মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ৩ আগষ্ট ২০১১, ১৯ শ্রাবণ ১৪১৮
জেসমিন হত্যার আসামিদের গ্রেফতার না করার অভিযোগ
স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ মণিরামপুরের আলোচিত জেসমিন খাতুন ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামিদের পুলিশ গ্রেফতার করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। চলতি বছরের ১৬ মার্চ রাতে জেসমিনকে বাড়ি থেকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। পুলিশ পরদিন বাড়ির পাশের কলাবাগান থেকে জেসমিনের লাশ উদ্ধার করে। জেসমিনের বাড়ি গাঙ্গুলিয়া গ্রামে। সে ওই গ্রামের জয়নাল গাজীর স্ত্রী।
গত ১৬ মার্চ সন্ধ্যা রাতে জয়নাল গাজীর স্ত্রী জেসমিনকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় গাঙ্গুলিয়া গ্রামের মাদকসেবী শফিকুলের নেতৃত্বে ইমদাদুল, কামাল, মোমিন, মিলন আশিকুর, কামাল, ইমদাদ, মমিনখা ও সালামতপুরের মিলন। পড়ে বাড়ির পাশের কলাবাগানে পালাক্রমে ধর্ষণের পর তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা উপজেলার বসনত্মপুরের নুর ইসলাম বাকু থানায় ৫ জনের নামোলেস্নখ করে একটি হত্যা মামলা করেন। প্রথমে মামলাটি তদনত্ম করতেন থানার এসআই জাহিদ। বাদী নুর ইসলাম বাকুর অভিযোগ, পুলিশ শুরম্ন থেকেই আসামিদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে থাকে। সম্প্রতি এসআই জাহিদ অন্যত্র বদলি হয়েছেন। মামলাটি বর্তমান তদনত্ম করছেন এসআই আকরাম হোসেন। এ দিকে মামলার বাদী অভিযোগ করেছেন, থানার দালাল হিসেবে পরিচিত মজিদ নামের এক ব্যক্তি পুলিশের সঙ্গে বিশেষ রফা করার পর ঘটনার নায়ক কামাল, আশিকুর, ইমদাদ, মমিন, মিলন এবং আশিকুর বাড়ি ফিরে এসেছে। মামলার তদনত্মকারী অফিসার এসআই আকরাম জানান, নিরপেক্ষভাবে মামলাটি তদনত্ম শুরম্ন করেছি। ঘাতক যেই হোক সে পার পাবে না।

পরিবেশদূষণের অভিযোগে আশুলিয়ায় ডাইং কারখানাকে জরিমানা
নিজস্ব সংবাদদাতা, সাভার, ২ আগস্ট ॥ পরিবেশ অধিদফতরের চলমান এনফোর্সমেন্ট অভিযানে পাকুরিয়া বিল ও বংশাই নদী দূষণের অপরাধে মঙ্গলবার 'এমএবি ডেনিম লিমিটেড' নামক একটি ডাইং কারখানাকে ৪৮ লাখ ৫৯ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ওই ডাইং কারখানাটি ৩ বছর আগে বেআইনীভাবে আশুলিয়া-ধামরাই সংলগ্ন পাকুরিয়া বিল এলাকায় গড়ে তোলা হয়। পরিবেশ অধিদফতরের বিনা অনুমতি ও অজ্ঞাতসারে গড়ে তোলা এ কারখানা থেকে দূষিত তরল বজর্্য বাইপাস লাইনের মাধ্যমে পাকুরিয়া বিলে ফেলে বিল দূষণ ও বংশাই নদের পরিবেশের ক্ষতিসাধনের ঘটনা সোমবার উদঘাটন করা হয়।