মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০১১, ১১ মাঘ ১৪১৭
ইরানের বিরুদ্ধে আরও কঠোর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা শীঘ্রই
পরমাণু কর্মসূচী নিয়ে আলোচনা ব্যর্থ
ইরানের পরমাণু কর্মসূচী নিয়ে সৃষ্ট আশঙ্কা দূর করতে দেশটিকে বুঝিয়ে রাজি করানোর ৰেত্রে ব্যর্থ হওয়ার পর বিশ্বশক্তিগুলো পরবর্তী পদৰেপ নিয়ে বিচার-বিবেচনা করছে। দেশটির বিরম্নদ্ধে আরও কঠোর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হওয়ার সম্ভাবনার কথাও বলেছেন কোন কোন পর্যবেৰক। খবর এএফপির।
তেহরানের সঙ্গে নতুন আলোচনার কোন কর্মসূচী নেই বলে জানিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ক্যাথরিন এ্যাশটন। তিনি ইসত্মাম্বুলে ইরানের পরমাণু কর্মসূচী বিষয়ক দু'দিনের আলোচনা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন।
তিনি বলেন, আমরা এগিয়ে যাওয়ার বাস্তব উপায় নিয়ে আলোচনা শুরু করার আশা করেছিলাম। আমরা সেটা করতে সব চেষ্টাই করেছি। সেটা করা সম্ভব হয়নি বলে আমাকে হতাশার সঙ্গে উলেস্নখ করতে হচ্ছে।
'পি ফাইভ পস্নাস ওয়ান' গ্রুপের সঙ্গে ইরানের আলোচনা দেশটি সম্ভবত গোপনে আণবিক বোমা তৈরি করছে বলে সৃষ্ট আশঙ্কা দূর করতে কোন কাজে আসেনি। ব্রিটেন, চীন, ফ্রান্স, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি এ গ্রম্নপের অনত্মভর্ুক্ত।
এ্যাশটন সাংবাদিকদের বলেন, ইরানের পরমাণু কর্মসূচীর লৰ্য যে শানত্মিপূর্ণ, ইরানের পৰে সেটা প্রমাণ করা অপরিহার্য হয়ে রয়েছে।
তিনি বলেন, তারা পারমাণবিক জ্বালানি বিনিময় প্রসত্মাব সংশোধনের ৰেত্রে এবং জাতিসংঘের আণবিক বিষয়ক সংস্থার মাধ্যমে পর্যবেৰণ চালিয়ে ঐ কর্মসূচীতে স্বচ্ছতা আনয়নের উপায় বের করার ৰেত্রে অগ্রগতি অর্জনের আশা করেছিলেন। ছয় শক্তির পৰ থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, কিন্তু এটি স্পষ্ট হয়ে যায় যে, ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ ও নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কিত ইরানের দেয়া পূর্বশর্তগুলো যদি আমরা মেনে না নেই, তবে ইরানী পৰ যে আলোচনায় অগ্রগতি ঘটাতে প্রস্তুত নয়, সেটি স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল।
লন্ডনে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগ বলেন, আলোচনা চালিয়ে যেতে ইরানের অস্বীকৃতি "খুবই হতাশাব্যঞ্জক।" ফরাসী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিশেল অলিয়ত-মারি বলেন, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারসহ ইরানের দেয়া শর্তগুলোই আলোচনার ব্যর্থতার কারণ। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এটি সব কিছুর পথ রম্নদ্ধ করে দেয়। এ্যাশটন বলেন, যদিও এখন নতুন করে ভাবনার সময়, তথাপি ভবিষ্যত আলোচনার পথ খোলা রয়েছে।