মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০০৯, ১০ পৌষ ১৪১৬
শাবনূরের মন ছুঁয়েছে মন তুষার আদিত্য
আর মাত্র ক'দিন পরেই, নতুন বছরের শুরুতে অভিনয় ক্যারিয়ারের এক যুগে পা দিবেন ঢাকার চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় তারকা শাবনূর। লাখো-কোটি সিনেমা দর্শকের সুইট হার্ট-ড্রিমগার্ল এ তারকা নায়িকার চলচ্চিত্রে অভিনয় ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। শবনম, শাবানা, শাবনাজ প্রমুখ তারকা চিত্র নায়িকার আবিষ্কারক-গুণী নির্মাতা এহতেশামের 'চাঁদনী রাতে' ছবিতে সাবি্বরের বিপরীতে শাবনূরের অভিষেকটা সাফল্যে মোড়ানো না হলেও প্রথম ছবিতেই তিনি প্রতিভার ঝলকানিতে দর্শক নির্মাতার আশ্বস্ত ও আশান্বিত হয়েছিলেন ঠিকই। তাই তো চাঁদনী রাতে' মুক্তি পরবতর্ীতে তখনকার সুপারহিট নায়ক সালমান শাহর সঙ্গে একের পর এক অনেক ব্যবসা সফল ছবিতে অভিনয় করে শাবনূরও হয়ে ওঠেন প্রবল জনপ্রিয় তারকা। শুধু তাই-ই নয়, শীর্ষ নায়িকা মৌসুমীকে হটিয়ে তারকা রেস-এর শীর্ষপদে আসীন হন তিনি। সেই থেকে শাবনূরের জনপ্রিয়তা আর সাফল্য গাথা অটুট রয়েছে। মাঝখানে শুধু একবার, সালমান শাহর অকাল প্রয়াণের পর তারকা ফিল্মি ক্যারিয়ারের চাকা কিছুটা স্থির হয়ে গিয়েছিল আইনী জটিলতায় পরার কারণে। তখন অনেকেই বলেছিলেন-এই বুঝি তার ফিল্ম ক্যারিয়ার ডুবে গেল। কিন্তু চতুর শাবনূর অত্যন্ত দূরদৃষ্টি নিয়ে নিজের ক্যারিয়ারকে আবার চাঙ্গা করে তোলেন। এবার তার পর্দাজুটি হিসেবে সাফল্য পায় রিয়াজ। এরপর শাকিল খান, মান্না, শাকিব খান, ফেরদৌস প্রমুখ তারকা নায়কের বিপরীতে অভিনয় করে তাদের সঙ্গে শাবনূর সফল জুটি গড়ে তোলেন।
ফিল্মি ক্যারিয়ারের ১৭ বছর কাটিয়ে দেড় যুগে পা দেয়ার প্রাক্কালে ১৮ ডিসেম্বর মুক্তি পেয়েছে শাবনূর অভিনীত "মন ছুঁয়েছে মন" ছবিটি। তরুণ ও মেধাবী চিত্রপরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের এ ছবিতে শাবনূরের নায়ক রিয়াজ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত রোমান্টিক এ ছবিটি ব্যবসায়িক সফলতা পেয়েছে। অনেকদিন পর শাবনূর দর্শক-ভক্তদের ভালবাসায় সিক্ত হয়েছেন। সাফল্যের প্রতিক্রিয়ায় এ প্রতিবেদককে তিনি বলেছেন, "অনেকদিন পর আমার অভিনীত এ ছবিটি মুক্তির আগে আমি বেশ উত্তেজনায় ছিলাম। একটু টেনশনেও ছিলাম। শেষ পর্যন্ত সব উত্তেজনা আর টেনশন দূর হয়ে গেছে ছবিটির সাফল্যে। আই এ্যাম ভেরি হ্যাপি।" অনেকে মনে করছেন_'মন ছুঁয়েছে মন' ছবির সাফল্যে শাবনূরের প্রায় স্থবির হয়ে পড়া ফিল্মি ক্যারিয়ার আবার চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। লোকজনের এমন কথার প্রেেিত শাবনূরের বক্তব্য হলো_ "আমার ক্যারিয়ার কখনোই স্থবির হয়নি। এটা লোকজনের অপপ্রচার। আসলে গেল ২ বছরে ছবিতে অভিনয় করেছি কম। এই সময়টাতে দেশের বাইরে যাওয়া-আসার কারণে অভিনয়ে সময় কম দিতে হয়েছে। তাই ছবিতে অভিনয় কম করেছি। কিন্তু লোকজন অপ্রচার চালাচ্ছেন।"
'মন ছুঁয়েছে মন'-এর তরুণ পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের পরিচালনায় নির্মিত প্রথম ছবি 'দুই নয়নের আলো'য় অভিনয় করেছিলেন শাবনূর। এত বছরের অভিনয় ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো শাবনূর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। অবশ্য বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস), মেরিল-প্রথম আলো, বাবিসাস ট্রাবসহ দেশের প্রায় সব সম্মানজনক পুরস্কার তিনি একাধিকবার পেয়েছেন। জাতীয় চলচ্ছিত্র পুরস্কার পাওয়ার প্রেতি বর্ণনা করতে গিয়ে শাবনূর বলেছেন, "আমার অভিনয় জীবনে এই পুরস্কার প্রাপ্তিতে অপূর্ণতা ছিল। অনেক বিখ্যাত নির্মাতার দারুণ সব ছবিতে অভিনয় করেও আমি দীর্ঘদিন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া থেকে বঞ্চিত ছিলাম। সেই অপূর্ণতা আমাকে পূরণ করে দিয়েছে মানিক। তাঁর দুই নয়নের আলো-ছবিতে আমার অভিনীত চরিত্রটি এক কথায় অসাধারণ ছিল। মানিকের ছবির মাধ্যমে আমার স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় আমি তাঁর প্রতি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ।'
পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক জানিয়েছেন, আমি যখন 'দুই নয়নের আলো' ছবিটি নির্মাণের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম, তখন শাবনূরকে মাথায় রেখে ছবিটির নায়িকা চরিত্রটি তৈরি করেছিলাম। যখন শাবনূর ওই চরিত্রে অভিনয় করলেন, এমন চরিত্রটি যেন জীবন্ত হয়ে ওঠল। চরিত্রানুগ সাবলীল অভিনয়ের সুফল হিসেবেই এই ছবির জন্য শাবনূর শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। মন ছুঁয়েছে মন' ছবিতেও শাবনূর অভিনীত চরিত্রটি ওকে মাথায় রেখে তৈরি করা। সব মিলিয়ে আমার আর শাবনুরের কম্বিনেশনটা ভাল বলেই আমরা ধারাবাহিক সাফল্য পাচ্ছি।
'মন ছুঁয়েছে মন' ছবিটির ব্যাপক সাফল্যের পর আগামীকাল ২৫ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে শাবনূর অভিনীত 'পিরিতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ' ছবিটি। এটির পরিচালক পি.এ. কাজল। রোমান্টিক এ্যাকশন ধাঁচের এই ছবিতে শাবনূরের নায়ক চরিত্রে অভিনয় করেছেন নতুন নায়ক আমান। তবে ছবিতে অধিকাংশ সময়ই তাকে অভিনয় করতে হয়েছে বিধবা নারীর চরিত্রে। আশির দশকে মুম্বাইর ছবি 'খুন ভারি মাঙ্গ' ছবিতে রেখা যে চরিত্রটিতে অভিনয় করেছিলেন, পিরিতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ ছবিতে শাবনূর তেমন একটি চরিত্রেই অভিনয় করেছেন। জানা গেছে, ছবির প্রধান তারকা হলেও 'পিরিতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ' ছবিতে অধিকাংশ সময়ই শাবনূরের পর্দা উপস্থিতি নায়কবিহীন। অভিনয় ক্যারিয়ারে এবারই প্রথম তিনি এমন একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ছবিতে শিশু তারকা দিঘী অভিনয় করেছে শাবনূরের মেয়ের চরিত্রে। আর তাই শাবনূর ছবিটি নিয়ে মহা টেনশনে আছেন। টেনশনের কারণ ব্যাখ্যা দিয়ে শাবনূর বলেছেন, এবারই প্রথম আমি এক কন্যার জননী বিধবা নারীর চরিত্রে অভিনয় করেছি। আমার অগণিত দর্শক ভক্ত পিরিতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ ছবিতে এমন একটি চরিত্রে আমাকে কিভাবে গ্রহণ করেন সেটিই দেখার বিষয়। এ কারণেই আমার ভীষণ টেনশন হচ্ছে। অভিনয় ক্যারিয়ারে কোন ছবি রিলিজের আগে আমি এতটা টেনশনে ছিলাম না। এক কন্যার জননী, বিধবা নারীর মতো ওভার ম্যাচিওরড চরিত্রে অভিনয় করাটাই টেনশনের প্রধান কারণ।' অবশ্য পরিচালক পি.এ. কাজলের দাবি_ছবিতে নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলে শাবনূর অনবদ্য অভিনয় করেছেন।
'পিরিতের আগুন জ্বলে দ্বিগুণ' ছবিটি নিয়ে শাবনূর যতটা টেনশনে আছেন, এরচেয়ে বেশি উদ্বিগ্ন শাবনূর ঘরানার নির্মাতারা। তাদের আশঙ্কা_ছবিটি যদি ব্যবসা সফল হয়, তাহলে অমন ধাঁচের চরিত্রেই শুধু তাকে চিন্তা করবেন নির্মাতারা। আর যদি ছবিটি অসফল হয়, এর দায়ভার পড়বে শাবনূরের ওপর। কেননা দর্শকরা এমন ভারি চরিত্রে তাকে কখনোই দেখেননি। বলা যায়, ছবিটি মুক্তির আগে শাবনূরের উভয় সঙ্কট অবস্থা। অর্থাৎ ছবিটি ব্যর্থ হলে এর জন্য দায়ী হবেন তিনি। আবার সফল হলে তার তরুণী নায়িকার ইমেজে বিরূপ প্রভাব ফেলবে। তবে ঘটনা যাই হোক না কেন, হাল সময়ে শাবনূরকে নিয়ে বড় একটি গুঞ্জন দেশীয় চলচ্চিত্রাঙ্গনে ব্যাপকভাবে ঘুরপাক খাচ্ছে। গুঞ্জন উঠেছে_তিনি নাকি বিয়ে করেছেন। তার স্বামী অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী। গুঞ্জন চলছে_অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ওই যুবককে বিয়ের কারণেই নাকি শাবনূর ঘন ঘন অস্ট্রেলিয়ায় যাচ্ছেন। তবে আনন্দকণ্ঠের এই প্রতিবেদকের কাছে এই গুঞ্জনের কথা অস্বীকার করেছেন তিনি। শাবনূর বলেছেন, "এটা আমার নিন্দুকদের অপপ্রচার। যখনই আমার অভিনীত কোন ছবি মুক্তি পায়। তার আগে কোন কোন অতি উৎসাহী নিন্দুক আমাকে নিয়ে অপপ্রচার চালায়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। আর যদি বিয়েই করি, তবে লুকিয়ে করব কেন? বিয়েটা তো চুরি নয় যে, লুকিয়ে করতে হবে। আমি বিয়ে করলে সবাইকে জানান দিয়েই করব। আর অস্ট্রেলিয়ায় আমার ছোট বোন, ছোট ভাই থাকে। ওদের ওখানে অবকাশ যাপনের জন্য যাওয়াটা নিশ্চয়ই দোষের কিছু না।"
সবশেষে নিজের ফিল্মি ক্যারিয়ার পরিচালনার পরিকল্পনা হিসেবে হাল সময়ে নতুন নায়কদের সঙ্গে কাজ করার কথা বলেছেন_ অপু বিশ্বাসের ক্রমশ উত্থানে কিছুটা ম্রিয়মাণ শাবনূর। রিয়াজ, ফেরদৌস, শাকিব খান, আমিন খানদের পাশাপাশি ইমন, নীরব, আমানসহ আরও কয়েকজন নায়কের সঙ্গে চলতি সময়ে তিনি অভিনয় করছেন। চলচ্চিত্র বোদ্ধারা মনে করছেন_ এতে শাবনূরের তরুণী নায়িকার ইমেজই সুপ্রতিষ্ঠিত থাকবে। তিনি নিজেও তাই চান। শাবনূর বলেছেন, 'এখনই আমি চরিত্রাভিনয়ে যেতে চাই না। ওভার ম্যাচিওরড চরিত্রে বেশি অভিনয় করলে আমার চরিত্রাভিনেত্রীর ইমেজই প্রতিষ্ঠিত হয়ে যাবে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে অমন ইমেজে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার কথা আমি ভাবছিনা।' নিজের এই ভাবনা আর পরিকল্পনা থেকেই হয়ত মাঝখানে মুটিয়ে যাওয়া সাবেক এই শীর্ষ নায়িকা আবার নিজেকে আগের মতো স্লিম ফিগার-এর নায়িকা হিসেবে তৈরি করেছেন। ইদানীং তাকে দেখলে দেড় যুগ আগের শাবনূরের মতোই তরুণী মনে হয়। হয়ত পুরনো স্লিম ফিগার দিয়েই শাবনূর তার হারানো শীর্ষাসনে পুনর্অধিষ্ঠিত হবেন।