মানুষ মানুষের জন্য
শোক সংবাদ
পুরাতন সংখ্যা
বুধবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০১১, ১৪ পৌষ ১৪১৮
এই প্রশ্নের জবাব নব্য নাৎসিদের দিতে হবে
বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর
পাকিস্তানের কলোনিকালে, মুক্তিযুদ্ধের সময়ে, সামরিক শাসনের আমলে যেসব বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতিবিদ সাধারণ মানুষের পৰে দাঁড়িয়েছেন, তাঁরা একজন একজন করে ওপারে পাড়ি দিচ্ছেন। যাঁরা প্রথম দিকে নিঃসঙ্গ যোদ্ধা ছিলেন এবং যাঁরা ব্যক্তিগত পর্যায়ে লড়াই করেছেন, তাঁরা হয়ে উঠেছেন রাজনৈতিক মিলিট্যান্ট। নিঃসঙ্গ যোদ্ধা এবং রাজনৈতিক মিলিট্যান্টের মধ্যে তফাত আছে কি? নেই। কলোনির পরিসরে, মুক্তিযুদ্ধের পরিসরে, সামরিক শাসনের পরিসরে কোন তফাত কোথাও ছিল না। এই সব মানুষ, যোদ্ধা মানুষ মিলিট্যান্টের গুণগুলো দিয়ে নিজেদের হাজার মানুষের . . .
বিশেষজ্ঞ চিকিৎসা শিক্ষা ও সেবা
ডা. মোঃ মুজিবুর রহমান হাওলাদার ও অধ্যাপক কাজী তারিকুল ইসলাম
বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানস্ এ্যান্ড সার্জনসের ভূমিকা
আন্তর্জাতিক মানের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরির প্রত্যয়ে সৃষ্ট বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ানস্ এ্যান্ড সার্জনস্ (বিসিপিএস) এ দেশে স্নাতকোত্তর চিকিৎসা শিক্ষার সূতিকাগার। কারণ কোন দেশের চিকিৎসা সেবাকে সার্বজনীন ও বিশ্বমানে উন্নত করতে হলে স্নাতকোত্তর চিকিৎসা শিক্ষা ও গবেষণার মান উন্নয়ন একান্ত অপরিহার্য। এ লক্ষ্য অর্জনে বিসিপিএস শুধু প্রথম নয়, ঈর্ষণীয় ও অপ্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান। ফলে বাংলাদেশের সার্বিক চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নে এ প্রতিষ্ঠানটির ভূমিকা অপরিসীম। বর্তমান বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকারী, বেসরকারী ও স্বায়ত্তশাসিত . . .
যোগাযোগে দৈন্যচিত্র
মহাজোট সরকারের ৩ বছরে যোগাযোগ ক্ষেত্রের যে হিসাব-নিকাশ পাওয়া যাচ্ছে তাতে এক দৈন্যচিত্রই ফুটে উঠেছে। এই তিন বছরে সড়ক ও রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে তেমন একটা অগ্রগতি হয়নি। বরং বিগত কয়েক বছর ধরে সড়ক-মহাসড়কগুলো চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। সেগুলো রৰণাবেৰণ এবং নতুন করে রাস্তা নির্মাণেও উদ্যোগ ছিল খুবই সীমিত। গত বর্ষা মৌসুমে রাস্তাঘাটের এক করুণ চিত্রই ফুটে ওঠে। তখন ঢাকা-গাজীপুর-ময়মনসিংহ রোডসহ অনেক রোডেই যানবাহন চলাচল বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। নকশা মেনে সড়ক তৈরি না করা, টেন্ডারবাজি, প্রশাসনের শিথিলতা, স্বজনপ্রীতি . . .
ভারতীয় চলচ্চিত্র আমদানি
আকাশ যেখানে উন্মুক্ত, সিনেমা হল সেখানে মুক্ত থাকতেই পারে_যুক্তি পাল্টা যুক্তি শেষে সিদ্ধানত্ম এমনই দাঁড়াল। ঊনিশ শ' পঁয়ষট্টির পর দু'হাজার এগারো। আবার অবমুক্ত হল ভারতীয় চলচ্চিত্র। একযোগে চলেছে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের কয়েকটি হলে। জানা যায়, হল মালিকদের দাবিতে উপমহাদেশের বিভিন্ন ভাষার চলচ্চিত্র আমদানির সুযোগ রেখে গত বছর এ সংক্রান্ত আইন সংশোধন হয়। এর ধারাবাহিকতায় ভারতীয় চলচ্চিত্র দেখানোর আয়োজন শুরু হলে ঢাকার চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিচালক ও শিল্পী-কলাকুশলীদের প্রতিবাদে তা স্থগিত হয়। ঘটনা শেষ পর্যন্ত আদালতে . . .