মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বৃহস্পতিবার, ২৪ মার্চ ২০১১, ১০ চৈত্র ১৪১৭
সুপ্রীমকোর্টের রায় অনুযায়ী সংবিধান ছাপা ও না ছাপার বিষয়টি
স্বদেশ রায়
দেশে এখন সংবিধান নিয়ে একটা বিতর্ক চলছে। জাতীয় সংসদের স্পীকারও বলেছেন, সংসদে একটি নির্দিষ্ট দিন ধার্য করে এ বিষয়ে বিতর্ক হতে পারে। সংসদ সদস্যরা সংবিধানের রক্ষক। তাই তাঁদের এ বিতর্ক শোনার জন্য দেশবাসীর অপেৰা করা উচিত। তবে সংবিধান নিয়ে এই যে বিতর্ক চলছে এটা সংবিধানের কোন মৌল বিষয় নিয়ে নয়। এই বিতর্ক শুরু হয়েছে সুপ্রীমকোর্টের দেয়া রায় অনুযায়ী সংবিধান ছাপার পরে। আইন মন্ত্রণালয় সুপ্রীমকোর্টের দেয়া ৫ম সংশোধনী বাতিল রায় দেবার পর আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী সংবিধান ছেপেছে। আইন মন্ত্রণালয়ের এই কাজ ও সংবিধান ছাপা . . .
সংসদে অশালীন ভাষা
সংসদীয় গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় জাতীয় সংসদের স্থান সর্বোচ্চ। এখানে সরকার ও বিরোধীদলীয় সাংসদরা রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা করে থাকেন। তাঁরা আলোচনা করেন, বিতর্ক করেন; কিন্তু সেই সঙ্গে সংসদীয় বিধি মেনে চলা তাঁদের কর্তব্য। কিন্তু বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে গত কয়েক দশক ধরে কোন কোন সাংসদের দায়িত্বহীন আচরণ লৰ করা যায়। কেউ কেউ একে অপরের প্রতি অশালীন ভাষা ব্যবহার করেন। এর ফলে সংসদের ভাবমূর্তি ৰুণ্ন হয়। দীর্ঘদিন পর বিরোধীদলীয় সাংসদরা জাতীয় সংসদে ফিরে এসেছেন। সবাই ধারণা করেছিল, এবার সরকার ও বিরোধীদলীয় সাংসদরা . . .
ভূগর্ভস্থ পানি নিয়ে চিন্তা
ভূগর্ভস্থ পানির সত্মর দিন দিন নিচে নেমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তা বেড়ে যাচ্ছে। যত্রতত্র যে কোনভাবে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ফলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে ভূগর্ভস্থ পানির একটি সুসমন্বিত ও যৌক্তিক ব্যবহার অত্যন্ত প্রয়োজন। দেশের পানিসম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা, উন্নয়ন, ব্যবহার ও এ ৰেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লৰ্যে পানি আইন প্রণয়ন ও বাসত্মবায়ন করা গেলে তা ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে। আশার কথা হচ্ছে, সরকার পানি নিয়ে একটি আইনের খসড়া চূড়ানত্ম করেছে। এ আইন অম্যান্য করা হলে শাসত্মির বিধানও রাখা হয়েছে। সরকারী-বেসরকারী . . .