মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
রবিবার, ২৪ জুলাই ২০১১, ৯ শ্রাবণ ১৪১৮
একুশ শতক
লাল সালাম কমরেড তাহের
মোস্তাফা জব্বার
প্রায় নীরবে-নিভৃতে কেটে গেছে দিনটি। কোন কোন পত্রিকায় ছোট করে এক কলাম খবর হয়েছে। কোন মিডিয়ায় কার্যত একটি বাক্যও ছিল না। তবে আমার জন্য দিনটির কথা দুই কারণে ভুলে যাবার নয়। প্রথমত বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি আরও একটি একুশে। জুলাই মাসের এই একুশ তারিখে বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল তাহেরকে ফাঁসিতে হত্যা করা হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা উত্তরকালে পঁচাত্তরের পনোরোই আগস্ট থেকে হত্যা-কু্য-ষড়যন্ত্রের যে রাজনৈতিক প্রক্রিয়া শুরম্ন হয় তাহের হয়ে ওঠেন তার নির্মম বলি। দ্বিতীয়ত ২০১১ সালে এই দিনটি আমি আরও ভুলতে পারি না কারণ ২০১০ . . .
প্রতিপক্ষ চেনা জরুরী এখন
মিলু শামস
বড়দেশী গ্রাম কি এক ট্রেজার আইল্যান্ড? তিন দিকে পানি একদিকে সড়ক হলেও দ্বীপই আসলে। বিচ্ছিন্নতার দ্বীপ। অন্ধকারে ডোবা এক জনপদ। ট্রেজার আইল্যান্ড, জনপদ নয় সমুদ্রের বুকে এক দুর্গম দ্বীপ। জলদসু্যরা যেখানে গুপ্তধন রেখে হারিয়েছিল মানচিত্র। তারপর কেবলই খোঁজার পালা। বড়দেশী গ্রামে কি আছে? হারিয়েছেই বা কি। সে কি আমাদের চেনা মূল্যবোধ? এক রাতে ছয় কিশোর হেঁটে পেঁৗছেছিল বড়দেশীতে। সে রাতে আকাশে চাঁদ ছিল কিনা জানা যায়নি। তুরাগে ঢেউ ছিল শানত্ম। মসজিদে প্রার্থনা করছিলেন মুসল্লিরা। প্রার্থনার রাতে পবিত্রতার প্রাচীর ভেঙ্গে . . .
ওরা কিছুই পায়নি
বাংলাদেশের স্বাধীনতায় নারীদের অবদান অপরিসীম। মুক্তিযুদ্ধকালে প্রায় ২ লৰাধিক নারী হানাদার পাকিস্তানী বাহিনী ও তার সহযোগীদের দ্বারা সম্ভ্রম হারান। তিরিশ লাখ মানুষের জীবনদানের পাশাপাশি এই নারীদের আত্মত্যাগের কাহিনী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে সোনার হরফে লেখা থাকবে। কিন্তু স্বাধীনতা যুদ্ধের পর তারা প্রাপ্য মর্যাদা ও সম্মান তেমন কিছুই পাননি। মুক্তিযুদ্ধকালে নির্যাতিতাদের বঙ্গবন্ধু 'বীরাঙ্গনা' নামে অভিহিত করেছিলেন। পুনর্বাসনের জন্য বঙ্গবন্ধু সরকার বেশ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল; কিন্তু . . .
সম্পাদক সমীপে
সংবিধান ছুড়ে ফেলা...
বিরোধী দলের নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুখ থেকে বেরিয়ে এসেছে তার দল ক্ষমতায় গেলে সংবিধানকে ছুড়ে ফেলে দেবেন। বেগম জিয়ার মুখ থেকে এ ধরনের বক্তব্যের পরই অন্য এক ইসলামী দলের নেতা বলেছেন, তারা ক্ষমতায় গেলে নাকি পবিত্র সংবিধানকে ডাস্টবিনে ফেলে দেবেন। আমরা জানি কোন ময়লা আবর্জনাকে কেউ ডাস্টবিনে ছুঁড়ে ফেল দিতে পারে। কিন্তু গণতন্ত্রমনা জনপ্রতিনিধিরা সংবিধানের মতো একটি বিধান রচনা করেছেন, সেই সংবিধানকে ময়লা-আবর্জনা মনে করে আজ যারা ডাস্টবিনে ছুঁড়ে ফেলে দিতে চাচ্ছেন তারা কি আসলেই দেশের মঙ্গল . . .