মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১৭ জুলাই ২০১০, ২ শ্রাবণ ১৪১৭
সাঈদী ও ভাগ্নে শহীদের রিমান্ড শুনানি ১৮ জুলাই
কোর্ট রিপোর্টার ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. হুমায়ুন আজাদ হত্যাচেষ্টা মামলায় জামায়াত নেতা দেলায়ার হোসাইন সাঈদী ও বগুড়ায় গ্রেফতারকৃত জেএমবির বর্তমান প্রধান ভাগ্নে শহীদের রিমান্ড শুনানির জন্য আগামী ১৮ জুলাই তারিখ ধার্য করেছে আদালত। বৃহস্পতিবার আসামিপৰের আবেদনের প্রেৰিতে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মোহাম্মদ আলী হোসাইন এ তারিখ ধার্য করেন। দেলায়ার হোসাইন সাঈদীর উপস্থিতিতে এ শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।
মামলার তদনত্ম কর্মকর্তা সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক মোসত্মাফিজুর রহমান ১১ জুলাই সাঈদীকে ৭ দিনের ও বৃহস্পতিবার জেএমবির বর্তমান প্রধান আনোয়ার আলম ওরফে ভাগ্নে শহীদকে ৭ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন। রমনা থানার মামলার তদনত্ম কর্মকর্তা এসআই জাফর আলী ৪ দিনের রিমান্ড শেষে সাঈদীকে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করেন। ধমর্ীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া সংক্রানত্ম মামলায় সাইদীকে গত ২৯ জুন গ্রেফতার করা হয়। মামলার সাৰ্যগ্রহণের একপর্যায়ে ড. হামায়ুন আজাদের ভাই মামলার বাদী মোঃ মঞ্জুর কবিরের আবেদনের প্রেৰিতে গত বছরের ২০ অক্টোবর মামলাটি বর্ধিত তদনত্মের আদেশ দেয় আদালত। ২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রম্নয়ারি অমর একুশে বইমেলা থেকে বাসায় ফেরার পথে টিএসসির সামনে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন হুমায়ুন আজাদ। ঘটনার পরদিন হুমায়ুন আজাদের ভাই মঞ্জুর কবির রমনা থানায় একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন। ২০০৭ সালের ১৪ নবেম্বর জেএমবি নেতা শায়খ রহমান, আতাউর রহমান সানি, নুর মোহাম্মদ সাবু ওরফে শামীম, মিনহাজ ওরফে শফিক, আনোয়ার ওরফে ভাগ্নে শহীদকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দাখিল করেছিল পুলিশ।
রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, ভাগ্নে শহীদ আতাউর রহমান সানি, মিজানুর রহমান মিনহাজ ও শামীম মিলে একযোগে ড. হুমায়ুন আজাদকে ধারালো অস্ত্রসহ আক্রমণ করে বোমা ফাটিয়ে পালিয়ে যায়। বর্তমানে ভাগ্নে শহীদ জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমির। মামলা সুষ্ঠু তদনত্মের স্বার্থে তাকে রিমা-ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।