মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ৯ এপ্রিল ২০১১, ২৬ চৈত্র ১৪১৭
অসিদের বিরুদ্ধে লড়াই করে হারলে দুঃখ থাকবে না
তিন তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্রপ্রাপ্ত অভিনেত্রী সাদিকা পারভীন পপি একজন ক্রিকেট অনুরাগী হিসেবে সমধিক পরিচিত তার ভক্তদের কাছে। বিশ্বকাপের সকল সফল সমাপ্তির পর বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ওয়ানডে হোম সিরিজ দিয়ে আনত্মর্জাতিক একদিনের ম্যাচ আবারও মাঠে গড়াচ্ছে। তিন ম্যাচ সিরিজের আজ প্রথমটি ঢাকার মিরপুর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। এ নিয়ে তিনি কথা বলেছেন মোসত্মাফিজুর রহমান সুমনের সঙ্গে
জনকণ্ঠ : বিশ্বকাপের পর অস্ট্রেলিয়ার মতো শক্তিশালী দলের বিরম্নদ্ধে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। কি মনে হচ্ছে, কেমন খেলবে বাংলাদেশ?
পপি : বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশ কোয়ার্টার ফাইনালে না উঠতে পারলেও সার্বিক ফলাফল কিন্তু ফিফটি ফিফটি। ৬ ম্যাচে ৩ জয় ও পরাজয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও দৰিণ আফ্রিকার কাছে ৫৮ ও ৭৮ রানে গুটিয়ে যাওয়া দুঃসহ স্মৃতি যদিও ভোলার নয়। অন্যদিকে ৪ বারের সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া সদ্য নিজেদের সাম্রাজ্যের পতন নিশ্চিত করে ৰুধার্ত হয়ে বাংলাদেশে এসেছে। অস্ট্রেলিয়া তাদের হারানো সাম্রাজ্য ফিরে পেতে টাইগারদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়বে। টাইগাররাও ছেড়ে কথা বলবে বলে মনে হয় না।
জনকণ্ঠ : বাংলাদেশ দলের স্কোয়াড কেমন হলো?
পপি : বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার বাদ পড়েছে পারফরমেন্সের কারণে। মাশরাফি ও অলক কাপালি দলে ফেরায় স্কোয়াড পরিপূর্ণ হয়েছে বলে মনে হয়। শুভাগত হোম নামে একজন ব্যাটসম্যান ঘরোয়া ক্রিকেটে ভাল নৈপুণ্য দেখিয়ে প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পেয়েছে। তার প্রতি শুভ কামনা রইল।
জনকণ্ঠ : মাশরাফি নিজ থেকে সরে যেতে চান দল থেকে। এটা কি তার বিশ্বকাপ স্কোয়াড সুযোগ না পাওয়ার ৰোভ থেকে?
পপি : মাশরাফি পূর্ণশক্তি নিয়ে বল করতে পারছে না এবং শারীরিকভাবে দুর্বল অনুভব করছেন বলে পত্রিকা পড়ে জেনেছি। ফিট না হয়ে একাদশে খেলাকে আমি সমর্থন করি না। পেশাদার যে কোন টিমে আনফিট ক্রিকেটার একাদশে সুযোগ পায় না। ৰোভের ব্যাপারে বলব, বিশ্বকাপ স্কোয়াডে মাশরাফির নাম না থাকায় আমরা সারাদেশের মানুষ মেনে নিতে পারিনি। পুরো বিশ্বকাপজুড়ে দেশবাসী মাশরাফির অভাব অনুভব করেছে। মাশরাফি ব্যক্তিগতভাবে কোন প্রকার প্রতিশোধপরায়ণ নয়। ও সবসময় দেশের জন্য খেলে, নিজের জন্য নয়। একবার ভেবে দেখুন, স্ত্রী ও নবজাতক সনত্মান হাসপাতালে অসুস্থ অবস্থায় থাকলেও বিসিবির ডাকে সাড়া দিয়ে নির্ধারিত প্র্যাকটিস করছে নিজেকে ফিরে পেতে।
জনকণ্ঠ : প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কোন কোন ক্রিকেটারের মোকাবেলা করতে বাংলাদেশের সমস্যা হতে পারে?
পপি : প্রথমে বলব রিকি পন্টিংয়ের কথা। সদ্য পদত্যাগী এই অধিনায়ক ব্যাটে আগুন ঝরাবেন নিশ্চিত। নতুন অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক, অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসন ও পেস বোলার মিচেল জনসন সব সময়ের জন্য প্রতিপৰের যম হিসেবে আবিভর্ূত হন। বাংলাদেশের বিরম্নদ্ধেও হবেন। বাংলাদেশ যদি এই চারজনকে পরাসত্ম করতে পারে তাহলে অস্ট্রেলিয়াকে পরাসত্ম করা সহজ হবে।
জনকণ্ঠ : বাংলাদেশের কোন্্ কোন্্ ক্রিকেটারের ওপর প্রত্যাশার চাপ থাকবে বেশি?
পপি : তামিম ইকবাল বিশ্বকাপে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিরম্নদ্ধে ভাল নৈপুণ্য করার পালা। শাকিব আল হাসান বিশ্বকাপে ভাল রান করতে পারেননি। রম্নবেল হোসেন ভাল বল করলেও উইকেট পাননি। রাজ্জাকও খেই হারিয়ে ফেলেছেন উইকেট প্রাপ্তির বেলা। শাহারিয়ার নাফিস বিশ্বকাপে কম সুযোগ পেলেও রান পাননি বলার মতো। মোটকথা তামিম, সাকিব, রম্নবেল, রাজ্জাক ও নাফিস নৈপুণ্য দেখানোর ৰেত্রে চাপে থাকবে। ইমরম্নল, শফিউল ও রিয়াদ চাপমুক্ত থেকে খেলবে। মাশরাফি ও অলক দুর্দানত্ম কামব্যাক করতে চাইবে। সামগ্রিকভাবে সবাই মিলে ভাল খেললে অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব বলে মনে করি। সর্বোপরি টাইগার বাহিনীর মঙ্গল কামনা করি আজকের ম্যাচের জন্য।
জনকণ্ঠ : ধন্যবাদ।
পপি : জনকণ্ঠ ও জনকণ্ঠ পাঠকদেরও ধন্যবাদ।