মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ১৮ জুন ২০১০, ৪ আষাঢ় ১৪১৭
মধ্যমাঠের দুই প্রহরী ডনোভান-কোরেন যুদ্ধ
স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দু'জনই মধ্যমাঠের অতন্দ্র প্রহরী। দলের দুই সেরা ফুটবলার। গোল করান। গোল করেন। দলের প্রয়োজনে নিজেকে উৎসর্গ করে দেন। দলের চরম দুর্যোগ মুহূর্তে এগিয়ে আসেন। দলকে জেতান। দেশবাসীকে স্বসত্মি এনে দেন। আজ যুক্তরাষ্ট্র-সেস্নাভেনিয়া ম্যাচেও এ দু'জনের দিকেই দৃষ্টি সবার। দলের ভরসাও এ দু'জনই। মধ্যমাঠের সেরা তারকা। আক্রমণাত্মক মিডফিল্ড হিসেবেই পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রের ল্যান্ডন ডনোভান এবং সেস্নাভেনিয়ার রবার্ট কোরেন। ম্যাচে স্পটলাইটেও এ দু'জনই।
ল্যান্ডন ডনোভান যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে তারকা ফুটবলার। দলের একমাত্র ভরসা। মধ্যমাঠে খেলেন। কিন্তু কখনও মধ্যমাঠ থেকে স্ট্রাইকারের ভূমিকা পালন করেন। দলের প্রয়োজনে গোলও করেন। ইংল্যান্ডের বিরম্নদ্ধে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই দু্যতি ছড়ান ডনোভান। অসাধারণ খেলেন। গোল পাননি। তবে ইংলিশ রৰণদুর্গের ফুটবলারদের ঘাম ঝরিয়ে ছেড়েছেন। মধ্যমাঠে একাই নিজেকে আলাদাভাবে উপস্থাপন করেছেন। ম্যাচ শেষ পর্যনত্ম ড্র হয়। ২০০০ সাল থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের জার্সি গায়ে মাঠ মাতানো শুরম্ন ডনোভানের। ২০০২ ও ২০০৬ সালের বিশ্বকাপও খেলেন এ ফুটবলার। দলের পৰে বিশ্বকাপে ৮ ম্যাচ খেলে ২ গোল করেন। আর জাতীয় দলের পৰে ১২৪ ম্যাচ খেলেন। করেন ৪২ গোল। সেস্নাভেনিয়ার বিরম্নদ্ধে আজ যুক্তরাষ্ট্রের গুরম্নত্বপূর্ণ ম্যাচ। দ্বিতীয় পর্বে উঠতে হলে পয়েন্ট পেতেই হবে। এমন ম্যাচে ডনোভানকেই দলের জন্য কিছু করতে হবে। তার কাছেই প্রত্যাশা সবার। কোচ বব ব্রেডলিও তাকে নিয়েই আশায় বুক বেঁধে আছেন। গুরম্নত্বপূর্ণ ম্যাচটিতে ডনোভান চমক দেখাবে। দলকে জেতাবে। এমন আশা কোচও করছেন। তার ওপরই যুক্তরাষ্ট্রের নজর থাকবে।
রবার্ট কোরেনও সেস্নাভেনিয়ার সবচেয়ে আলোচিত ফুটবলার। তারকাখ্যাতিতে পুষ্ট। প্রথম ম্যাচে তার গোলেই দল জিতেছে। আলজিরিয়াকে হারিয়েছে তার গোলেই। এই গ্রম্নপে সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট এখন সেস্নাভেনিয়ার। তা সম্ভব হয়েছে কোরেনের গোলেই। বিশ্বকাপে প্রথম জয় পেয়েছে সেস্নাভেনিয়া। এর আগে ২০০২ সালে প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে একটি জয়েরও দেখা পায়নি সেস্নাভেনিয়া। এবার কোরেনের একমাত্র গোলে সেই স্বাদ পূরণ হয়েছে সেস্নাভেনিয়ার। আজ যুক্তরাষ্ট্রের বিরম্নদ্ধে ম্যাচ। ম্যাচে পয়েন্ট পেলেই দ্বিতীয় পর্বে ওঠার স্বপ্নও বেঁচে থাকবে দলটির। এমন ম্যাচে কোরেনের ওপরই সব নির্ভর করছে। দলের সবচেয়ে তারকা এ ফুটবলারের ওপরই দল নির্ভরশীল। তার গোলে আবারও জয় তুলে নেবে সেস্নাভেনিয়া এমনটিই আশা সেস্নাভেনিয়া সমর্থকদের। ২০০৩ সাল থেকে দলের সঙ্গে যুক্ত কোরেন। ৪৭ ম্যাচ খেলেছেন। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে গোল করেছেন ৫টি। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই গোল করেন। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এখন কোরেনই। স্পটলাইটেও তাই কোরেন।