মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১১, ১ পৌষ ১৪১৮
প্রথম পর্যায়ে ১২৭ বিদেশীকে সম্মাননা
সাড়ে চার শ' জনের তালিকা তৈরি
তপন বিশ্বাস ॥ মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অসাধারণ অবদান রাখার জন্য পর্যায়ক্রমে সংশিস্নষ্ট সকল বিদেশী নাগরিককে সম্মাননা দেবে সরকার। এই লৰ্যে প্রথম পর্যায়ে ১শ' ২৭ জনকে সম্মাননা দেয়া হচ্ছে। আগামী স্বাধীনতা দিবসের আগে নির্ধারিত একটি দিনে এটি প্রদান করা হবে। এই তালিকায় বিভিন্ন দেশের বরেণ্য রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতিক, দার্শনিক, শিল্পী, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী ও বিশিষ্ট নাগরিক রয়েছেন। এসব বিদেশী নাগরিকের মধ্যে যারা জীবিত তাদের সবাইকেই বাংলাদেশে এনে সন্মাননা দেয়া হবে। বাকিদের মরণোত্তর সম্মাননা জানানো হবে। প্রকৃতপৰে কী কী অবদান রাখার জন্য তাঁদের সম্মাননা দেয়া হবে তার বিস্তারিত তথ্য সরকারী সূত্রে জনকণ্ঠের হাতে এসে পেঁৗছেছে।
সূত্র জানায়, ইতোপূর্বে গত ২৫ জুলাই মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীকে 'বাংলাদেশ স্বাধীনতা সন্মাননা' দেয়া হয়। এটি বিদেশীদের দেয়া বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদক। শুধু তাঁকেই সর্বোচ্চ এ পদক দেয়া হয়। আর কোন বিদেশী নাগরিককে এ পদক দেয়া হবে না।
বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর বাংলাদেশের স্ব্বাধীনতাযুদ্ধে বিদেশী নাগরিকদের সন্মাননা দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে তাদের তালিকা তৈরি করতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেয়া হয়। মন্ত্রণালয় থেকে সন্মাননা দিতে প্রথম পর্যায়ে ২৬ জনের একটি তালিকা তৈরি করে গত মার্চে মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়। এ লৰ্যে একটি কমিটিও গঠন করে দেয়া হয়। এ কমিটি সম্মাননা দেয়ার জন্য ৪৫০ জনের মতো বিদেশী নাগরিকের একটি তালিকা তৈরি করেছে। এ তালিকা থেকেই প্রথম পর্যায়ে ১২৭ জনকে সম্মাননা দেয়ার সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়েছে। সম্মাননার জন্য মনোনীতদের অবদানের কিছু বিবরণ তুলে ধরা হলো। ইন্দিরা গান্ধী ছাড়া ভারতীয় অন্যদের মধ্যে রয়েছেন প্রয়াত জ্যোতিবসু, শচীন্দ্র লাল সিংহ, সিদ্ধার্থ শংকর রায়, ডিপি ধর, আই কে গুজরাল, সমর সেন, ফিল্ড মার্শাল এসএএম মানেকশ, লে. জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা, শহীদ ল্যান্স নায়েক আলবার্ট এক্কা, বাংলাদেশের মুক্তিযদ্ধে শহীদ ভারতীয় বীর সেনানী, পণ্ডিত রবিশংকর, মাদার তেরেসা, গোবিন্দ হালদার, ব্যারিস্টার সুব্রত রায় চৌধুরী, বিচারপতি সায়াদাত আবুল মাসুদ, পিএ সাংমা এবং আকাশবাণী ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ সহায়ক সমিতি।
ভারতের পাশাপাশি রাশিয়া মহান স্বাধীনতাযুদ্ধে বিরল ভূমিকা রাখে। রাশিয়া থেকে প্রাথমিক পর্বে মনোনীতদের তালিকায় রয়েছেন সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ও কমিউনিস্ট পার্টির প্রধান নিকোলাই পদগোর্নি, সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রধানমন্ত্রী ও কমিউনিস্ট পার্টির নেতা আলেঙ্ েনিকোলাইভিচ কোসিগিন, এয়াকোব আলেঙ্জেন্ড্রভিচ মালিক, রিয়ার এডমিরাল সার্গে প্যাভলোভিচ জুয়েনকো এবং তাঁর দল।
মার্কিনীদের তালিকায় রয়েছেন, সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডি, সিনেটর ফ্রান্ক চার্চ, সিনেটর উইলিয়াম স্যাঙ্বী, আর্চার কেন্ট বস্নাড, গায়িকা জন বেজ, এ্যালন গিনসবার্গ, লেয়ার লেভিন, ফাদার টিম/ ফাদার ইভান্স। ব্রিটিশ নাগরিকদের মধ্যে রয়েছেন, এডওয়ার্ড হিথ, ব্রম্নস ডগলাস ম্যান, হ্যারল্ড উইলসন, জুলিয়ান ফ্রান্সিস, পিটার শোর, সায়মন ড্রিং, গায়ক জর্জ হ্যারিসন, টম উইলিয়ামস এবং বিবিসি। এছাড়া নেপালী প্রয়াত বিশ্বেশ্বর প্রসাদ কৈরাল (বিপি কৈরালা), ভুটানী এইচ ই লিয়নপো উগুয়েন টেসারিং, আয়ারল্যান্ডের শ্যান ম্যাকব্রাইড, ফরাসী অাঁদ্রে ম্যালরঙ্, অস্ট্রেলিয়ান প্রয়াত উইলিয়াম এএস ওডারল্যান্ড বিপি, জাপানীদের মধ্যে প্রয়াত তাকাশি হায়াকাওয়া, তাকামাসা সুজুকি ও নাওয়াকি উসুই, নেদারল্যান্ডসের কিনটেন ওয়াট বাগে, সুইডিশ লারস লিজনবোর্গ এমপি, বার্লিনের সুনীল দাশগুপ্ত ও বারবারা দাশগুপ্ত, সুইজারল্যান্ডের জেনেভার প্রিন্স সদরম্নদ্দীন আগা খান এবং ইউএনএইচসিআর।