মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০১১, ৬ কার্তিক ১৪১৮
গৃহকর্মী নির্যাতন কমছে না
চম্পা আক্তার নামের প্রায় ১৪ বছরের গৃহপরিচারিকা কাজ করত রাজধানীর পশ্চিম রামপুরায় ওয়াপদা রোডের একটি বাড়িতে। জানা গেছে, ওই বাড়ির গৃহকর্ত্রী চম্পাকে বাসায় তালাবদ্ধ রেখে রাইরে যান। রাতে গৃহকর্ত্রী বাসায় ফিরে তালা খুলে ভেতরে ঢুকে চম্পাকে বাসায় বারান্দায় ঝুলনত্ম অবস্থায় দেখেন। চম্পা আক্তারের মৃতু্য রহস্যজনক বলে জানা গেছে। এ রহস্যের জট খোলা গেলে তার মৃতু্যর প্রকৃত কারণ বের করা যেতে পারে। সবচেয়ে বেশি সন্দেহের বিষয়টি হলো চম্পাকে তালাবদ্ধ রেখে বাইরে যাওয়ার বিষয়টি। তাছাড়া চম্পা একেবারে ছোট নয় যে তাকে তালা মেরে . . .
শত ফুল ফুটতে দাও
বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই বাল্য বিয়ে আইন করে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে বন্ধ হয়নি এই চর্চা। জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফের দেয়া সাম্প্রতিক তথ্য মতে, বছরে প্রায় এক কোটি মেয়েশিশুকে ১৮ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই বিয়ে দিয়ে দেয়া হয়। ওই তথ্যে আরও বলা হয়েছে, বিশ্বে 'বিবাহিত শিশু দম্পতির' সংখ্যা কমপৰে ৫ কোটি। ইউনিসেফ আরও বলেছে, চলতি শতকের শেষ দশকে এই সংখ্যা দ্বিগুণে গিয়ে দাঁড়াবে। ইউনিসেফের রিপোর্টে আরও ভয়াবহ যা বলা হয়েছে তা হলো_ বিশ্বে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী ১ কোটি ৪০ লাখ কিশোরীকে প্রতিবছর সন্তান জন্ম দিতে হয়। . . .
সংসার ভাঙ্গে ভেঙ্গে যায় শিশুর জীবন
পারিবারিক জীবনে মানুষের মাঝে আশা, হতাশা, স্বপ্ন, দ্বন্দ্ব, উচ্ছ্বাস, ভালবাসা সবই থাকতে পারে এবং রয়েছেও। গ্রাম কিংবা শহর সর্বত্রই পারিবারিক কিছু না কিছু সমস্যা রয়েছে। তবে অনেক পরিবার এ সমস্যা নিজেদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখে। কলহ বিবাদের কথা সনত্মানদের জানতে দেয় না। কারণ বাবা-মায়ের অন্তর্দ্বন্দ্ব অনেক সময় সন্তানের মনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। পরে দেখা যায়, এসব সনত্মানের আলোকিত ভবিষ্যৎ অন্ধকারে নিমজ্জিত। কিন্তু ইদানীং কিছু কিছু পরিবারে সমস্যা এতবেশি দেখা দিয়েছে যে, তা আর সন্তানদের আড়ালে রাখা যাচ্ছে না। কিংবা . . .
প্রীতি রানীর সংসার
গাভী পালন করেই সংসার চালাতে হয়। মূলত আমি ও পরিবারের অন্য সদস্যরা মিলে একসঙ্গেই এসব কাজ করি। শূন্য হাতে যাত্রা শুরম্ন করে এ পর্যন্ত আসতে আমাদের লেগেছে অনেক বছর কিন্তু এখন আমরা মোটামুটি সচ্ছল আছি। কথাগুলো বললেন প্রীতি রানী চক্রবতর্ী। নাটোর সদর উপজেলার শ্রীধরপুর গ্রামে তাঁর বাস। এই গাভী পালন করেই বর্তমানে তিনি পাকা বাড়ি বানিয়েছেন। দুই ছেলেকে এমএ পাস করিয়েছেন। মেয়েকে এইচএসসি পাস করিয়ে বিয়ে দিয়েছেন। শ্রীধরপুর গ্রামের প্রীতি রানীর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় গাভী পালন এবং দুধ বিক্রি করেই তিনি বেশ ভালই আছেন। . . .