মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১১, ১৩ ফাল্গুন ১৪১৭
লিবিয়ায় বাংলাদেশী হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি
সংসদে দীপু মনি
সংসদ রিপোর্টার ॥ লিবিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিকদের দ্রুত নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নিতে এবং দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকার সর্বৰণিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে লিবিয়ায় বাংলাদেশী কোন নাগরিকের হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি। লিবিয়ার পাশাপাশি সোমালিয়ায় আটককৃত জাহাজ এবং ২৬ বাংলাদেশী ক্রুকে শান্তিপূর্ণ সমাধানের মাধ্যমে অতি দ্রুতই দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে।
বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে জাসদের কার্যকরী সভাপতি মইনউদ্দীন খান বাদল লিবিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিক এবং সোমালিয়ায় জিম্মি হওয়া নাগরিকের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে সরকারের পূর্ণাঙ্গ বিবৃতি দাবি করলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, কত দ্রুত লিবিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশী নাগরিকদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়া যায় সরকার সে ব্যাপারে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে।
লিবিয়ার মিসরাতায় ৩৭ বাংলাদেশী নাগরিক নিহত হওয়ার ব্যাপারে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে মইনউদ্দীন খান বাদলের প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, এ বিষয়ে ত্রিপোলি দূতাবাস এবং লিবিয়ায় বিদেশী নাগরিকের নিরাপত্তার ব্যাপারে কর্মরত বিভিন্ন আনত্মর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করার পর সেখানে বাংলাদেশী কোন নাগরিকের হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি। সেখানে বসবাসরত বাংলাদেশী নাগরিকদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে সরকার সর্বৰণিক যোগাযোগ রাখছে।
ডা. দীপু মনি জানান, সরকার এ বিষয়টি সর্বাত্মক গুরম্নত্ব দিচ্ছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় যৌথভাবে লিবিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশীদের নিরাপদ কোন স্থানে সরিয়ে নিতে কাজ করে যাচ্ছে। ত্রিপোলিতে অবস্থানরত বাংলাদেশী দূতাবাস ও বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের সঙ্গে সর্বৰণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।
তিনি জানান, লিবিয়ার সীমানত্ম সংলগ্ন মিসর ও তিউনিসিয়ায় অস্থায়ী ক্যাম্প করে সেখানে থাকা বিদেশীদের সরিয়ে নিতে বিভিন্ন আনত্মর্জাতিক সংস্থা কাজ করছে। আমরা ইতোমধ্যে ওইসব সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই দুই দেশের অস্থায়ী ক্যাম্পে বাংলাদেশী প্রবাসীদেরও যেন নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয় সেজন্য আলোচনা করেছি। এছাড়া লিবিয়ায় থাকা চীন, কোরিয়া ও মালয়েশিয়ার বিভিন্ন কোম্পানিতে যেসব বাংলাদেশী নাগরিক কর্মরত রয়েছেন, ওইসব দেশের দূতাবাসকেও অনুরোধ জানানো হয়েছে যাতে তাঁদের নাগরিকদের সঙ্গে আমাদের নাগরিকদেরও নিরাপদে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়।
সোমালিয়ায় দসু্যদের হাতে জিম্মি বাংলাদেশী জাহাজ ও আটককৃত ২৬ ক্রুর সর্বশেষ অবস্থা জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর সোমালিয়ায় জাহাজ ও বাংলাদেশী নাগরিকদের মুক্ত করার ব্যাপারে সরকার ও জাহাজের মালিক সর্বৰণিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা আশাবাদী খুব দ্রম্নতই শানত্মিপূর্ণ সমাধান হবে, জিম্মি হওয়া জাহাজ ও এক মহিলাসহ ২৬ বাংলাদেশী ক্রুকে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে।
দৰিণ কোরিয়া তাঁদের জিম্মি হওয়া জাহাজ ও নাগরিকদের বলপ্রয়োগ করে উদ্ধার করেছে। বাংলাদেশ করল না কেন_ ডেপুটি স্পীকার ও মইনউদ্দীন খান বাদলের এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, সোমালিয়ায় যখন জাহাজটি জিম্মি করা হয় তখন আমরা বলপ্রয়োগ করার চেষ্টা করলে আমাদের নাগরিকদের হতাহতের সম্ভাবনা থাকত। আমরা তা চাইনি। আমরা চেষ্টা করছি শানত্মিপূর্ণ সমাধানের মাধ্যমে নিরাপদে আমাদের জিম্মি হওয়া ক্রু ও জাহাজটিকে ফিরিয়ে আনতে। আশা করি, দ্রম্নতই আমরা এ ব্যাপারে সৰম হব।
এর আগে পয়েন্ট অব অর্ডারে জাসদের মইনউদ্দীন খান বাদল বলেন, লিবিয়ার মিসরাতায় ৩৭ জন বাংলাদেশী নিহত হয়েছে এমন খবর সংবাদমাধ্যমে এসেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে তারা লিবিয়ার ওপর নজর রেখেছে। যে দেশ বঙ্গবন্ধুর খুনীদের আশ্রয় দেয় সে দেশের ওপর নজর রেখে কি লাভ প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, পত্রিকায় মন্ত্রীরা কথা বললেও এখন পর্যনত্ম সংসদে কোন কথা বলেননি। লিবিয়ায় ৩৭ জন বাংলাদেশী নিহত হয়েছে কিনা এবং সেখানে বাংলাদেশীরা কি অবস্থায় আছে সে ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পরিপূর্ণ তথ্য জানালে সংসদ এবং দেশবাসী উপকৃত হবে।
তিনি ৰোভ প্রকাশ করে বলেন, এর আগে আমি সোমালী জলদসু্যদের হাতে ছিনতাইকৃত জাহাজের ব্যাপারে বিবৃতি দাবি করেছিলাম। কিন্তু তা পাইনি। পত্রিকায় দেখেছি মন্ত্রী বলেছেন এ বিষয়ে কথা বললে সোমালিয়ান জলদসু্যরা মুক্তিপণের টাকা বাড়িয়ে দিতে পারে। পৃথিবীর এমন কোন দেশ নেই যেখানে জনগণকে ভাগ্যের ওপর ছেড়ে দেয়া হয়।
মইনউদ্দীন খান বাদল আরও বলেন, দেশে অনেক টাকা খরচ করে র্যাব ও এ ধরনের অন্যান্য বাহিনী গঠন করা হয়। দৰিণ কোরিয়া তাদের ছিনতাইকৃত জাহাজ ও নাবিকদের পাল্টা আক্রমণ করে উদ্ধার করেছে। সঙ্গে সঙ্গে জলদসু্যদের ধরে নিয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, আমাদের পৰে সেটি সম্ভব না হলেও জাহাজ ও নাবিকদের উদ্ধারের বিষয়টি ভাগ্যের ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। নাবিক ও লিবিয়ায় বাংলাদেশীদের দেশে পরিবারের অবস্থা কি তা শুধু পরিবারটিই বলতে পারবে। এ ব্যাপারে সংসদে আপনার মাধ্যমে পরিপূর্ণ বিবৃতি দাবি করছি। তিনি বলেন, আলস্নাহর ওয়াসত্মে লিবিয়ায় বাংলাদেশীদের ব্যাপারে পরিপূর্ণ বিবৃতি দিন। সংসদকে জানান সেখানে কী হচ্ছে?