মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৪, ১৭ অগ্রহায়ন ১৪২১
আজ পাকিস্তান যাচ্ছে পুরুষ ও মহিলা হ্যান্ডবল দল
স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায়, পাকিস্তান হ্যান্ডবল এ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে ৩ থেকে ৭ ডিসেম্বর, পর্যন্ত আইএইচএফ টুর্নামেন্ট ফায়সালাবাদে অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের পুরুষ ও মহিলা অংশগ্রহণ করবে। বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশন কর্তৃক বাংলাদেশ পুরুষ ও মহিলা হ্যান্ডবল দল গঠনের লক্ষ্যে দীর্ঘ দেড় মাস আবাসিক ক্যাম্প পরিচালনা মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে খেলোয়াড় বাছাই করা হয়। বাংলাদেশ পুরুষ ও মহিলা হ্যান্ডবল দলের পোশাক (ট্রাকস্যুট, কেডস, শার্ট-প্যান্ট, ব্লেজার, জুতো ইত্যাদি) এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড প্রদান করেছে। আজ বাংলাদেশ পুরুষ ও মহিলা হ্যান্ডবল দল পাকিস্তানের ফায়সালাবাদের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবে। এ উপলক্ষে শহীদ ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলী জাতীয় হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ (পুরুষ ও মহিলা) হ্যান্ডবল দলের বিদায় সংবর্ধনা ও ফটোসেশনের আয়োজন করা হয়। ফটোসেশনে এক্সিম ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড. হায়দার আলী, ফেডারেশনের সভাপতি এ কে এম নূরুল ফজল বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর, বাংলাদেশ হ্যান্ডবল দলের ম্যানেজারদ্বয় যথাক্রমে মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন ও লাজুল নাহার করিম কস্তুরী, জাতীয় হ্যান্ডবল প্রশিক্ষক মোঃ কামরুল ইসরাম কিরণ এবং বাংলাদেশ পুরুষ ও মহিলা দলের ক্যাপ্টেন সোহাগ হোসেন আরিফ ও তৃপ্তিসহ সব খেলোয়াড়গণ অংশগ্রহণ করে।


ফুটবলার রাকিবের অপারেশন এ মাসেই


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত ২১ নবেম্বর জনকণ্ঠের খেলার পাতায় প্রকাশিত হয়েছিল ‘চিকিৎসার অভাবে পঙ্গু প্রায় রাকিব’ শিরোনামের একটি প্রতিবেদন। এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর এটি অনেকেরই নজরে এসেছে। বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৬ জাতীয় ইনজুরিগ্রস্ত ফুটবলার রাকিব হাসানের চিকিৎসার খরচ দিয়ে সাহায্য করতে এগিয়ে এসেছেন সমাজের একাধিক ক্রীড়াপ্রেমী মহৎ অন্তঃপ্রাণ ব্যক্তি। সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন আরও অনেকেই। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বিশিষ্ট ক্রীড়াসংগঠক রাকিবের চিকিৎসার ব্যাপারে বাড়িয়ে দিয়েছেন সাহায্যের হাত। রাকিবের চিকিৎসার বিষয়টি দেখভাল করছেন বাংলাদেশ ফুটবল সাপোর্টাস ফোরামের সভাপতি শাহাদাত হোসেন জুবায়ের। গত রবিবার তিনি ও রাকিব ওই বিশিষ্ট ক্রীড়াসংগঠকের সঙ্গে যোগাযোগ করে রাজধানীর একটি হাসপাতালে যান। ওই ক্রীড়াসংগঠকের খরচে তারা সেখানে রাকিবকে ডাক্তার প্রশান্ত আগরওয়ালকে দেখান ও রাকিবকে এমআরআই টেস্ট করান, মঙ্গলবার রিপোর্ট নিয়ে আবারও ডাক্তারকে দেখান। দুজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার রিপোর্টটি দেখে বলেন যত দ্রুত সম্ভব অপারেশন করাতে হবে। সে মোতাবেক আগামী ৯ ডিসেম্বর রাকিবের অপারেশের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। সুস্থ হওয়ার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছে রাকিব। উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে কোরবানির ঈদের পর বিকেএসপির মাঠে একটি অনুশীলন ম্যাচ খেলতে গিয়ে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের সঙ্গে সংঘর্ষে বাঁ পায়ের লিগামেন্ট ছিঁড়ে যায় লেফটব্যাক পজিশনে খেলা বগুড়ার এক দরিদ্র সবজি বিক্রেতার ছেলে রাকিবের। অপারেশন না করার ফলে তার চোটের অবস্থা এখন প্রকট আকার ধারণ করায় ক্যারিয়ার হয়ে পড়েছে সঙ্কটাপন্ন। এখন অপারেশনের জন্য কমপক্ষে দেড় লাখ টাকা প্রয়োজন। কিন্তু গরিব বাবা-মায়ের সামর্থ্য নেই এই টাকা যোগারের। উপয়ান্তর না দেখে রাকিব শরণাপন্ন হয় বাংলাদেশ ফুটবল সাপোর্টাস ফোরামের। তাদের কাছ থেকেই বিষয়টি জেনে রাকিবকে নিয়ে বিশেষ রিপোর্ট করে জনকণ্ঠ। ২০১১ সালে রাকিব ভর্তি হয় সাভারে বিকেএসপিতে। এরপর ২০১৩ সালে বগুড়া ফুটবল লীগের ১টি ম্যাচে (ফাইনাল) খেলা। অনুর্ধ-১৬ জাতীয় দলে ডাক পাওয়া ওই বছরই। সেবারই বয়সভিত্তিক সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে যায় নেপালে। বাংলাদেশ সেমি পর্যন্ত খেলে। সে আসরে দলের ৪ ম্যাচের ৩টিতেই খেলে রাকিব।