মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১৬ মে ২০১১, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪১৮
তালেবানকে সহায়তা ॥ যুক্তরাষ্ট্রে ৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ
গ্রেফতারকৃত তিন মার্কিনীর দু॥'জন মসজিদের ইমাম
পাকিস্তানী তালেবানকে আর্থিকভাবে সহায়তা করার দায়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের একটি আদালতে ছয় ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। অভিযুক্তদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে আর বাকি তিনজন পাকিস্তানে পলাতক রয়েছেন। গ্রেফতারকৃত তিনজনই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক এবং তাদের মধ্যে দু'জন মসজিদের ইমাম। একজন মার্কিন এ্যাটর্নি শনিবার এ খবর জানিয়েছেন। এই গ্রেফতার ও অভিযুক্ত করার খবর এলো এমন এক সময় যখন পাকিস্তানের অভ্যনত্মরে আল কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন মার্কিন বিশেষ কমান্ডো অভিযানে নিহত হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের সম্পর্কে উত্তেজনা বিরাজ করছে। খবর বিবিসি ও নিউইয়র্ক টাইমস অনলাইনের।
যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে তাঁরা হলেন হাফিজ মোহাম্মদ শের আলী খান (৭৬) এবং তাঁর দুই ছেলে ইরফান খান (৩৭) ইজহার খান (২৪)। এরা তিনজনই পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক এবং তাঁরা গ্রেফতার হয়েছেন। এছাড়া অপর যে তিনজনকে পাকিস্তানে থাকার কারণে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি তাঁরা হলেন শের আলী খানের মেয়ে আমিনা খান এবং নাতি আলম জেব। এছাড়া আরও আছেন আলী রেহমান নামে পৃথক এক ব্যক্তি। গ্রেফতারকৃত শের আলী খান মায়ামির সবচেয়ে পুরনো ফ্ল্যাজলার মসজিদের ইমাম এবং তাঁর ছেলে ইজহার খান মায়ামির নিকটবর্তী মার্গারেটের একটি মসজিদের ইমাম। গ্রেফতারকৃত তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে চারদফা অভিযোগ আনা হয়েছে। দোষী প্রমাণিত হলে তাদের ১৫ বছর পর্যনত্ম কারাদ- হতে পারে। তাঁদের বিরম্নদ্ধে আনীত অভিযোগে বলা হয়, ২০০৮ থেকে ২০১০ পর্যন্ত তাঁরা আর্থিক সহায়তা বাবদ পাকিস্তানী তালেবানের কাছে ৪৫ হাজার ডলার পাঠিয়েছেন। হত্যা ও অপহরণসহ জননিরাপত্তার প্রতি হুমকিমূলক কর্মকা-ে এই অর্থ ব্যবহার হয়ে থাকতে পারে বলে মার্কিন কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা। ফ্লোরিডার সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্টের এ্যাটর্নি উইলফ্রেডো এ ফেয়ার এক বিবৃতিতে বলেন, একজন ইমাম হওয়া সত্ত্ব্বেও শের আলী খানকে কোনভাবেই শানত্মির পৰের লোক বলা যায় না। তাঁর বিরম্নদ্ধে আনা অভিযোগ দেখিয়ে দিয়েছে যে অন্যদের সঙ্গে মিলে তিনি সন্ত্রাসী কর্মকা-ে পরোৰভাবে মদদ যুগিয়েছেন। শের আলী ও ইরফান খানকে মায়ামি ফেডারেল আদালতে এবং ইজহার খানকে একই দিনে লস এ্যাঞ্জেলেস ফেডারেল আদালতে হাজির করার কথা রয়েছে। সাউথ ফ্লোরিডার মুসলিম কমিউনিটি এ্যাসোসিয়েশন শের আলী খানকে মসজিদের দায়িত্ব থেকে অপসারণ করার কথা ঘোষণা করেছে। এদিকে শের আলী খানের আরেক ছেলে ইকরাম খান শনিবার বলেছেন, সন্ত্রাসবাদে সহযোগিতার অপরাধে তাঁর পিতাকে গ্রেফতার করা একটি হাস্যকর ঘটনা। তিনি বলেন, তাঁর পিতা পাকিসত্মানের একটি মাদ্রাসায় কেবল দাতব্য উদ্দেশ্যেই অর্থ পাঠিয়েছেন। জনহিতকর কাজে সেটি ব্যয় হওয়ার কথা। এদিকে মসজিদের এক সদস্য বলেছেন, শনিবার ভোরে ফজরের নামাজের সময় তাঁকে যেভাবে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে সেটি সম্মানজনক ছিল না, তিনি একজন ধার্মিক ব্যক্তি। শারীরিকভাবে তিনি দুর্বল ৰীণকায়। তিনি এখানকার সবচেয়ে শানত্মিপ্রিয় ব্যক্তি।