মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
শনিবার, ১৮ জুন ২০১১, ৪ আষাঢ় ১৪১৮
ভাল খেলে হারলেও গ্লানি নেই
মুহম্মদ শফিকুর রহমান
ভাল খেলে হেরে যাবার মধ্যে গ্লানি নেই। দুঃখ থাকে, মানুষকে হতাশ করে না। বরং আত্মোপলব্ধির জন্ম দেয় যা পরবর্তী গেমের জন্যে বিজয়ের সোপান রচনা করে। দক্ষতা-আন্তরিকতা প্রশ্নবিদ্ধ হয় না। মানুষ মনে করে খেলেছে ভাল, কিন্তু ওদের ভাগ্য খারাপ তা-ই হেরে গেল। এইভাবে মানুষের সহযোগিতা সহানুভূতির ৰেত্র আরও প্রসারিত হয়। কিন্তু খারাপ খেলে হারলে যেমন গস্নানি পোহাতে হয়, তেমনি এক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের মনোবল ভেঙ্গে পড়ে। বিশেষ করে আয়োজক এবং সংগঠকদের যোগ্যতা, দৰতা ও সাংগঠনিক শক্তি দারুণভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়। মানুষের তিরস্কারের ফলাটি . . .
জীবন কথন ॥ বেঁচে যদি থাকত সেই আট বছরের একটি বালক
রণজিৎ বিশ্বাস
অকালে সন্তানহারা এক নারী তার মতোই হতভাগ্য এক জনককে, সেদিন, বেশ কিছুদিন আগে, ডাইরিতে তারিখটা টুকে রেখেছি, গত বছরের ১৮ অক্টোবর, রাতে টেলিভিশনের খবর দেখতে দেখতে বললো_এই ছেলেটিকে নিয়ে, রাসেল নামের এই বিশিষ্ট বালকটিকে নিয়ে তুমি তো কিছু লিখতে পারো। আজ ওর জন্মদিনে ওর বোন যে ওর জন্য কাঁদছে, পরিবারে সবার ছোট ভাইটির কথা বলার সময় অতগুলো মানুষের সামনে দাঁড়িয়েও যে তিনি চোখের পাতাকে বশে রাখতে পারছেন না, বাষ্পরুদ্ধ কণ্ঠকে যে লুকোতে পারছেন না_তা নিয়ে তো কিছু লিখতে পারতে। ওকে নিয়ে লেখা তো কারও ভজনা নয়, ওকে নিয়ে লেখা . . .
নোটস ফ্রম এ প্রিজন বাংলাদেশ ॥ জেল কোডে এ রকম কোন নিষেধাজ্ঞা আছে বলে মনে পড়ল না
মহীউদ্দীন খান আলমগীর ॥ অনুবাদ : মাহযুবা লিমা
(গতকালের পর) পরবর্তী সাক্ষী বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, গুলবাহারের ব্যবস্থাপক হরেণ মিত্র। ঐ ব্যাংকে আমার একটি সঞ্চয়ী এবং আরেকটি চলতি হিসাবে ১৩ মে, ২০০৭-এ যথাক্রমে ৬২,১৬৯ টাকা এবং ২৬,৪০৯ টাকা থাকার বিষয়ে তিনি সাক্ষ্য দেন। এ্যাডভোকেট হায়দারের জেরায় তিনি জানান, গুলবাহারে কৃষি ব্যাংকের শাখা স্থাপনের পর আমিই সর্বপ্রথম এ্যাকাউন্ট খুলি। জেরায় তিনি স্বীকার করেন, তদন্ত কর্মকর্তাকে তার দেয়া ব্যাংকের হিসাব বিবরণীতে ওভাররাইটিং এবং কাটাকাটি আছে। তাছাড়া প্রতিপাতায় তাঁর স্বাক্ষর নেই। আমার সম্পদ বিবরণী দেয়ার সময়ে . . .