মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০১১, ১৬ অগ্রহায়ন ১৪১৮
সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশসহ নিহত ১২
জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় দিনমজুর,পুলিশ, ছাত্র ও শিশুসহ ১২জন নিহত হয়। তার মধ্যে টাঙ্গাইলে ৪ দিনমজুর, নওগাঁয় দুই ছাত্র, ঈশ্বরদীতে পুলিশ, সীতাকুন্ডে তীর্থযাত্রী, গোপালগঞ্জে শিশু ও যুবতী, যশোরে যুবক ও নারায়ণগঞ্জে স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে।

টাঙ্গাইলে ৪ দিনমজুর
বঙ্গবন্ধু সেতু-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিহাতী উপজেলার ধলাটেঙ্গুর নামক স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪ দিনমজুর নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় মারাত্মক আহত হয়েছে ৬ জন। মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাপস চন্দ্র পন্ডিত জানান, ঢাকা থেকে একটি ট্রাক উত্তরবঙ্গ যাচ্ছিল। এ সময় বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকা থেকে একটি টেম্পোযাত্রী নিয়ে এলেঙ্গা আসছিল। মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে মহাসড়কের কালিহাতী উপজেলার ধলাটেঙ্গুরে উক্ত ট্রাক ও টেম্পোর মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই টেম্পোর ৩ যাত্রী নিহত হয়। পরে হাসপাতালে আনার পথে আরও ১জন মারা যায়। এ ঘটনায় মারাত্মক আহত হয় ৬ জন। আহতদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানায়, নিহতদের বাড়ি টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায়। নিহতরা হলো- সলা গ্রামের আব্দুল বারেক (৫৩), ওমেদ আলী (৫৫), আমসের আলী (৬০) এবং বলিসাইয়া গ্রামের আব্দুল খালেক (৪০)। এরা সবাই দিনমুজর। তারা কাজ করার জন্য এলেঙ্গায় যাচ্ছিল।

নওগাঁয় দুই ছাত্র
মঙ্গলবার সকালে নওগাঁ-মহাদেবপুর সড়কের মোলস্নাকুড়ি ও শিবরামপুর মোড়ের মাঝামাঝি স্থানে যাত্রীবাহী দ্রুতগামী এক বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মোটরসাইকেল আরোহী ২ ছাত্র নিহত হয়েছে।
পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী এবং উপজেলা সদরের মাস্টার পাড়ার আব্দুল মোতালেব হোসেন জানান, তাঁর ছেলে নাজমুল হাসান (১৭) তার বন্ধু কলোনীপাড়ার আমির হোসেন কালুর ছেলে শামীম আহমেদকে (২৪) সঙ্গে নিয়ে একটি মোটরসাইকেলযোগে নাজমুলের নানার বাড়ি উত্তরগ্রাম থেকে মহাদেবপুর ফিরছিল। পথে সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে নওগাঁগামী সাফি পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (বগুড়া-ব-১৫৮২) তাদের সামনে থেকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। ফলে ঘটনাস্থলেই নাজমুল ও শামীমের মৃত্যু হয়।

ঈশ্বরদীতে পুলিশ
সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় লালন শাহ্ সেতুর পাকশী টোল প্লাজার গোল চত্বরে শ্যামলী পরিবহনের একটি ঢাকাগামী কোচের ধাক্কায় পাকশী হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবল রশিদুল নিহত হয়েছে। হাইওয়ে ডিউটি করতে গিয়ে গোলচত্বরে রাস্তা পার হওয়ার সময় কোচের ধাক্কা লাগলে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতের বাড়ি সিরাজগঞ্জ বলে জানা গেছে।

সীতাকুন্ডে তীর্থযাত্রী
উপজেলার বাড়বকুন্ডে বাস-কাভার্ডভ্যান মুখোমুখি সংঘর্ষে ১ তীর্থযাত্রী নিহত হয়েছে ও ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের সীতাকু- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল আনুমানিক ৮টার সময় বেনাপোল থেকে ছেড়ে আসা ঈগল পরিবহনের একটি বাস (ঢাকামেট্রো-ব-১৪-১২৮৬) তীর্থযাত্রী নিয়ে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। বাসটি সীতাকুন্ডে বাড়বকুন্ড সোনালী কটন মিলের সামনে এলে ঢাকামুখী একটি কাভার্ডভ্যান (ঢাকা মেট্রো ট-১৪-৩০২০) ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলে অজ্ঞাত পুরুষ (৩৫) নিহত হয়। বাসে থাকা আরও ২০ জন আহত হয়।

গোপালগঞ্জে শিশু ও যুবতী
গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে দুইটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে শিশু ও যুবতীসহ ২ জন নিহত ও অন্তত ৩০ যাত্রী আহত হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে মুকসুদপুর উপজেলার দিগনগর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটার পর গুরুতর আহতদের চিকিৎসার জন্য নেয়ার পথে ওই দু'জনের মৃত্যু ঘটে। নিহতরা হলো অজ্ঞাত এক শিশু (৪) এবং সীমা দাস (২০)।

যশোরে যুবক
মঙ্গলবার সকালে ছেলে সানোয়ার হোসেন (২৬) পুলের হাট থেকে মাকে নিয়ে মোটরসাইকেলযোগে মাহিদিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়। কিছুদূর যাওয়ার পর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে একটি গাছে ধাক্কা খায়। এতে সানোয়ার মাথায় প্রচ- আঘাত পায় এবং ঘটনা স্থলেই নিহত হয়। গুরুতর আহত হয় মা তহমীনা বেগম। তাকে সজ্ঞাহীন অবস্থায় যশোর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
নারায়ণগঞ্জে স্কুলছাত্র
নারায়ণগঞ্জের বন্দরে ট্রাকের চাপায় রানা আহম্মেদ (১৪) নামের এক স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে। সোমবার রাতে উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের মদনগঞ্জ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রানা মদনপুর ফুলহর এলাকার আব্দুল রহমানের ছেলে। সে মদনপুর রহমানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্র।
বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকতার হোসেন জানান, সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় মদনপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে মদনপুর আসার পথে মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কে সামনে থেকে একটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ভ-৪২০২) তাকে চাপা দেয়।