মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ৭ নভেম্বর ২০১৪, ২৩ কার্তিক ১৪২১
ইংল্যান্ড-ফ্রান্সে কয়েক দিন
লেঃ কর্নেল ডাঃ এ. কে. এম নূরুল হুদা
অন্যান্যবারের মতো এবারও বেরিয়ে পড়লাম দেশ ভ্রমণে। আমি ও আমার সহধর্মিণী মিনা হুদা গত ২ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ঢাকা-দুবাই-লন্ডন বিমানে করে যাত্রা শুরু করি। সময় সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিট। আমাদের ঢাকা আন্তর্জাতিক শাহজালাল বিমানবন্দর পর্যন্ত পৌঁছে দেয়ার জন্য বাসা থেকে আমার আমেরিকান প্রবাসী বড় ছেলের সহধর্মিণী লিজা খাঁন চৌধুরী ও আমার দুই নাতিন লাজিম মাহমুদ ও তানজিম মাহমুদ বিমানবন্দর পর্যন্ত গিয়েছিল। আমাদের ভ্রমণের এই আনন্দঘন পরিবেশটা কিছুটা নিরানন্দ ও ভারাক্রান্ত হয়ে গিয়েছিল যখন আমাদের ছোট নাতনি তানজিম মাহমুদ (তখন মাত্র . . .
মালয় দ্বীপে মালয় সাগরে
শাহরিয়ার শফিক
(পূর্ব প্রকাশের পর) আমাদের নিয়ে বাস চলতে শুরু করেছে। হেলেদুলে বেশ সময় নিয়ে চলছে বাস। কখনও লেকের ওপরে ঝুলে থাকা সেতু দিয়ে, কখনও বা অলিগলি পেরিয়ে তীরুবীথির পাশ দিয়ে। আমরা বাসের জানালা দিয়ে পুত্রাজায়া শহরটাতে শেষবারের মতো চোখ বুলিয়ে নিচ্ছি। বাস এগিয়ে চলছে তো চলছেই। থামার কোন লক্ষণ দেখছি না। মনে মনে ভাবি, বাহ! মাত্র ৫০ সেন্টের এত বরকত! কিন্তু এত চমৎকার সেবা নেয়ার মত ধৈর্য বা সময় কোনটাই তখন আমাদের নেই। মাথায় তখন একটাই ভাবনা- সাড়ে দশটার বাস ধরতে হবে। আমাদের যতই জরুরি হোক না কেন বাস চালককে তা বিন্দুমাত্র . . .
সার্ক স্ট্যাডি ট্যুর ২০১৪
দ্য এক্সপ্লোরারস গ্রুপ
(পূর্ব প্রকাশের পর) রাশি, সময়, কাল নির্ণয়ের বিভিন্ন পদ্ধতির বাস্তব প্রয়োগের নমুনা সকলের কাছে চমকপ্রদ বিষয় হিসেবে ধরা দেয়। যন্ত্রর-মন্ত্রর থেকে এবার যাওয়া আম্বার ফোর্টের উদ্দেশে। যেতে যেতে পথিমধ্যে দেখা মিলল পানির মধ্যে একাধিক বহুতল স্থাপনা যার অর্ধেকটা নিমজ্জিত। জানা গেল এটাই সেই জলমহল, এখানে সে সময়ের রাজা বাদশারা গরমের সময় বিনোদনের জন্য অনেকটা সময় কাটাতে আসত। পথের ধারে এই দৃশ্য দেখে একটু নেমে দেখা ও ছবি তোলার লোভ কেউ সামলাতে পারল না। বিভিন্নভাবে, বিভিন্ন দিক থেকে ছবি তোলা ও লাঞ্চ সেরে আমরা আবারও . . .
আমার দেখা বাংলাদেশ
মোঃ আমির হোসেন
(পূর্ব প্রকাশের পর) এখানে আসলে মনে হবে এ যেন অন্য কোন দেশে এসেছি। এখানে আছে বিচিত্র বন্যপ্রাণীর অবাধ বিচরণ। পশুপাখির কিচিরমিচির। বানর হনুমান উল্লুকের লাফালাফি, মায়া হরিণের চলাচল। বন্যহাতির অবাধ বিচরণ। নাম না জানা বনফুলের মেলা। নানা প্রজাতির গাছ। পাহাড়ী ছড়ার প্রবহমান স্বচ্ছ পানির ধারা সে এক মনলোভা আকর্ষণ। এখানে পুরুষ-মহিলা সবার সঙ্গে দেখা দেয়। এমনকি কোন অপরিচিত লোক গেলেও মহিলারা আড়াল হয় না। কোন পর্যটক গেলেও তারা দূরে সরে যায় না বরং সমাদর করে। আল্লাহতায়ালার অবাক করা সৃষ্টি পাহাড়। তিনি পাহাড়গুলো এমনভাবে . . .
ঘুরে এলাম ভারত
ফকির আলমগীর
(পূর্ব প্রকাশের পর) চার আগস্ট সোমবার খুব সকালে শিলচর থেকে আগরতলায় রওনা দেই সেই চিরচেনা ট্রেনে, ধীর গতি পথে সব স্টেশনে থামানো দীর্ঘ সময় লাগে আগরতলায় পৌঁছাতে। সঙ্গে সপরিবারে শিলচরের লোকশিল্পী তাহেরা লস্কর আর ত্রিপুরার কৈলাস শহরের কণ্ঠশিল্পী রাজা হাসান। পাহাড় আর সবুজ বনাঞ্চল পেরিয়ে আসামের ট্রেন ছুটে চলে আবার সেই হিমাচল, হরিমগঞ্জ, বদরপুর, ধর্মনগর, পেচারথল ছাড়িয়ে আগরতলা পিছে পড়ে থাকে। ১৯৬১ সালে বাংলা ভাষার জন্য প্রাণ দেয়া, সব ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে এক অসাম্প্রদায়িক বরাফ উপত্যকার জনপদ। আগরতলায় পৌঁছে . . .