মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১১, ১৩ ফাল্গুন ১৪১৭
ভালবাসার ফুলে বাণিজ্যের ছোঁয়া
দিন দিন বেড়েই চলছে চাষ ও ব্যবহার
সভ্যতার ক্রমবিকাশের সঙ্গে সঙ্গে ফুলের প্রতি মানুষের আকর্ষণ বেড়েই চলছে। ফলে ভালবাসার ফুলে লেগেছে বাণিজ্যের ছোঁয়া। দিন দিন বেড়েই চলছে ফুলের চাষ ও এর ব্যবহার। খোদ রাজধানী ঢাকার পাশে নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর ও রূপগঞ্জ উপজেলায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ফুল চাষ হচ্ছে। রূপগঞ্জের ভুলতা, বেলাবো ও বন্দর উপজেলার সদর ইউনিয়নজুড়ে আবাদ করা হয়েছে নানা জাতের ফুল। গাঁদা, গোলাপ, রজনিগন্ধা আরও কত কি ফুলের চাষ হচ্ছে এখানে। সকালে ফুলের সৌরভে চারদিক মৌ মৌ করে। হাল্কা বাতাস এই গন্ধ ছড়িয়ে দিচ্ছে আশপাশের এলাকায়। দেখা যায়, বন্দর . . .
দুস্থদের ডাক্তার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী
মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী। বয়স ৭৮ বছর। এ বয়সেও তিনি যেন টগবগে তরুণ। সাইকেলে চড়ে বেড়ান। একটি দাঁতও তার পড়েনি কিংবা নড়েনি। একটি লাঠি তার সর্বক্ষণিক সঙ্গী। সঙ্গে রাখেন হঠাৎ সামনে কোনো বিপদ-আপদ মোকাবেলার জন্য। গুরম্নদয়াল কলেজে ডিগ্রী পরীক্ষায় অংশ নেয়ার পর শিক্ষকতা পেশায় যোগ দেন ১৯৫৯ সালে। পেশাগত জীবনে তিনি প্রথমে কিশোরগঞ্জ সদর পরে ইটনা, করিমগঞ্জ ও হোসেনপুর উপজেলার বিভিন্ন প্রাইমারি স্কুলে শিক্ষকতা করেন। সে সময় অনেক ভাল সরকারি চাকরির সুযোগ থাকলেও শিক্ষকতাকেই পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছিলেন। সারা জীবন শিক্ষা . . .
মুক্তিযোদ্ধার ২০ বছর মাস্টাররোলে চাকরি
স্যার ২০ বছর ধরে মাস্টাররোলে চাকরি করছি। দিনে হাজিরা মাত্র ৯০ টাকা। একদিন শরীর অসুস্থ হলে আয় নেই। এমপি, হুইপ আমার চাকরি স্থায়ী করার জন্য সুপারিশ করেছেন। তারপরও চাকরি স্থায়ী হয়নি। বরং চাকরিস্থল থেকে আমাকে বিতাড়নের চেষ্টা চলছে। এই যুগে ৯০ টাকায় কি হয়। আজ দুপুরে আলুঘোটা খেয়েছি। কারণ চালের দাম বেশি। বুড়ো বয়সে একটু ভাল থাকতে পারলাম না।...একথাগুলো বলছেন কোন পথের ভিকারি নয়, নয় কোন কারখানার শ্রমিক। বলেছেন একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা। তাঁর নাম কাজী আফসার আলী। মাস্টাররোলে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় কাজ করেন বাংলাদেশ বেতারের . . .
ভাস্কর্যের কারিগর বাকপ্রতিবন্ধী পলাশ
বাকপ্রতিবন্ধী হওয়ার কারণে শিশুকাল থেকে কথা বলতে পারত না পলাশ। এ কারণে লেখাপড়া করতে পারেনি। সমবয়সীদের সঙ্গেও মেলামেশা করা হতো না একই কারণে। তাই বাড়িতে বসে মাটি দিয়ে পুতুল তৈরির খেলা করে সময় কাটিয়ে দিত। মাটির পুতুল তৈরির খেলাই এক পর্যায়ে নেশায় পরিণত হয় সেই শিশুকাল থেকেই। পুতুল তৈরি করতে করতে এক সময় সে হাতি-ঘোড়াসহ নানা ধরনের ভাস্কর্য তৈরি শুরম্ন করে। বর্তমানে তার তৈরি ভাস্কর্য দেখে অনেকেই হতবাক। অথচ তার আশ্চর্য প্রতিভার কথা তার এলাকার মানুষও জানে না। জানে না তিনি একজন গুণী ভাস্কর্য কারিগর। কেউ তাকে . . .
কুমড়ার বড়ি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ
মাগুরা জেলার চার উপজেলায় চাল কুমড়ার বড়ি তৈরি ও বিক্রি করে শতাধিক পরিবার জীবিকা নির্বাহ করছে। কুমড়ার বড়ি দিয়ে রান্না করা তরকারি খুবই সুস্বাদু হয়ে থাকে। প্রায় প্রতি বাড়িতেই দৈনন্দিন তরকারির সঙ্গে কুমড়ার বড়ি রান্না করতে দেখা যায়। বাজারে প্রচুর পরিমাণে কুমড়ার বড়ি বিক্রি হতে দেখা যায়। মাগুরার পলস্নীতে বিভিন্ন পরিবারের গৃহিণী ও পুরম্নষ সদস্যরা চালকুমড়া ও মাষকলাই দিয়ে এসকল কুমড়ার বড়ি তৈরি করে বাজারে বিক্রি করে থাকেন। এতে অনেক পরিবার আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। জেলার কাঁচাবাজারে দিয়ে দেখা গেছে, চালডাল বিক্রেতারা . . .
গাভী পালন করে আত্মনির্ভর
গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার সাতারকান্দি চরাঞ্চলের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর নার্গিস বেগম গাভী পালন ও বসতবাড়ির আঙ্গিনায় সবজি চাষ করে নিজ পরিবারের দারিদ্র্য বিমোচনে সক্ষম হয়েছেন। তিনি এখন ওই গাঁয়ের অনুকরণীয় নারী। ওই গ্রামের ভূমিহীন দিনমজুর ফজর উদ্দিনের মেয়ে নার্গিস বেগমকে পিতা-মাতা মাত্র ১৫ বছর বয়সে বিয়ে দেয় একই গ্রামের দরিদ্র শ্রমজীবী আহম্মদ আলীর সঙ্গে। সীমাহীন দুঃখ কষ্টের মধ্যে বড় হওয়া নার্গিস বেগমকে স্বামীর বাড়িতে এসেও চরম দারিদ্র্যের মুখোমুখি দাঁড়াতে হয়। কিন্তু এতে হতাশাগ্রসত্ম না হয়ে তিনি নিজের পায়ে . . .