মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১১, ২ পৌষ ১৪১৮
প্রাণনাশের ঝুঁকি এড়াতে দুবাইয়ে চিকিৎসা নেন জারদারি
প্রেসিডেন্ট পাকিস্তানে নিরাপদ নন ॥ জিলানি অভ্যুত্থানের পক্ষে সমর্থন আদায়ে আইএসআইপ্রধানের মধ্যপ্রাচ্য সফর!
পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে সামরিক অভু্যত্থান পরিকল্পনার অভিযোগ উঠেছে। প্রাণ নাশের ঝুঁকি এড়াতেই প্রেসিডেন্ট দুবাইর হাসপাতালে ভর্তি হন বলে মন্তব্য করলেন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা জিলানি।
আইএসআই প্রধান অভু্যত্থানের পৰে সমর্থন আদায়ে গোপনে কয়েকটি আরব দেশ সফর করেন। পাকিস্তানের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল সুজা পাশা এই সামরিক অভু্যত্থানের পৰে সমর্থন আদায়ের জন্য মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি আরব দেশ সফর করেন। পাকিস্তানী আমেরিকান ব্যবসায়ী মনসুর ইজাজ এই দাবি করেছেন। খবর ডন অনলাইন ও এএফপির। এদিকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা জিলানি বলেছেন, প্রাণনাশের ঝুঁকি এড়াতেই জারদারি চিকিৎসার জন্য দুবাইর হাসপাতালে যান। তবে ৯ দিন চিকিৎসা শেষে বুধবার তিনি হাসপাতাল ত্যাগ করে দুবাইয়ে তার বাসভবনে গেছেন। স্বাস্থ্যগত নয়, অন্য কারণেই জারদারি দুবাই গেছেন। বিরোধীদের এমন সন্দেহ দূর করতে সরকারের পৰ থেকে কোন উদ্যোগই নেয়া হয়নি। প্রেসিডেন্টের স্বাস্থ্য ও তার দেশে ফেরার ব্যাপারেও থেকে যাওয়া ধোঁয়াশা পরিষ্কার করা হয়নি পাকিস্তান সরকারের পৰ থেকে।
ইজাজের ওই মন্তব্য পাকিস্তানের রাজনীতিতে নতুন করে বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। একটি নিরপেৰ ওয়েবসাইটের বস্নগে ইজাজের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, মার্কিন গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য আছে আইএস্ই প্রধান পাশা কয়েকটি আরব দেশ সফর করেছেন। সেখানে তিনি জারদারিকে ৰমতা থেকে অপসারণ করা নিয়ে কথা বলেন। গত মে মাসে এ্যাবোটাবাদে ওসামা বিন লাদেন হত্যার পর সাবেক মার্কিন সেনাপ্রধান মাইক মুলেন পাকিসত্মানে সামরিক অভু্যত্থানের বিরোধিতা করেন।
যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত হুসেইন হাক্কানি ও মনসুর ইজাজ বস্নাকবেরি মোবাইলে মেসেঞ্জারে বার্তা বিনিময় করেন। হাক্কানিকে এক বার্তায় ইজাজ বলেন, আমি এই মাত্র মার্কিন সিনিয়র কর্মকর্তার মাধ্যমে জানতে পারলাম আইএসআই প্রধান লে. জে. পাশা জারদারিকে ৰমতাচু্যত করতে কয়েকজন আরব নেতার সমর্থন চেয়েছিলেন কয়েকদিন আগে। তবে একটি নিরপেৰ বস্নগারে ইজাজের সাৰাতকার প্রকাশিত হওয়ার পর বিষয়টি সামনে চলে আসে। ইজাজ বলেন, একজন পদস্থ মার্কিন কর্মকর্তা তাকে এ তথ্য দেন। জে. পাশা গত ৬ মে গোপনে আরব দেশগুলো সফরে যান। ইজাজের নতুন এই অভিযোগ সম্পর্কে আইএসআই অথবা আইএসপিআর কোন মনত্মব্য করেনি। এদিকে দুবাই হাসপাতালের চিকিৎসকরা জারদারিকে বাড়িতে বিশ্রাম নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। জারদারি ভ্রমণ করতে পারবেন কিনা সে ব্যাপারে মেডিক্যাল বুলেটিনে কিছু উলেস্নখ করা হয়নি। প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ফারহাত উলস্নাহ বাবর বলেন, জারদারি কবে দেশে ফিরে যাবেন সেটা এখনও তিনি নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। এটি নির্ভর করছে চিকিৎসকের পরামর্শের ওপর। আগামী ২৭ ডিসেম্বর জারদারি দেশে ফিরবেন এবং জনসভায় ভাষণ দেবেন বলে পিপিপি নেতা খুরশিদ শাহের মনত্মব্যের


পরিপ্রেক্ষিতে বাবর এ কথা বলেন।
পাকিস্তানের বিরোধী দল এবং সমাজের একটি অংশ মনে করেন জারদারির দুবাই গমন স্বাস্থ্যগত কারণে নয়। প্রধানমন্ত্রী জিলানি সিনেটে বলেন, পাকিস্তানের হাসপাতালে প্রেসিডেন্ট আততায়ীর হাতে আক্রান্ত হতে পারেন এমন আশঙ্কায় সরকার ও জারদারির পরিবার তাকে দুবাইয়ে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে সম্মত হয়।