মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৩, ১৩ কার্তিক ১৪২০
ক্লান্ত বেয়ার্নের বিশ্রাম প্রয়োজন ॥ কোচ গার্ডিওলা
জি এম. মোস্তফা ॥ জার্মান বুন্দেসলীগায় জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে বেয়ার্ন মিউনিখ ও বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। শনিবার গেল মৌসুমের শিরোপাজয়ী বেয়ার্ন মিউনিখ ৩-২ গোলে হারিয়েছে হার্থা বার্লিনকে। এ জয়ের ফলে টানা ৩৫ ম্যাচ জয়ের অবিশ্বাস্য এক রেকর্ড গড়েছে পেপ গার্ডিওলার দল। সেই সঙ্গে বুন্দেসলীগায় পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ স্থানটাও অক্ষুণœ রেখেছে গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন বেয়ার্ন মিউনিখ। আর দুইয়ে থাকা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডও পূর্ণ তিন পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী শালকে জিরো ফোরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে গত মধুর প্রতিশোধটাও নিয়ে নিয়েছে জার্গেন ক্লপের দল।
গতকাল এ্যালিয়েঞ্জ এ্যারিনার দর্শককে স্তব্ধ করে শুরুর ৪ মিনিটেই বেয়ার্ন মিউনিখের জালে বল জড়ায় হার্থা বার্লিন। পার সেকেলব্রেডের বাড়ানো বলটাকে দুর্দান্ত গতিতে হেড করে গোল করেন বার্থা বার্লিনের আদ্রিয়ান রামোস। প্রতিপক্ষের মাঠে সেই উৎসবের রেশটা বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি সফরকারী বার্লিন। ২৯ মিনিটে দলকে সমতায় ফেরান মিউনিখের ক্রোয়েশিয়ান ফুটবলার মারিও মানজুকিচ। ফরাসী ফুটবলার ফ্রাঙ্ক রিবেরির বাড়ানো বলটিকে হেডে গোলে রূপান্তরিত করেন তিনি। এরপর সমতায় থেকেই বিরতিতে যায় দুই দল। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই আবারও মানজুকিচের চমক দেখে এ্যালিয়েঞ্জ এ্যারিনা। দ্বিতীয়ার্ধের ৫১ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেয়ার কাজটা খুব সহজেই করেন তিনি। তিন মিনিটের ব্যবধানে আবারও গোল করেন বেয়ার্নের মারিও গোটজে। ৫৮ মিনিটে বার্লিনকে দ্বিতীয় গোল উপহার দেন আনিস বেন হাটিরা। প্রথম গোলের নায়ক আদ্রিয়ান রামোসের সৌজন্যে হাটিরার গোল বেয়ার্নের বিপক্ষে ফেরার ভালই ইঙ্গিত দিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ম্যাচে আর কোন সুযোগ না পাওয়ায় হারের অতৃপ্তি নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় হার্থা বার্লিনকে।
ম্যাচ শেষে মৌসুমের বিরতিহীন সূচীতে বিরক্ত বেয়ার্ন মিউনিখের কোচ পেপ গার্ডিওলা। একটানা ম্যাচ খেলে ক্লান্ত বেয়ার্নের এখন বিশ্রাম প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। এ বিষয়ে সাবেক বার্সিলোনার সফল এই কোচের অভিমত, ‘আজ আমরা তেমন ভাল ছিলাম না। আসছে সপ্তাহে হোফেনহেইম সফরের জন্য আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে। আমাদের খেলোয়াড়দের বিশ্রামের প্রয়োজন। গত দুই মাসে আমরা অসংখ্য ম্যাচ খেলেছি, যে কারণে তারা এখন কিছুটা ক্লান্ত, যেমনটি ছিল আজ।’ হার্থা বার্লিনের বিপক্ষে ম্যাচের শুরুতেই পেছনে পড়ে যায় বেয়ার্ন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কষ্টার্জিত জয় পেয়েছে দল। তবে গার্ডিওলা এখন তিন পয়েন্ট পেয়েই তৃপ্ত, ‘আপনারা হয়ত দেখে থাকতে পারেন, ম্যাচে মানসিক এবং শারীরিকভাবে আমরা বেশ সতর্ক ছিলাম। কেননা এই পরিস্থিতিতে তিন পয়েন্ট পাওয়াটাই দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’ ১০ ম্যাচ শেষে আট জয় আর দুই ড্রয়ের সৌজন্যে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে বেয়ার্ন মিউনিখ। আর বুন্দেসলীগায় শীর্ষে থাকতে পেরেই আনন্দিত সাবেক বার্সার এই কোচ, ‘এটা খুবই ভাল খবর যে, আমাদের মাথাটাই এখন সবার ওপরে।’ বেয়ার্নের জয়টা কষ্টার্জিত হলেও অনায়াস জয় পেয়েছে তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। পরশু নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী শালকে জিরো ফোরকে হারিয়ে পূর্ণ তিন পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে গেল মৌসুমের রানারআপরা। সেই সঙ্গে গত মৌসুমে দুবার পরাজয়ের স্বাদ পাওয়ার প্রতিশোধটাও নিয়ে নিলেন এদিন। শালকের ঘরের মাঠে ১৪ মিনিটেই এগিয়ে যায় ডর্টমুন্ড এমিরিক অবামেয়েংয়ের গোলে। দ্বিতীয়ার্ধের ৫১ এবং ৭৪ মিনিটে ব্যবধান বাড়ান নুরি শাহিন ও জ্যাকুব ব্লাসজেকোস্কি। ৬২ মিনিটে শালকের একমাত্র গোলটি করেন ম্যাক্সিমিলিয়ান মায়ের। এর আগে প্রথমার্ধে পেনাল্টির সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি স্বাগতিকদের কেভিন প্রিন্স বোয়েটেং। এর ফলে ডর্টমুন্ডের অবস্থান দুইয়ে। দিনের অন্য ম্যাচে তিনে থাকা বেয়ার লেভারকুসেন ২-১ গোলে হারিয়েছে অগসবার্গকে। এ ছাড়া হোফেনহেইম হ্যানোভার নাইনটি সিক্সকে, মেইঞ্জ ইনট্রাক্ট ব্রানচেউইগকে এবং ওল্ফসবার্গ ওয়ের্ডার ব্রেমেনকে হারিয়ে পূর্ণ তিন পয়েন্ট সংগ্রহ করে।