মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০১১, ২৫ আশ্বিন ১৪১৮
বিচ সকারের ফাইনালে বাংলাদেশ
স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথম বারের মতো কোন আন্তর্জাতিক গেমসে বিচ সকারে অংশ নিয়েই বাংলাদেশ ফাইনালে উন্নীত হয়েছে। গতকাল শ্রীলঙ্কা থেকে জানানো হয় যে, দিনের প্রথম ম্যাচে স্বাগতিকদের কাছে হেরে গেলেও দ্বিতীয় ম্যাচে তারা নেপালকে পরাস্ত করতে সৰম হয়। সৈকত নগরী হাম্বানটোটায় অনুষ্ঠেয় প্রথম সাউথ এশিয়ান বিচ গেমসের ফুটবল ইভেন্টের ফাইনালে আজ সোমবার বাংলাদেশ খেলবে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে। স্থানীয় সময় বিকেল ৫টায় এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। গত শনিবার প্রথম ম্যাচে বিপস্নব ভট্টাচার্যের দল ৮-৩ গোলে পরাজিত করে মালদ্বীপকে। গতকাল দ্বিতীয় ম্যাচে অবশ্য বাংলাদেশ বিরাট ব্যবধানে পরাজিত হয় লঙ্কানদের কাছে। চার দেশের অংশগ্রহণে আয়োজিত এই ইভেন্টে শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ নেপালকে ৫-১ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে। যাওয়ার আগে কক্সবাজারে মাত্র ৩ দিনের প্রস্তুতি নিয়েছিল কোচ আব্দুল কাইয়ুম সেন্টুর দল। ছিল না কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা। কারণ এদেশে বিচ সকার আনুষ্ঠানিক রূপ পায়নি। ব্রাজিলিয়ান কোচ ডিডো থাকাকালে ২০০৯ সালে কক্সবাজারে এক মাস প্রস্তুতি নিয়েছিল বাংলাদেশ। নাম মাত্র প্রস্তুতি নিয়ে যাওয়ার খবর শুনে আয়োজকদের কাছে হাসির পাত্র হয়েছিল লাল-সবুজরা। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা নিজেদের দেশে গেমস অনুষ্ঠিত হওয়ায় দীর্ঘদিন নিজেদের প্রস্তুত করার সুযোগ পেয়েছে। উপরন্তু সমুদ্রবেষ্টিত দেশ হওয়ায় শ্রীলঙ্কানরা ফুটবলের এই ধারাটির সঙ্গে ভালভাবে পরিচিত। তাই স্বাগতিকদের বাংলাদেশের পরাজয় অস্বাভাবিক কিছু ছিল না। আজ ফাইনালে যদি এদেশের ছেলেরা সাধ্যের অতীত কিছু করে বসেই তবেই প্রথমবারের আয়োজিত এই আসরে স্বর্ণ জয় করা সম্ভব। নয়ত রৌপ্য নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে। গতকাল নেপালের বিরম্নদ্ধে শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ প্রথম সেশনে ০-১ গোলে পিছিয়ে পড়েছিল। বিচ সকার ফুটবলের নিয়মানুযায়ী প্রথম ও দ্বিতীয় সেশন মিলে ১২ মিনিট করে ২৪ মিনিট খেলা হয়। প্রথম সেশনে প্রদীপ থাপার গোলে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় সেশনের ২ মিনিটে আরিফুল ইসলাম খেলায় সমতা আনেন। তারপর ৪ মিনিটে রবিন, ৮ মিনিটে এনামুল হক, ৯ মিনিটে আবার আরিফুল ও ১১ মিনিটে কোমল মজুমদার নিয়মিত বিরতিতে গোল দিতে থাকেন নেপালীদের। নেপাল আগের ম্যাচে মালদ্বীপকে ৫-৩ গোলে হারালেও বাংলাদেশের কাছে হেরে ফাইনালে যেতে ব্যর্থ হয়। বাংলাদেশ দলের জন্য গতকাল সকালটা ভাল ছিল না। স্বাগতিক লঙ্কানরা ১২-০৪ গোলের বড় ব্যবধানে পরাজিত করে অতিথিদের। প্রথম সেশনের প্রথম মিনিটে মালিঙ্গা সিলভা গোল করে এগিয়ে দেন স্বাগতিকদের। তারপর আর্সেলা ৩, ৯ ও ১০ মিনিটে গোল করে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন। প্রদীপ ৭ মিনিটে আরেকটি ও দীনেশ ৫ মিনিটে একটি গোল করেন। এই সেশনে বাংলাদেশের এনামুল ১২ মিনিটের সময় একমাত্র গোল উপহার দেন। দ্বিতীয় সেশনে কোমল প্রথম মিনিটে ও শ্রীলঙ্কার মফিল ৯ মিনিটে একটি করে গোল করেছেন। তৃতীয় সেশনে দীনেশ ১, কোমল ৩, আর্সেলা ৭, বাংলাদেশের সবুজ ৭, শ্রীলঙ্কার প্রদীপ ও আর্সেলা ৯ এবং রোহিত ১২ মিনিটে একটি করে গোল করেন।