মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ১৫ জুন ২০১১, ১ আষাঢ় ১৪১৮
স্বদেশী হত্যা ॥ লন্ডনে দুই বাংলাদেশীর কারাদণ্ড
লন্ডনে বসবাসকারী এক বাংলাদেশীকে হত্যার দায়ে অন্য দুই বাংলাদেশীকে ২৫ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। খবর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের।
২০১০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি ব্রাইটনের কাছে সিফোর্ড এলাকায় লন্ডন প্রবাসী আহমেদ রিমন হায়দারকে (২৭) হত্যার পর তার বাসায় ডাকাতি করে মোহাম্মদ আনহার (৩৩) ও শাহাদাত মোলস্না সোহাগ (২১)। নিহত রিমন ছিলেন আনহারের দূর সম্পর্কের ভাই। গ্রেফতারের পর আনহার এ ঘটনায় নিজের সম্পৃক্ততা আদালতে স্বীকার করেন গত বছরের ২৯ এপ্রিল। এ বছরের ৯ জুন একই ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয় সোহাগ। লন্ডনের লুইস ক্রাউন কোর্ট বৃহস্পতিবার আনহারকে এবং পরদিন সোহাগকে একই সাজার আদেশ দেয়।
নিহত রিমন জন্মসূত্রে যুক্তরাজ্যের নাগরিক। সিফোর্ডের সাটন পার্ক রোডে পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন তিনি। বাড়ির নিচতলায়ই তাদের 'মুন অব ইন্ডিয়া' রেসত্মরাঁ রয়েছে। ঘটনার সময় পরিবারের অন্য সদস্যরা বাইরে থাকায় রেসত্মরাঁটি চালাচ্ছিলেন রিমন।
শুনানির সময় আনহার ও সোহাগ কিভাবে চুরি করতে গিয়ে রিমনকে বাড়িতে উপস্থিত পেয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে তার বর্ণনা দেয়। গোয়েন্দা কর্মকর্তা এ্যাডাম হিউবার্ট সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে যে অবস্থা পেয়েছিল তা ছিল সত্যিই ভয়াবহ। হত্যাকারীদের শনাক্ত করে গ্রেফতার করতে পুরো বাংলাদেশী কমিউনিটির সহায়তা পাওয়ার কথাও স্বীকার করেন তিনি। বিচারক স্কট গ্যাল জানান, শুনানিতে আনহার অনুশোচনা প্রকাশ করলেও সোহাগের মনোভাবের কোন পরিবর্তন দেখা যায়নি। বরং এ তরুণ বলেছে, পূর্বপরিকল্পিত চুরির সময় তাদের দুজনের হাতেই অস্ত্র ছিল এবং কোন দ্বিধা ছাড়াই তারা তা ব্যবহার করেছিল। আদালতের রায়ে সনত্মোষ প্রকাশ করেছে রিমনের পরিবার।

সালেহ হত্যাচেষ্টায় জড়িত সন্দেহে কয়েকজন গ্রেফতার
ইয়েমেনের প্রেসিডেন্ট আলি আব্দুলস্নাহ সালেহকে হত্যা চেষ্টার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সোমবার বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। সালেহর নেতৃত্বাধীন দলের একটি সংবাদপত্র এ কথা জানিয়েছে। খবর ওয়েবসাইটের।
৬৯ বছর বয়সী সালেহ ১১ দিন আগে তার প্রাসাদে রকেট হামলায় আহত হন। আহত হলেও অল্পের জন্য বেঁচে যান।