মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ২৩ জানুয়ারী ২০১৩, ১০ মাঘ ১৪১৯
পাকিস্তানে ড্রোন হামলার অবাধ স্বাধীনতা পাবে সিআইএ
যুক্তরাষ্ট্রে নতুন সন্ত্রাস দমন ম্যানুয়াল ॥ ইসলামাবাদে সিনেটরদের নিন্দা
মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসন সিআইএকে পাকিস্তানে এক বছর বা তারও বেশি সময় ধরে আল কায়েদা ও তালেবানের আস্তানাগুলোয় হামলা চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেবে। ওবামা প্রশাসন সিআইএর বেছে বেছে হত্যাকা- চালানোর ওপর বাধানিষেধ আরোপ করে এক রুল বুক চূড়ান্ত করছে। কিন্তু এসব বাধানিষেধ পাকিস্তানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না এবং দেশটির উপজাতীয় এলাকায় সরাসরি ড্রোন হামলা চালানোর অবাধ স্বাধীনতা সিআইএর থাকবে। ইসলামাবাদে পাকিস্তান পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ সিনেটের সদস্যরা ঐ মার্কিন পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট ডন ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউন অনলাইনের।
মার্কিন সরকারের ঐ নতুন সন্ত্রাস দমন ম্যানুয়েলে বেছে বেছে হত্যাকা- চালানোর বিষয়ে কঠোর নিয়মকানুন নির্দেশ এবং তথাকথিত ‘কিল লিস্টে’ নতুন নাম যোগ করার প্রক্রিয়া বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। কিন্তু এতে পাকিস্তানে সিআইএর ড্রোন অভিযানকে বড় ধরনের দায়মুক্তি দেয়া হচ্ছে। রবিবার ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকায় এ কথা বলা হয়। এতে বলা হয়, সিআইএ স্বাধীনতা দু’ বছরের কম কিন্তু এক বছরের বেশি সময় ধরে ভোগ করবে। কারণ এর ড্রোন হামলা চালানোর কৌশল তালেবানপন্থী জঙ্গীদের দুর্বল করে দিতে খুবই কার্যকরিতার পরিচয় দিয়েছে।
সিআইএ এর ড্রোন হামলা সম্পর্কে পাকিস্তানের মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে আগাম নোটিস দেবে বলে প্রত্যাশা করা হয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সংস্থাটি এর হামলার লক্ষ্যস্থলের নাম ও হামলা সিদ্ধান্ত সম্পর্কে প্রায় পূর্ণ স্বাধীনতা প্রয়োগ করে। কিন্তু সিআইএ পাকিস্তানের কেন্দ্র শাসিত উপজাতীয় এলাকায় (এফএটিএ)-এর লক্ষ্য অর্জন করার পর রুল বুক পাকিস্তানের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। ওয়াশিংটন পোস্টে এ কথা বলা হয়। এটিকে প্লে বুকও বলা হয়েছে। ছোটখাটো বিষয়গুলো নিষ্পত্তির পর দলিলটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য কয়েক সপ্তাহের মধ্যে প্রেসিডেন্ট ওবামার কাছে পাঠানো হবে।
রুল বুকটি প্রশাসনের সন্ত্রাস দমন নীতি কোর্ড বন্ধ করার এক বছরের প্রচেষ্টার ফল। এতে প্রেসিডেন্ট ওবামার দ্বিতীয় মেয়াদকালে প্রাণঘাতী অভিযান চালানোর দিকনির্দেশনা দিতেও চাওয়া হয়। ওয়াশিংটন পোস্ট বলেছে, ড্রোন হামলা চালানোর কৌশলকে প্রতিষ্ঠানিক রূপ দান ২০১১-এর ১১ সেপ্টেম্বরের আগে অনেকের কাছেই ঘৃণার বিষয় বলে মনে হতো। রুল বুকে কিল লিস্টে নতুন নাম যোগ করার পদ্ধতি, মার্কিন নাগরিকদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর আইনগত নীতি এবং যুদ্ধ এলাকার বাইরে সিআইএ বা মার্কিন সামরিক বাহিনীর ড্রোন অভিযান চালানোর অনুমোদন নেয়ার প্রক্রিয়া উল্লেখ করা হয়েছে।
ওয়াশিংটন পোস্টে বলা হয়, প্রাণঘাতী হামলার মাপকাঠি কি হবে তা নিয়ে পররাষ্ট্র দফতর, সিআইএ ও পেন্টাগনের মধ্যকার মতানৈক্য গত বছরের শেষ দিকে নতুন কৌশলকে প্রায় ব্যর্থতায় পর্যবসিত করছিল। এতে বলা হয়, পাকিস্তানে তৎপরতা চালানোর ক্ষেত্রে সিআইএকে সাময়িক দায়মুক্তি দানকে এক আপোস রফা বলে বর্ণনা করা হয়। এ আপোস রফার ফলে কর্মকর্তারা প্লে বুকের অন্যান্য দিক নিয়ে এগিয়ে যেতে সক্ষম হন। যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে এর সৈন্যদের প্রত্যাহার করার প্রস্তুতি নেয়ায় পাকিস্তানে আল কায়েদা ও তালেবানকে দুর্বল করে দেয়ার পথ বন্ধ হতে শুরু করেছে। এ উদ্বেগ বোধ থেকে সিআইএকে পাকিস্তানে ড্রোন হামলা চালিয়ে যেতে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।