মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১৬ এপ্রিল ২০১১, ৩ বৈশাখ ১৪১৮
কারুপণ্যের সমারোহ- বাঁশি সোলার ফুল, রঙিন পাখা নাগরদোলা, পুতুল নাচ
বাংলা একাডেমীতে বিসিকের বৈশাখী মেলা
সৈয়দ সোহরাব ॥ রাজধানীর পরিম-লে আবহমানকালের গ্রামবাংলার মেলার আঙ্গিক অক্ষুণ্ন রেখে নাগরিক রুচির উপযোগী করে তা তুলে আনতে প্রথমে উদ্যোগী হয়েছিলেন প্রখ্যাত শিল্পী পটুয়া কামরুল হাসান। উদ্দেশ্য ছিল আমাদের ঐতিহ্যবাহী লোকসংস্কৃতির সঙ্গে শহুরে নাগরিক জীবনের সংযোগ সৃষ্টি। তার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের কারুশিল্পীদের উৎপাদিত পণ্যের প্রতি বৃহত্তর ক্রেতাগোষ্ঠীর আগ্রহ জানানোর মাধ্যমে এর বাজার তৈরি করা। আর এ কাজটি তিনি করেছিলেন প্রায় ৩৫/৩৬ বছর আগে। সেই থেকে রাজধানী ঢাকায় মেলার প্রচলন। এখন তো প্রায় প্রতি মাসেই . . .
মন্ত্রীর প্রভাবে ঘোড়াশাল পিকিং প্লান্টের ভাগ্য আবার অনিশ্চিত!
রশিদ মামুন ॥ জনৈক মন্ত্রীর প্রভাব বিসত্মারে শেষ পর্যন্ত অনিশ্চিত হয়ে উঠছে ঘোড়াশাল ২০০ থেকে ৩০০ মেগাওয়াট সান্ধ্যকালীন (পিকিং) বিদ্যুতকেন্দ্রের ভাগ্য। দু'বার দরপত্র আহ্বান আর চার বার সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত কমিটিতে উত্থাপনের পরও বাতিল হয়ে যাচ্ছে কেন্দ্রটির দ্বিতীয় দফায় আহ্বান করা দরপত্র। দুই দফা দরপত্রেই মন্ত্রীর পছন্দের কোম্পানি দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতা বিবেচিত হয়। অথচ দু'বারই নানা কৌশলে প্রভাব বিসত্মার করে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন দরদাতাকে কাজ পাইয়ে দিতে চাইলে গোল বাঁধে। অভিযোগ পাল্টাঅভিযোগে প্রথম . . .
স্বাধীনতাবিরোধী সব অপশক্তি মোকাবেলার অঙ্গীকার
আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা
বিশেষ প্রতিনিধি ॥ স্বাধীনতাবিরোধী সকল অপশক্তিকে মোকাবেলার দৃঢ় অঙ্গীকার নিয়ে বাংলা শুভ নববর্ষে রাজধানীতে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। বাঙালী লোকজ সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে ধারণ করে হাজারো মানুষের অংশগ্রহণে শোভাযাত্রাটি রূপ নেয় রীতিমতো আনন্দ মেলায়। ঢাক-ঢোল, বাঁশি আর একতারার সুরে নেচে-গেয়ে তারুণ্যের উচ্ছ্বাস প্রকাশের এক অপরূপ দৃশ্য ছিল এই শোভাযাত্রায়। মঙ্গল শোভাযাত্রার উদ্বোধনকালে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, নববর্ষ পালনে সারাদেশের মানুষ . . .
যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা নিশ্চয়ই সফল হব
নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী
বিশেষ প্রতিনিধি ॥ পুরনো বছরের সকল জঞ্জাল ও জরাজীর্ণকে মুছে ফেলে নতুনকে বরণ করে দেশকে গড়ে তোলার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, নতুন বছর আমাদের জন্য কল্যাণকর নতুন বার্তা বয়ে আনুক। আমরা যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছি নিশ্চয়ই সফল হব। আমরা ৰুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে বিশ্বে মর্যাদার সঙ্গে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চাই। বৃহস্পতিবার বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উপলৰে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সংসদ সদস্য, বিশিষ্ট নাগরিক . . .
লাশ গুম করার জন্যই ৯ টুকরো করা হয়, দু'আসামির স্বীকারোক্তি
রাজশাহীর ব্যবসায়ী আমিনুল হত্যাকাণ্ড জমি ও টাকা নিয়ে বিরোধের জের
স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ রাজশাহী মহানগরীর ধনাঢ্য ব্যবসায়ী আমিনুল হক হত্যাকাণ্ডের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে ঘাতক সারোয়ার হোসেন ও আবদুল হাকিম। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশিদের কাছে ১৬৪ ধারায় দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে দুজনই আমিনুল হককে খুনের কথা স্বীকার করেছে। জবানবন্দীতে ব্যবসায়ীকে ডেকে নিয়ে যাওয়া, বেঁধে রাখা, জবাই ও লাশ গুম করতে তা টুকরো টুকরো করার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছে। এদিকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়ায় তাদের দুজনকেই হাজতে পাঠায় আদালত। এ ঘটনায় আটক অপর তিনকে জিজ্ঞাসাবাদ . . .
ইব্রাহিম খালেদের বক্তব্যে আদালতের ওপর অনাস্থা প্রকাশ পেয়েছে
শীর্ষ আইনজীবীদের অভিমত
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ॥ পুঁজিবাজারে অস্থিরতার পেছনে জড়িতদের বিচার কেবল সেনা শাসনেই সম্ভব, খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের এই বক্তব্যকে উস্কানিমূলক উল্লেখ করে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ও আনিসুল হকের মতো শীর্ষ আইনজীবীরা বলেছেন, ওই বক্তব্যে আদালতের ওপর অনাস্থা প্রকাশ পেয়েছে। বৃহস্পতিবার একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া ইব্রাহিম খালেদের ওই বক্তব্যের সমালোচনায় সাবেক এ্যাটর্নি জেনারেল রফিক-উল হক বলেন, তাঁর এ বক্তব্য উস্কানিমূলক, কেননা সামরিক শাসন অবৈধ, অসাংবিধানিক। যারা সেনাশাসনের পক্ষে উস্কানিমূলক কথা বলে, তাদেরও . . .
পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী জোট পাবে ২১৫ আসন, বাম জোট ৭৪
জনমত জরিপ
ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে শাসক জোট বামফ্রন্টের চেয়ে অনেক বেশি আসন পাবে বিরোধী কংগ্রেস-তৃণমূল জোট। বামফ্রন্টের আসন সংখ্যা নেমে আসবে ১শ'র নিচে। আর বিরোধী জোট পাবে দু'শ'র বেশি আসন। কলকাতা থেকে প্রকাশিত দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা এবং এসি নিয়েনসেন পরিচালিত জনমত জরিপ থেকে এ তথ্য বের হয়ে এসেছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকা অনলাইনের। জরিপে বলা হয়েছে, বিধানসভার ২৯৪টি আসনের মধ্যে তৃণমূল-কংগ্রেস পাবে ২১৫টি আসন। আর বামফ্রন্ট পাবে ৭৪টি আসন। বিজেপি জোট পাবে ৪টি এবং অন্যরা পাবে ১টি আসন। আনন্দবাজার . . .