মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১১, ১ পৌষ ১৪১৮
বঙ্গোপসাগরে ১২০ যাত্রী নিয়ে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারডুবি
নিখোঁজ ৬৫ ॥ টেকনাফে রোহিঙ্গা বস্তিতে কান্নার রোল
নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সজার, ১৪ ডিসেম্বর ॥ টেকনাফে অবৈধভাবে ট্রলার যোগে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে ১২০ যাত্রী নিয়ে একটি ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। টেকনাফ উপকূলজুড়ে এবং রোহিঙ্গা শিবির বস্তিতে বুকফাঁটা কান্নার রোল পড়েছে। বুধবার ভোর রাত ৪টায় সেন্টমার্টিনের অদূরে মৌলভীরকুম নামক স্থানে ঘটেছে এ দুর্ঘটনা।
জানা যায়, বুধবার ভোর রাত ৪টার দিকে সেন্টমর্টিন থেকে ছয় কিলোমিটার দূরে বঙ্গোপসাগর মৌলভীরকুম (স্থানীয় জেলেদের ভাষায়) দিয়ে ১২০ যাত্রী নিয়ে মালয়েশিয়ার দিকে রওনা করে ট্রলারটি। অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে সাগরে ট্রলার ডুবে গেলে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় কয়েকজন। ভোর রাতে হঠাৎ সমুদ্রবক্ষে অসংখ্য লোকজনের চিৎকার শুনে সাগরে মাছধরারত একাধিক ফিশিংবোট এগিয়ে আসে। সাগর থেকে ভাসমান লোকজনকে উদ্ধার কার্যক্রম চালায় জেলেরা। টেকনাফ বিজিবির ৪২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল জাহিদ হোসাইন ও টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুব আলম জনকণ্ঠকে জানান, এ ধরনের সংবাদ পেয়েছেন তাঁরা। তবে এ ঘটনার সত্যতার ব্যাপারে তাঁরা নিশ্চিত নন। অপরদিকে এই ঘটনার ব্যাপারে দায়িত্বশীল কোন মহল মুখ না খুললেও স্থানীয় জেলেরা জানান, সকালে এই খবর পেয়ে শাহপরীরদ্বীপ উপকূল থেকে কয়েকটি ফিশিং ট্রলার ডুবে যাওয়া বঙ্গোপসাগর থেকে অন্তত ৫৫ যাত্রীকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে উপকূলে। তাদের নিকট থেকে পাওয়া তথ্য মতে, এখনও নিখোঁজ রয়েছে অর্ধ শতাধিক যাত্রী।
তাঁরা আরও জানান, টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের খুরেরমুখ জেলেঘাট থেকে মঙ্গলবার মাঝ রাতে ১২০ যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি মালয়েশিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়। সেন্টমার্টিনের অদূরে পেঁৗছলে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের কারণে ট্রলারটি সাগরে ডুবে যায়। তবে স্থানীয় প্রশাসন এ বিষয়ে এখনও সঠিক কোন তথ্য জানে না বলে জানিয়েছেন। ট্রলার ডুবির ঘটনায় বেঁচে যাওয়া ও উপকূলে ফিরে এসে শাহপরীরদ্বীপের কোনারপাড়ার এলাকার নুর আহমদের পুত্র মুহাম্মদ আমিন, আব্দুস শুক্কুরের পুত্র কালা মিয়া, আবদুল খালেকের পুত্র মোঃ কালু, মুহাম্মদের পুত্র তৈয়ব, জালিয়াপাড়ার আবদুর রহিম, চট্টগ্রাম বোয়ালখালী এলাকার শহীদ উলস্নাহ জনকণ্ঠকে জানান, একটি পুরোনো কাঠের নড়বড়ে ট্রলারে করে ধারণ ক্ষমতার চাইতে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করায় মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। তারা আদম বেপারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।