু ম্যাগাজিনের স্টিল ফটোগ্রাফির মডেল হয়েছেন।
এ ছাড়া শোবিজে কাজ করার কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল না তার। তিনি বলেন, ভিট-চ্যানেল আই সেরা টপ মডেল প্রতিযোগিতায় এসে আমি শিখেছি একজন মডেল কীভাবে নিজেকে প্রেজেন্ট করতে হয়, কীভাবে কথা বলতে হয় বা কীভাবে হাঁটতে হয়।
পুরস্কার পাওয়া ৫ লাখ টাকা দিয়ে কী করবেন? প্রশ্নটির উত্তরে হাসিন বলেন, এই টাকার কিছু অংশ দিয়ে সুবিধাবঞ্চিত মেয়েদের জন্য কিছু করতে চাই। আমাদের দেশে অনেক মেয়েই রয়েছেন যারা স্বাবলম্বী হতে চায়। কিন্তু মূলধন আর সুযোগের অভাবে তারা স্বাবলম্বী হতে পারছে না। আমি তাদের নিজের পায়ে দাঁডাতে সহযোগিতা করতে চাই। ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে হাসিন বলেন, মনে হচ্ছে সেরা টপ মডেল খেতাব পাওয়ায় নতুন আরেক জীবন আমি শুরম্ন করলাম। এখনো নিজের ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে ভাবার সময় করে উঠতে পারি নি। তবে যেহেতু আমি টপ মডেল খেতাব অর্জন করেছি তাই সবার আগে মডেলিংয়েই জোর দিতে চাই। মডেল হিসেবে একটা পর্যায়ে পৌছে যাবার পর অভিনয় নিয়ে ভাববো।