মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১১, ২৯ মাঘ ১৪১৭
ভারত পাকিস্তান টিম ও অতিথিদের প্রতি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা
পরামর্শ গোয়েন্দা সংস্থার
শংকর কুমার দে ॥ বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলা উপলৰে ভারত ও পাকিসত্মানের ক্রিকেট টিমের খেলোয়াড়রা স্বাগতিক বাংলাদেশে অবস্থান ও খেলার সময়ে নিরাপত্তার ব্যাপারে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা। ভারত ও পাকিসত্মানের টিমের খেলোয়াড়রা যাতে কোন ধরনের জঙ্গী বা সন্ত্রাসী হামলার হুমকির সম্মুখীন না হয় সে জন্য এই ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। জঙ্গী ও সন্ত্রাসী গ্রম্নপ দ্বারা নিজেদের দেশ দু'টি মাঝে মধ্যেই আক্রানত্ম হচ্ছে। দুনিয়াব্যাপী দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য এই দু'টি টিমকে ঘিরে যাতে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার উদ্ভব ঘটতে না পারে সেজন্যই আগাম সতর্ক করে দিয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা।
বিশ্বকাপ ক্রিকেট উপলৰে স্বাগতিক বাংলাদেশ নিরাপত্তার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। স্বাগতিক বাংলাদেশে আগামী ১৫ ফেব্রম্নয়ারি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ ও পাকিসত্মানের মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ১৯ ফেব্রম্নয়ারি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে উদ্বোধনী ম্যাচ। এই দু'টি খেলার সময়ে খেলোয়াড়দের মাঠে আনা-নেয়ার সময় এবং খেলার সময় স্টেডিয়ামজুড়ে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য পরামর্শ দিয়েছে গোয়েন্দা সংস্থা। ভারত ও পাকিসত্মানের ক্রিকেট টিমের খেলোয়াড়রা যে হোটেলে অবস্থান করবেন সেই হোটেলেও নিরাপত্তার সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়েছে।
ভারত ও পাকিসত্মানের ক্রিকেট খেলার সময় সেই দেশ দু'টির অতিথিদের অবস্থান, খেলা দেখা ও ঘোরাফেরা করার সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বাড়তি নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা নজরদারি করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। র্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সব ক'টি ইউনিটের নিরাপত্তার ব্যাপারে প্রস্তুতি নেয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। হযরত শাহ্জালাল বিমানবন্দর, খেলার মাঠ ও হোটেলগুলোতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা নজরদারি চলছে। বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলা শেষ না হওয়া পর্যনত্ম নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।
পুলিশের এক উর্ধতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিশ্বকাপ ক্রিকেট খেলা উপলৰে রাজধানী ঢাকা ও চট্টগ্রামের স্টেডিয়ামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প, বিদেশী খেলোয়াড় ও অতিথিরা যেসব হোটেলে অবস্থান করবেন সেখানে কন্ট্রোলরম্নম স্থাপন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর যারা নিরাপত্তা ও হোটেলসহ ক্রিকেট খেলার সঙ্গে জড়িত আছেন তাঁদের কারোর সঙ্গে জঙ্গী বা সন্ত্রাসী গ্রম্নপের সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা পরীৰা করে দেখার জন্য সবার জীবনবৃত্তানত্ম যাচাই করে দেখা হয়েছে।
গোয়েন্দা সংস্থার এক কর্মকর্তা বলেছেন, স্বাগতিক বাংলাদেশে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আসরে ভারত ও পাকিসত্মানের খেলোয়াড় ও অতিথিদের ব্যাপারে বাড়তি সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। এ দেশ দু'টি নিজেদের দেশেই জঙ্গী ও সন্ত্রাসী গ্রম্নপ দ্বারা মাঝেমধ্যেই আক্রানত্ম হচ্ছে। স্বাগতিক বাংলাদেশে যাতে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটতে পারে সেই জন্য আগাম সতর্কতা অবলম্বন ও নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।