মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৩, ৭ আশ্বিন ১৪২০
কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস পালন
নিজস্ব সংবাদদাতা, কক্সবাজার, ২১ সেপ্টেম্বর ॥ বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্নতায় নেমেছিল ৫ হাজার মানুষ। শনিবার সৈকত পরিচ্ছন্নতা বিষয়ে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সমুদ্র সৈকতে সচেতনতামূলক র‌্যালি আয়োজনের পাশাপাশি দিনভর সৈকত পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম এবং পর্যটকদের মধ্যে এ বিষয়ে সচেতনতা তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল অপারেটর বাংলালিংকের পৃষ্ঠপোষকতায় টানা সপ্তমবারের মতো আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস পালন করা হয় কক্সবাজারের এ লং বিচে।
জানা গেছে, আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস বিশ্বের ৯০টিরও বেশি দেশে উদযাপন করা হয়ে থাকে এবং বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে বর্ণাঢ্যভাবে দিনটি পালিত হয়। আন্তর্জাতিক সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবস বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন সচেতনতামূলক এবং মাত্র এক দিনে আয়োজিত দীর্ঘতম একটি কার্যক্রম। এ কার্যক্রম সারাবিশে^র মানুষের মধ্যে ব্যাপক ইতিবাচক প্রভাব রাখতে সমর্থ হয়। সমুদ্র সৈকত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নের এ কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনার এইচই গ্রেগরি এ্যান্টলে উইলকক ও বাংলালিংকের পিআর এ্যান্ড কমিউনিকেশন সিনিয়র এ্যাসিস্টেন্ট ম্যানেজার খন্দকার আশিক ইকবাল। বাংলালিংকের রিজিওনাল কমার্শিয়াল হেড মোঃ ফরহাদ হোসেন আয়োজন সম্পর্কে বলেন, এ আয়োজন বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে সামাজিক দায়বদ্ধ প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলালিংকের ধারাবাহিক প্রচেষ্টারই একটি অংশ। তিনি বলেন, টানা সপ্তমবারের মতো এ আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা করতে পেরে আমরা গর্বিত। বাংলালিংক পিআর অ্যান্ড কমিউনিকেশন এ্যাসিস্টেন্ট ম্যানেজার আহসান রাজীব বলেন, বাংলাদেশে দিবসটি কক্সবাজারে উদযাপিত হয়ে আসছে এবং দিন দিন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে দিনটি বৃহত্তম এক আয়োজনে পরিণত হয়েছে। কেউক্রাডং বাংলাদেশ ও পরিবেশ সচেতনতামূলক সংগঠন এ সমুদ্র সৈকত পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের গর্বিত আয়োজক। তিনি আরও বলেন, শুধু আন্তর্জাতিক সৈকত পরিচ্ছন্নতা দিবসে নয়, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে প্রতিদিন দুইবার ২৬ জন মহিলা ৩ কিলোমিটার সমুদ্র সৈকত পরিষ্কার করে সৌন্দর্যম-িত করে আসছেন।

সাতক্ষীরায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবিতে মানববন্ধন

নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ
স্টাফ রিপোর্টার, সাতক্ষীরা ॥ সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার ধানদিয়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী নিয়োগ বাণিজ্যের প্রতিবাদে ওই স্কুলের ছাত্রছাত্রী, অভিভাবক ও এলাকার শত শত মানুষ মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে। শনিবার সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত চলে ওই মানববন্ধন কর্মসূচী। তারা ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ফজলুল রহমান ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মনিরুজ্জামানকে নিয়োগ বাণিজ্যের হোতা হিসেবে চিহ্নিত করে অবিলম্বে তাদের অপসারণের দাবি জানিয়েছে।
স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য কামরুল ইসলাম, গোলাম হোসেন ও ছাত্র অভিভাবক প্রতিনিধি আজিজুর রহমান জানান, চলতি বছর ১৯ এপ্রিল ধানদিয়া ইউনিয়ন ইনস্টিটিউট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অফিস সহকারী নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ওই নিয়োগ পরীক্ষায় ১৪ প্রার্থীর মধ্যে ১৩ জন প্রার্থী নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেয়। নিয়োগ পরীক্ষার আগে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির ৪ প্রার্থীর কাছ থেকে চাকরি দেয়ার নাম করে ২১ লাখ টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে।