মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ১৩ জুলাই ২০১১, ২৯ আষাঢ় ১৪১৮
দুষ্ট গরু শেষ পর্যন্ত সত্যই শিষ্ট হয়ে গোয়ালে ফিরবে তো?
আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী
আমি এককালে ছাত্রলীগে ছিলাম। পাকিস্তান আমলে মুসলিম ছাত্রলীগ থেকে মুসলিম শব্দটি বর্জিত হয়ে যখন এই জনপ্রিয় ছাত্র প্রতিষ্ঠানটি শুধু ছাত্রলীগ নামে অসাম্প্রদায়িক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়, তখন থেকে আমি এই ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হই এবং আমার ছাত্রজীবন শেষ হওয়া পর্যন্ত যুক্ত ছিলাম। আমি এবং জহির রায়হান (কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্র পরিচালক) এক সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়কও ছিলাম। ছাত্রলীগ অবশ্য তখনও দ্বিধাবিভক্ত ছিল। একটি মুসলিম লীগ নেতা শাহ আজিজুর রহমানের গ্রম্নপ হিসেবে পরিচালিত তৎকালীন মুসলিম . . .
রোনাল্ড রিগানের জন্মশতবার্ষিকীতে আন্তর্জাতিক আলোচনাসভা
নাদিরা মজুমদার
(শেষাংশ) মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুই প্রেসিডেন্ট_ জন কেনেডি এবং রিগান, ঐতিহাসিক বার্লিন দেয়ালে যান; বক্তব্যও রাখেন; বিপুলসংখ্যক জার্মান দুই প্রেসিডেন্টকে উপযুক্ত সম্মান ও ভালবাসাও দেয়। ষাটের দশকের শুরুতে, জার্মানি যখন পূর্ব দিক থেকে সোভিয়েতের বৈরী আচরণে অস্থির, বিশেষ করে ১৯৬১ সালে ক্রুশ্চেভের নির্দেশে অতি অল্প সময়ের মধ্যে বার্লিন দেয়াল তুলে দিয়ে বার্লিনকে দুইভাগে ভাগ করে দেয়া হয় এবং পূর্ব ও পশ্চিম জার্মানদের মুক্ত যাতায়াত অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে যায়; ইত্যবসরে আবার পশ্চিম দিক থেকে ডি গ্যলের . . .
ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ এক চলন্ত বিশ্বকোষ
অধ্যাপক হাসান আবদুল কাইয়ূম
ডক্টর মুহম্মদ শীহদুল্লাৈহ্ জ্ঞান রাজ্যে এক অনন্য কিংবদন্তি মহাপুরম্নষ। জ্ঞান চর্চাতেই ছিল তাঁর আনন্দ, যে কারণে তিনি স্বামী জ্ঞানানন্দ খেতাব গ্রহণের ইচ্ছা ব্যক্ত করতেন। তাঁকে চলিষ্ণু বিদ্যাকল্পদ্রুম অর্থাৎ চলন্ত বিশ্বকোষ বলা হয়। ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহর আয়ত্তে ছিল পৃথিবীর ২৪টি ভাষা। ১৮টি ভাষার ওপর তাঁর অসাধারণ পাণ্ডিত্য ছিল। ভাষা বিজ্ঞানের দুরূহ অঙ্গনে তিনি অবাধে বিচরণ করেছেন। ভাষায় ভাষায় যে কত রহস্য রয়েছে, কত যে শব্দের ব্যঞ্জনা রয়েছে তা তিনি ভাষা বিজ্ঞানের নিরিখে নির্ণয় যেমন করেছেন, তেমনি একজন . . .
নিজেকে হাল্কা করতে ওদের সঙ্গে আলোচনায় যোগ দিলাম
নোটস ফ্রম এ প্রিজন বাংলাদেশ
মহীউদ্দীন খান আলমগীর
(গতকালের পর) জেলে ফিরে দেখি আমার কারাসঙ্গী সালমান, লোটাস কামাল, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ এবং নাসিম দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি, বিদু্যত ঘাটতি এবং ফখরম্নদ্দীন সরকারের চরম ব্যর্থতা নিয়ে আলোচনা করছেন। সঙ্গে বয়ে আনা এতসব হতাশা ধারণ করার শক্তি আমার নেই। নিজেকে হাল্কা করতে ওদের সঙ্গে আলোচনায় যোগ দিলাম। সবাই ভেবে দেখলাম, গুটিকয় লোকের লাগামহীন ব্যক্তিস্বার্থ এবং উচ্চাকাঙ্ৰার চাকায় ভর করে দেশটা গড়িয়ে গড়িয়ে চলছে। এই অরৰিত সমাজে লেফটন্যান্ট জেনারেল মাসুদউদ্দিন চৌধুরীর মতো অল্প কয়েকজন নেতৃত্ব দিয়ে রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের . . .