মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
মঙ্গলবার, ২৭ ডিসেম্বর ২০১১, ১৩ পৌষ ১৪১৮
শরীয়তপুরে চিরবিদায়
আবুল বাশার, শরীয়তপুর থেকে ॥ লাখো মানুষের কান্না আর ফুলেল শুভেচ্ছায় আব্দুর রাজ্জাককে চিরবিদায় দিলেন শরীয়তপুরবাসী। সোমবার বাদ জোহর জেলার ডামুড্যা উপজেলা ঈদগাহ মাঠে মরহুম আব্দুর রাজ্জাকের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজা পরিচালনা করেন ডামুড্যা উপজেলা জামে মসজিদের পেশইমাম মাওলানা আব্দুল হাই। এ সময় জানাজায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী আমীর হোসেন আমু, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ডেপুটি স্পীকার কনেল (অবঃ) শওকত আলী, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল হক হানিফ, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক এমপি, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি সাহা, জেলা পরিষদ প্রশাসক সাবেক এমপি মাস্টার মজিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুর রব মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, সহ-সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি একেএম এনামুল হক শামীম ও বাহাদুর বেপারী, বিএনপি নেতা সাবেক এমপি হেমায়েত উলস্নাহ আওরঙ্গ, বিএনপি নেতা সাবেক এমপি সরদার নাসির উদ্দীন কালু, বিএনপি নেতা জামাল শরীফ হিরম্ন, সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রীয় নেতা কানাই লাল তালুকদারসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন পৌরসভার মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণসহ দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী। এ ছাড়াও জেলা প্রশাসক মোঃ সানোয়ার হোসেন, পুলিশ সুপার একেএম শহীদুর রহমানসহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। জানাজার আগে উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে বক্তব্যে আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ এমপি বলেন, আব্দুর রাজ্জাকের স্বপ্ন ছিল ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত একটি অসামপ্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার। তিনি একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে ছিলেন সোচ্চার। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাঁর এ স্বপ্ন বাসত্মবায়ন হলে তাঁর আত্মা শানত্মি পাবে।
সকাল ১১টা থেকে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে দলে দলে শোকার্ত মানুষ মরহুম আব্দুর রাজ্জাকের জানাজায় অংশগ্রহণের জন্য স্থানীয় উপজেলা পরিষদ মাঠে ভিড় জমাতে থাকে। দুপুর ১টার মধ্যে বিশাল মাঠ লৰাধিক মানুষের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। এ সময় তারা উপজেলা পরিষদের শহীদ মিনারের সামনে নির্মিত মঞ্চে রাখা প্রয়াত রাজ্জাকের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। অনেকেই আব্দুর রাজ্জাকের জ্যেষ্ঠপুত্র নাহিন রাজ্জাককে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকে। এর আগে সকাল ১১টায় ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে আব্দুর রাজ্জাকের মরদেহ প্রথমে ডামুড্যা পূর্ব মাদারীপুর কলেজ মাঠে পেঁৗছায়। সেখান থেকে প্রথমে তাঁর পৈত্রিক নিবাস দক্ষিণ ডামুড্যা গ্রামের বাড়িতে আত্মীয়স্বজনের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য প্রায় আধা ঘণ্টা রাখা হয়।
নিজস্ব সংবাদদাতা, নোয়াখালী থেকে জানান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য বরেণ্য রাজনীতিবিদ আব্দুর রাজ্জাক এমপি স্মরণে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মিলাদ মাহফিল ও শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে শোকসভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সুবর্ণচর উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যৰ খায়রম্নল আনম সেলিম। বক্তব্য রাখেন অধ্যৰ বেলাল উদ্দিন কিরন, আবু তাহের, অধ্যাপক ওয়ালী উল্যা, আব্দুল ওয়াদুদ পিন্টু, ইকবাল করিম তারেক ও ইমন ভট্ট।