মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১১, ২৯ মাঘ ১৪১৭
বিদেশী ক্রিকেটার ও দর্শকদের চিকিৎসার প্রস্তুতি সম্পন্ন
জনকণ্ঠ রিপোর্ট ॥ বিদেশী ক্রিকেট খেলোয়াড় ও দর্শকদের চিকিৎসাসেবা দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকারী হাসপাতালগুলো। স্বাস্থ্য অধিদফতরের নানা দিকনির্দেশনামূলক চিঠির প্রেৰিতে দেশের প্রতিটি সরকারী হাসপাতাল কর্তৃপৰ এ বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করে। খেলার ভেনু্যস্থল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীসহ পর্যটন অঞ্চলসমূহের হাসপাতালগুলোকে বেশি মাত্রায় সজাগ থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রতিটি সরকারী হাসপাতালে এ উদ্দেশ্যে গঠন করা হয়েছে বিশেষ চিকিৎসক দল। সব ধরনের চিকিৎসা সুবিধা বিশেষ করে প্রতিটি হাসপাতালে বিদেশীদের জন্য কমপৰে ৫টি কেবিন সব সময় খালি রাখার কথা স্বাস্থ্য অধিদফতরের চিঠিতে গুরম্নত্ব পেয়েছে।
আগামী ১৭ ফেব্রম্নয়ারি উদ্বোধন হবে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের। তিনটি আয়োজক দেশের একটি হলো বাংলাদেশ। দেশের সর্বত্র এখন বিশ্বকাপের আমেজ। মোট ৮টি খেলা অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশে। বিদেশী খেলোয়াড়দের পাশাপাশি শত শত বিদেশী ক্রিকেট দর্শকের আগমন ঘটবে। আবাসন- খাবার, নিরাপত্তা সুবিধা ও সাজসজ্জার পাশাপাশি স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবার বিষয়টিও গুরম্নত্ব সহকারে নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতকল্পে ইতোমধ্যে সরকারী হাসপাতালগুলোকে চিঠি দেয়া হয়েছে। আর সেই অনুযায়ী সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সংশিস্নষ্ট হাসপাতালগুলো। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. খন্দকার মোঃ সিফায়েত উলস্নাহ বুধবার জনকণ্ঠকে জানান, বিদেশী ক্রিকেট খেলোয়াড় ও দর্শকদের তাৎৰণিকভাবে চিকিৎসাসেবা দেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে অনেক আগেই দেশের প্রতিটি সরকারী হাসপাতালকে চিঠি দেয়া হয়েছে। প্রতিটি হাসপাতালে বিশেষ চিকিৎসক টিম সর্বৰণিক প্রস্তুত রাখা হয়েছে। আর প্রতিটি হাসপাতালে কমপৰে ৫টি কেবিন খালি রাখার কথা বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা পাওয়ার প্রেৰিতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকারী হাসপাতালগুলো। দেশের সব হাসপাতালের জন্য চিঠি দেয়া হলেও খেলার ভেনু্যস্থল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীসহ পর্যটন অঞ্চলসমূহের হাসপাতালগুলোকে বেশি মাত্রায় সজাগ থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অনেক ক্রিকেট দর্শক আসবেন যারা খেলা দেখার পাশাপাশি বাংলাদেশের পর্যটন এলাকা ঘুরে ঘুরে দেখে যেতে পারেন। বিদেশীদের জন্য অত্যাধুনিক চিকিৎসাসেবা ইতোমধ্যে নিশ্চিত করা হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক। নানা প্রস্তুতির কথা জানালেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। তিনি বুধবার জনকণ্ঠকে জানান, বিশ্বকাপ ক্রিকেটকে সামনে রেখে বিদেশী খেলোয়াড়দের চিকিৎসাসেবা দেয়ার সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। সব বিভাগের চিকিৎসকদের সমন্বয়ে একটি শক্তিশালী মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। এই মেডিক্যাল টিমটি ২৪ ঘণ্টা সেবা দেয়ার জন্য প্রস্তুত থাকবে। সব সময়ের জন্য দু'টি কেবিন খালি রাখা হবে বিদেশীদের চিকিৎসাসেবায় আনত্মর্জাতিক মান অৰুণ্ন রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন স্যার সলিমুলস্নাহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মোঃ আবুল হাশেম খান। তিনি বুধবার জনকণ্ঠকে জানান, বিদেশী ক্রিকেট খেলোয়াড় ও দর্শকদের তাৎৰণিক চিকিৎসাসেবা দিতে প্রস্তুত আছি আমরা। কেবিন, ওষুধপত্র, এ্যাম্বুলেন্স থেকে শুরম্ন করে সব ধরনের চিকিৎসাসেবার বিষয়ে সজাগ রয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপৰ। বড় ধরনের প্রস্তুতির কথা জানালেন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহীদুল হক মলিস্নক। তিনি বৃহস্পতিবার জনকণ্ঠকে জানান, আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিটি বিভাগে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। গঠন করা হয়েছে পৃথক একটি শক্তিশালী মেডিক্যাল বোর্ড। এ বোর্ডের সদস্য হিসেবে আছেন সার্জারি, মেডিসিন, নিউরো সার্জারি, অর্থোপেডিকস, কার্ডিওলজি ও ফিজিক্যাল বিভাগের প্রধানরা। তাদের সহযোগী হিসেবে কাজ করবেন আরএস জেনারেল, আরএসআরপি এবং আরএস গাইনি। সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকবে আরএস ক্যাজুয়ালিটি বিভাগ। আপাতত ৪৭ ও ৪৮ নং কেবিন বরাদ্দ করা রাখা হয়েছে। অবস্থা দেখে আরও কেবিন খালি রাখা হবে। নার্স প্রধানকে সব সময় ১০ জন নার্স প্রস্তুত রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আরএস ক্যাজুয়ালিটির কাছে পর্যাপ্ত ওষুধ হসত্মানত্মর করা হয়েছে। সকল কর্মচারীর উপস্থিতি ও ড্রেস পরিধান নিশ্চিত করার জন্য ওয়ার্ড মাস্টারকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি পর্যাপ্ত বস্নাড সংগ্রহ করে রাখা হয়েছে। সার্বিক প্রস্তুতি বেশ সনত্মোষজনক বলে মনে করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহীদুল হক মলিস্নক।