মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১ জানুয়ারী ২০১১, ১৮ পৌষ ১৪১৭
অর্জন আছে, আরও চাই
মুনতাসীর মামুন
কোন সরকারই সম্পূর্ণ সফল হয় না। হলে সমাজে টেনশন কমে যেত। রাষ্ট্র নিয়ে চিনত্মা-ভাবনা কম করলেও হতো। কারণ, রাজনৈতিক দলের ম্যানিফেস্টো কাগজে কলমে চমৎকার, প্রাক নির্বাচনী ভাষণগুলো আশ্বাস-উদ্দীপনায় ভরা। কিন্তু ৰমতাসীন হওয়ার পর তারা রম্নটিন কাজে জড়িয়ে যায়, ভাবে সময় তো আছেই। তারপর দিন শেষে দেখা যায় ৰমতাসীন দল উদ্বিগ্ন ভবিষ্যত নিয়ে। সে অনুভব করে, অনেক কিছুই করা যায়নি, করা হয়নি। কিন্তু করার কিছু থাকে না, সূর্য তখন অস্তমিত। বাংলাদেশের সবগুলো রাজনৈতিক দলের প্যাটার্নটা এ রকমই। আওয়ামী জোট যে ২০০৮ সালে একচেটিয়া . . .
অর্থনৈতিক অস্বসত্মির বছর
ড. আর. এম. দেবনাথ
ভেবেছিলাম ২০১০ সালের শেষটা একটু স্বসত্মিতে কাটবে। এখন পৌষ মাস। আমন ধান কৃষক ঘরে তুলেছে। দেশের সর্বত্র একই খবর। প্রচুর ফলন হয়েছে এবার। কৃষকরা দারুণ খুশি এবারের ফলন দেখে। গত মাস খানেকের মধ্যে আমি অনেক জায়গা ঘুরেছি। দেখেছি সর্বত্র খুশির আবহ। প্রচুর আমন হয়েছে_ বাম্পার ফলন। এ অবস্থায় আমার ধারণা হয় সারা বছর যেমনই যাক না কেন বছরটা শেষ হবে আনন্দের মধ্যে, স্বস্তির মধ্যে। ধান-চালের দাম কমবে। শাকসবজির দাম কমবে। না তা হয়নি। এই ভরা মৌসুমে উল্টো চালের দাম বাড়ছে। মোটা, মাঝারি ও চিকন_সব চালের দামই হু হু করে বাড়ছে। . . .
খলনায়ক ছিল দ্রব্যমূল্য
কাওসার রহমান
দেশের সামষ্টিক অর্থনীতিতে সারাবছর ধরেই স্থিতিশীলতা বজায় ছিল। একমাত্র মূল্যস্ফীতির চাপ ছাড়া অর্থনীতি বড় ধরনের কোন প্রতিকূলতার সম্মুখীন হয়নি। তবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিজনিত মূল্যস্ফীতিই অর্থনীতির জন্য অস্বস্তির কারণ ছিল। আর লাগামহীন দ্রব্যমূল্য খলনায়কের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে অর্থনীতিকে সঙ্কটের আবর্তে ফেলার চেষ্টা করেছে। বৈশিকমন্দা কেটে যাওয়ার পর বাংলাদেশ শুধু বিশ্ব বাজারে মাথাতুলে দাঁড়াতেই সৰম হয়নি, বছরের শেষ দিকে এসে অর্থনীতিও ঘুরে দাঁড়িয়েছে। বছরের দ্বিতীয়ার্ধে মূলধন যন্ত্রপাতি আমদানির পরিমাণ বাড়লেও সারা . . .
নারীর জন্য আলোচিত বছর
নাজনীন আখতার
সাফল্য, ব্যর্থতা, আৰেপ, অর্জন, নতুন আইন পাস_ সার্বিক দিক দিয়ে বছরটি ছিল নারীর জন্য আলোচিত বছর। নারী সংগঠনের বহুদিনের আন্দোলনের ফসল পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধে নতুন আইন তৈরিকে বছরের অন্যতম সফলতা ও অর্জন হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে সংগঠনগুলোর আৰেপ ছিল নারী উন্নয়ন নীতি এবারও পাস না হওয়া। আর ব্যর্থতার ৰেত্রে রয়েছে নারী প্রতি সহিংসতাকে নূ্যনতম পরিমাণও কমাতে না পারা। নারীর জন্য সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম মস্নান হয়ে গেছে নারীর ওপর নির্যাতনের বহুমাত্রিক ধরনের কারণে। এবারের জাতীয় বাজেটকে জেন্ডার . . .
ফিরে দেখা বিশ্ব-২০১০
শামীম আহমেদ
উইকিলিকস ও জুলিয়ান এ্যাসাঞ্জ বছরজুড়ে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল বিকল্প গণমাধ্যম উইকিলিকস ও এর প্রতিষ্ঠা জুলিয়ান এ্যাসাঞ্জ। উইকিলিকসের তথ্য বিস্ফোরণ বিশ্ববাসীর কল্পনাকেও হার মানায়। ওয়েব সাইটটিতে আফগান ও ইরাক যুদ্ধের প্রকৃত চিত্রের হাজার হাজার দলিল তুলে ধরার পাশাপাশি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর তৎপরতা, মার্কিন দূতাবাসের বিভিন্ন কর্মকা-, স্পর্শকাতর স্থাপনার তথ্য ফাঁস করা হয়। এছাড়াও ওয়েব সাইটটিতে আফগান ইসু্যতে পাকিসত্মানের ভূমিকা, পাকিসত্মানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইর সঙ্গে তালেবান জঙ্গিদের ঘনিষ্ঠতার . . .
২০১১ সালের বিশ্ব কেমন হবে
২০১০ সাল বিদায় নিল। মহাকালের গর্ভে হারিয়ে গেল। নতুনের আগমনী বার্তা নিয়ে এসেছে ২০১১ সাল। কেমন হবে বছরটি? উল্লেখযোগ্য কি কি হতে পারে এ বছরে? 'ইকোনমিস্ট' পত্রিকার চোখে দেখা ২০১১ সালকে নিয়ে এই লেখাটি অনুবাদ করেছেন_ এনামুল হক
জনসংখ্যা দাঁড়াবে ৭শ' কোটি ২০১১ সালে বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৭শ' কোটি। মানবসভ্যতার উন্মেষের পর জনসংখ্যা ১শ' কোটিতে পৌঁছতে (১৮০০ সাল) আড়াই লাখ বছর লেগেছিল। ২শ' কোটিতে পৌঁছতে মাত্র সোয়া শ' বছরের বেশি লেগেছে (১৯২৭ সাল)। তিন শ' কোটি হতে ৩৩ বছর (১৯৬০), ৪শ' কোটি হতে পরবর্তী ১৪ বছর, ৫শ' কোটি হতে আরও ১৩ বছর এবং ৬শ' কোটি হতে ১২ বছর লেগেছিল। বিশ্ব অর্থনীতির দুঃসময় ২০১১ সাল বিশ্ব অর্থনীতির জন্য কঠিন সময় হিসাবে দেখা দেবে। প্রণোদনা প্রত্যাহার করে ব্যয়সঙ্কোচ নীতি অবলম্বনের . . .
সেনানিবাসের বাসভবনসেনানিবাসের বাসভবন
উত্তম চক্রবর্তী
খালেদা জিয়ার সেনানিবাসের বাসভবন। বিদায়ী বছরের শেষ দিকে এটিই ছিল দেশের রাজনীতির হট ইসু্য। যে ইস্যুর রেশ এখনও কাটেনি। ৩৮ বছর পর গত ১৩ নবেম্বর আদালতের রায়ে অবৈধ দখলে রাখা মঈনুল রোডের বাড়িটি ছাড়তেই হয়েছে বিরোধীদলীয় এই নেতাকে। সরকার ও বিরোধী দল এ নিয়ে এখনও মুখোমুখি অবস্থানে। এ ইস্যুতে বিএনপি-জামায়াত জোট দেশের রাজনীতিকে অস্থিতিশীল ও সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির দিকে নেয়ার চেষ্টা করলেও সরকারের কঠোর অবস্থানে তা বেশি দূর গড়ায়নি। এই বাড়ি ছাড়া নিয়ে হরতাল, জ্বালাও-পুড়াও, বিৰোভের ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী . . .
বিদায়ী বছরের সংস্কৃতি অঙ্গন
মোরসালিন মিজান
বিদায়ী বছর ২০১০ সালে নিকট অতীতের সকল বন্ধ্যাত্ব কাটিয়ে ওঠে দেশের সংস্কৃতি অঙ্গন। নব-উদ্যমে কাজ শুরু করে সংগঠনগুলো। দেশজুড়ে সক্রিয় ছিলেন অগণিত কর্মী। ফলে নাচ, গান, আবৃত্তি, নাটক, চিত্রপ্রদর্শনী, যাত্রা, চলচ্চিত্র উৎসবসহ প্রায় সকল ধরনের সাংস্কৃতিক চর্চা গতি পায়। বিভিন্ন মঞ্চ থেকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত শুরু করার দাবি জানানো হয়। শাহরুখ খান, রানী মুখার্জী, সঞ্জয় দত্ত, আমিষা প্যাটেলের মতো তারকারা বাংলাদেশে আসেন এ বছর। গণসঙ্গীত শিল্পী প্রতুল মুখোপাধ্যায় ও লেখক শংকরের উপস্থিতিও উপভোগ করেন ভক্তরা। তবে . . .
যুদ্ধাপরাধের বিচার
বিকাশ দত্ত
২০১০ সালে সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা ছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার । আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু না হলেও ইতোমধ্যে যুদ্ধাপরাধীর অভিযোগে ৬ জন গ্রেফতার হয়েছে। দীর্ঘ ৪০ বছর পর একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় যারা মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছিল তাদের বিচার কাজ শুরু হয়েছে। ২০১০ সাল ছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বছর। ৭১ সালে যারা হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীর সহযোগী ছিল । দেরিতে হলেও বিচার শুরু হয়েছে । ইতোমধ্যে ছয় শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শীঘ্রই তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে। যুদ্ধাপরাধীর অভিযোগে জামায়াতের শীর্ষ ৫ নেতাসহ বিএনপির . . .
শিক্ষাখাতের এক বছর
বিভাষ বাড়ৈ
পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের বিবেচনায় ২০০৯ সালের পর ২০১০ অর্থাৎ মহাজোট সরকারের দ্বিতীয় বছরেও জনমনে সবচেয়ে বেশি আশার সঞ্চার করেছে শিক্ষা খাত। শিক্ষার উন্নয়নে যুগান্তকারী সব পদক্ষেপ বাস্তবায়নের মাধ্যমে সরকারের যে কোন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের চেয়ে সক্রিয় ছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও অধিদফতরগুলো। প্রধানমন্ত্রী বিশেষ উদ্যোগ আর শিক্ষামন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের সর্বাত্মক চেষ্টার ফসল হিসেবে ২০১০ সালেই জাতি পায় বহু আকাঙ্ক্ষিত যুগোপযোগী ও অভিন্ন ধারার এক শিক্ষানীতি। ক্ষমতা গ্রহণের শুরুতে তত্ত্বাবধায়ক . . .
সালতামামি ২০১০
স্পেনের বিশ্ব জয় আর শচীনের 'ডবল সেঞ্চুরির' বছর
জামান তৌহিদ
মানব সভ্যতার ইতিহাস সমৃদ্ধ করতে কিংবা পৃথিবীর বয়স বাড়াতেই হোক না কেন, আরেকটি ইংরেজী নববর্ষ সমাগত। স্বাগত ২০১১ সাল। সময়ের পরিক্রমায় কালের অতল গহ্বরে জায়গা করে নিতে হচ্ছে ২০১০ সালকে। বিশ্বমানবের অসংখ্য হাসি-কান্না, সুখ-দুঃখ, প্রাপ্তির আনন্দ-না পাওয়ার বেদনাকে সঙ্গী করে সময়ের অমোঘ নিয়মে অতীতের খাতায় ঠাই মিলছে '২০১০'-এর। কেমন ছিল বছরটি? মানুষ স্মৃতি রোমান্থন করতে চায়। মানুষের সহজাত প্রকৃতিই হলো মনের আয়নায় ফেলে আসা পথের স্মৃতিটুকু আগলে রাখা, চাওয়া-পাওয়ার হিসাব মেলানো। তাই ১২ মাস আগে যাকে সাদরে . . .
সালতামামি ২০১০
গাফফার খান চৌধুরী
গত বছর সারাদেশে ঘটে গেছে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর ও হৃদয়বিদারক ঘটনা। এর মধ্যে বছরের শুরম্নতেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৫ খুনীর ফাঁসি কার্যকর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের দুই গ্রম্নপের বন্দুকযুদ্ধ এবং প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া, পিলখানায় নৃশংস হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় আদালতে সিআইডির চার্জশীট দাখিল, আর পিলখানা বিডিআর সদর দফতরের দরবার হলে বিদ্রোহ মামলার বিচার শুরম্ন, জুরাইনে দুই সনত্মানসহ মায়ের আত্মহত্যা, মায়ের পরকীয়ার জেরধরে আদাবরে শিশু সামিউল খুন, যুবলীগ কর্মী ইব্রাহিমের রহস্যময় মৃতু্য, সন্ত্রাসীর . . .
বছরের আলোচিত ব্যক্তি
সোহেল রহমান
বিদায়ী ২০১০ সালে বেশ কিছু ব্যক্তি বিতর্কিত ও আলোচিত হয়েছেন। তাদের কৃতকর্মের জন্যই তারা বছরের বিভিন্ন সময়ে আলোচনা-সমালোচনার শীর্ষে উঠে এসেছেন। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আলোচিত ছিলেন বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়া। সেনানিবাসের বাড়িকে কেন্দ্র করে তিনি বছরের শুরম্ন থেকেই আলোচনার শীর্ষে ছিলেন। প্রশাসনিক প্রক্রিয়ায় হেরে গিয়ে আদালতের আশ্রয় নেন। শেষ পর্যনত্ম আদালতে হেরে গিয়ে বহুল আলোচিত সেনানিবাসের বাড়িটি তার হাতছাড়া হয়েছে। আর তার এ বাড়িকে কেন্দ্র করে আরও এক ব্যক্তি আলোচনার শীর্ষে উঠে এসেছেন। তিনি হলেন দলীয় . . .