মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৪, ১৭ অগ্রহায়ন ১৪২১
এতিমের টাকা আত্মসাত ॥ খালেদার তৃতীয় লিভ টু আপীলও খারিজ
স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবশেষে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার করা লিভ টু আপীল (আপীল অনুমতি) আবেদন খারিজই করেছেন সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ। রবিবার প্রধান বিচারপতি মোঃ মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে আপীল বিভাগের পাঁচ বিচারপতি বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
এর আগে গত মঙ্গলবার এ আবেদনের আদেশের জন্য নির্ধারিত দিন ছিল। সূত্র মতে ওই দিন পাঁচ সদস্যের এই বেঞ্চের প্রধান বিচারপতি ছাড়া অন্য বিচারপতিদের মধ্যে আদেশ নিয়ে জোরালো মতানৈক্য দেখা দেয়। এ কারণে ওই দিন প্রধান বিচারপতি এ মামলার যাবতীয় নথিপত্র তলব করে আদেশের জন্য রবিবার দিন ঠিক করেন। সুপ্রীমকোর্টের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জনকণ্ঠকে জানিয়েছেন, রবিবারও আদেশের বিষয়ে বিচারপতিদের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয়। এ কারণে নির্ধারিত সময়ের প্রায় ৪৮ মিনিট পরে এজলাসে ওঠেন বিচারপতিরা।
এর আগে গত ২৫ নবেম্বর এ আদালতই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা নিয়ে খালেদা জিয়ার করা দুটি লিভ টু আপীল আবেদন খারিজ করে দেন। আর রবিবার জিয়ার চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায়ও খালেদার লিভ টু আপীল আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির অভিযোগে করা দুটি মামলায় নিম্ন আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণসহ বিচার চলতে আইনগত আর কোন বাধা রইল না।
আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এ ছাড়া দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।
আদেশের পর খালেদার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, জিয়া পরিবারকে ‘রাজনৈতিকভাবে হেয় করতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে’ মামলা দুটি করা হয়েছে। কোন ভিত্তি না থাকা সত্ত্বেও সরকার মামলাগুলো দায়ের করে। আইন অনুসারে যেভাবে করার কথা ছিল সেভাবে এই দুই মামলায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়নি। আমরা মনে করেছিলাম, নিম্ন আদালত স্বাধীনভাবে বিচার করতে না পারলেও উচ্চ আদালত পারবে। তিনি বলেন, আমরা হাইকোর্টে এসেছিলাম। হাইকোর্ট আমাদের আবেদন খারিজ করে দেয়। এরপর আমরা আপীল বিভাগে যাই। আপীল বিভাগ দুই মামলার আবেদন আলদাভাবে শুনানি করে। তাই আমরা আশাবাদী হয়েছিলাম। কিন্তু আদালত আমাদের সেই আবেদনও খারিজ করে দেন। আমরা সর্বোচ্চ আদালতেও বিচার পেলাম না।